ঢাকা থেকে সিকিম ভ্রমণ

যুক্ত করা হয়েছে
ভালো লেগেছে
1
ট্রিপ
৮ দিন
খরচ
১১০০০ টাকা

অনেকদিন থেকেই প্ল্যান ছিল বরফ এর উপর হাটবো, স্নোফল দেখবো নিজের চোখে। বৃষ্টির মতো গায়ের উপর পড়বে স্নো! এরকম একটা চিন্তা আর অল্প খরচের কথা মাথায় রেখেই শীতকালে সিকিম ট্যুরের পরিকল্পনা শুরু। শীতকালে সিকিম ট্যুরের ভালো-খারাপ ২ দিকই রয়েছে। ভালো দিক আপনি প্রচুর স্নো পাবেন আর খারাপ দিক আপনি সবগুলো স্পটে নাও যেতে পারেন। যেমনটা আমরা যেতে পারি নি সাঙ্গু লেকে 😞

আমরা ছিলাম ৫ জনের গ্রুপ। ট্যুরের প্ল্যান ডিসেম্বর থেকেই। তখন সিকিম এর ILP নিয়ে অনেক ধোঁয়াশা থাকায় ওভার শিওর হতে আমরা ৩ জনের ILP নেয়ার জন্য যমুনা ফিউচার পার্ক থেকেই ৩০০ টাকা আর অনেক মূল্যবান সময় নষ্ট করে নিয়ে নেই। পরে বুঝতে পারি এটা ছিল অযথা। গ্রুপের বাকি ২ জনের পার্মিশন আমরা শিলিগুড়ির SNT থেকেই নিয়ে নেই যা ছিল সম্পূর্ণ বিনামূল্য।

ট্যুরের সময়কাল

০৫-১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

এবার আসি আমাদের সিকিম ট্যুরের বিস্তারিত এবং খরচের বর্ণনায় 🙂

১ম দিন আমরা রাত ৯ টায় পিংকি পরিবহনের বিজনেস ক্লাস বাসে যাত্রা শুরু করি ঢাকার টেকনিক্যাল থেকে। ভাড়া ১২০০ টাকা। ২য় দিন সকালে বুড়িমারি পৌঁছে ৩৫ টাকায় সকালের নাস্তা সেরে পূর্বপরিচিত এক লোকের সাহায্যে দুই বর্ডারে ১০০+১০০ টাকা দিয়ে ইমিগ্রেশন এর সকল কাজ শেষ করে চ্যাংড়াবান্ধা বর্ডার থেকে মানি এক্সচেঞ্জ করে শিলিগুড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দিই আমরা। বর্ডারে ভাল রেট পাই আমরা।

১ ডলার = ৭১.৫০ রুপি এবং ১০০ টাকা = ৮৫.৮০ রুপি।

এবার চলে এলো রুপির হিসাব। বর্ডার থেকে ৫ জন ১০০০ রুপি দিয়ে জিপ রিজার্ভ করে চলে যাই শিলিগুড়ি SNT স্ট্যান্ডে। এখান থেকেই সিক্কিম যাবার বাস আর জিপ পাওয়া যায়। বাসে গ্যাংটক গেলে ভাড়া ১৫০ রুপি আর জিপে শেয়ারে ২৫০ রুপি। সেখানে আমাদের সাথে আরো ২ জনের দেখা হয়ে গেলে আমরা পুরো জিপ রিজার্ভ নিয়ে (২৫০০ রুপি/৭ জন)। এবার আমরা গ্যাংটক চলে যাই। শিলিগুড়ি তে ১০০ টাকায় কাতলা মাছের থালি খেয়ে গ্যাংটক পৌঁছে খুব সস্তায় হোটেল পেয়ে যাই। ৫ জনের রুম মাত্র ৯০০ রুপিতে!!!

PLANT CONSERVATORY
PLANT CONSERVATORY

হোটেল TASHI NORLIN, তিব্বত রোড। যা এম জি মার্গ থেকে ২-৩ মিনিট পায়ে হাঁটা দূরত্ব। সেখানে ফ্রেশ হয়ে একটু ঘুরাঘুরি করে ১৩০ রুপিতে রাতের খাবার খেয়ে হোটেলে এসে ঘুম।

৩য় দিন সকালে ৫০ টাকায় পরোটা আর আলুর দম খেয়ে গ্যাংটকের লোকাল সাইট সিয়িং এর জন্য টয়োটা ইনোভা গাড়ি ভাড়া নিই ফুল ডে’র জন্য। ভাড়া (২৫০০ রুপি/৭জন)। বিভিন্ন জায়গায় টিকিটের জন্য খরচ হয় ৪০ রুপি আর ক্যাবল কারে ১১০ রুপি। দুপুরের খাবারে ৮০ রুপি (চাউমিন+মমো) আর রাতের খাবারে ১৮০ রুপি (মাটন বিরিয়ানি)। হোটেল ভাড়া ১৮০ রুপি জনপ্রতি।

সারাদিনের সাইট সিইং এর ১০ পয়েন্ট ট্যুরের মধ্যে ছিল

  1. Hanuman Tok
  2. Plant Conservatory
  3. Rumtek Monastery
  4. Nehru Botanical Garden
  5. Shanti View Point
  6. Enchey Monastery
  7. Ganesh Tok
  8. Ropeway
  9. Institute of Tibetology
  10. Tashi View Point

শুধু রুমটেক মনেস্ট্রিতে ড্রাইভার আমাদের নিয়ে যায়নি।

Enchey Monastery
Enchey Monastery

৪র্থ আর ৫ম দিন ছিলো প্যাকেজ ট্যুর। ২ দিনের প্যাকেজ ট্যুরে ছিল ২টা লাঞ্চ, ১ টা ব্রেকফাস্ট, ১টা ডিনার, ১ জন গাইডের সম্পূর্ণ খরচ, হোমস্টে তে থাকার ব্যবস্থা। এক্ষেত্রে ৬ জনের জন্য খরচ ছিল ১১,০০০ টাকা। এই দুই দিনে প্যাকেজের আরো খরচ ব্রেকফাস্ট ৫০ রুপি, ডিনার ১৩০ রুপি। এই প্যাকেজে নর্থ সিকিম এর YUMTHUM VALLEY যেতে সব সাইট সিয়িং সহ ইনক্লুড ছিল।

৫ম দিন বিকেলে হোটেলে ফিরে ফ্রেশ হয়েই গ্যংটকের DENZONG CINEMA তে ALITA – the battle girl মুভি দেখে ফেলি ৭৫ রুপিতে। আর কিছু লোকাল স্ট্রিট ফুড উপভোগ করি ১০০ রুপি খরচে। ৫ম দিনের হোটেল ভাড়া ছিল ১৮০ রুপি জনপ্রতি।

৬ষ্ঠ দিন যাওয়ার প্ল্যান ছিল সাঙ্গু লেক কিন্তু অতিরিক্ত স্নোফলের কারণে রাস্তা বন্ধ থাকায় আমরা গ্যাংটক এর ট্যুরিস্ট ইনফরমেশন সেন্টার থেকে তথ্য নিয়ে আমরা সাঙ্গুতে যেতে পারবো না সেটা কনফার্ম হয়ে শিলিগুড়ি ব্যাক করি জিপ রিজার্ভ করে। এবার ফিরতি পথে ভাড়া পরে ৩৫০ টাকা জনপ্রতি। শিলিগুড়িতে হোটেলে উঠে পরি এবার DAMODAR LODGE এ। ৩ জনের রুমের ভাড়া ৫০০ টাকা। এ দিনের আর খরচ লাঞ্চ ১২০ টাকা আর ডিনার ১০০ টাকা।

৭ম দিন আমরা শিলিগুড়িতে স্টে করি শপিং করতে আর পুরো শিলিগুড়ি ঘুরতে। সকালে ৩০ রুপিতে নাস্তা করে বেরিয়ে পরি বিধান মার্কেট এর উদ্দেশ্যে। সেখান থেকে হংকং মার্কেট, নিউ সিনেমা রোড সবকিছু ঘুরে প্রয়োজনীয় কেনাকাটা শেষে লাঞ্চ করে নিই হোটেল সুরুচিতে। অসাধারণ খাবারের টেস্ট ছিল। ১১০ টাকায় মাটন+ভাত। এরপরে হোটেলে ফিরে রেস্ট নিয়ে বিকেলে বের হই সেবক রোডের উদ্দেশ্য নিয়ে। এই রোডে শ্রীলেদার্স, খাদিম, RAYMOND, ARVIND, BIG BAZAR, VIMAL, KFC, DOMMINOS PIZZA থেকে শুরু করে সকল ব্যাণ্ডের দোকানই আছে। রাতে আমরা KFC থেকে ডিনার সেরে নিই ১৯৯ রুপির প্যাকেজে।

North Sikkim

৮ম দিন সকালে নাস্তা আর দুপুরের লাঞ্চ করার মাঝের সময়টুকু শহরে ঘুরে ১.৩০ এর শ্যামলী পরিবহনের বাসে ১১০০ রুপিতে চলে আসি আমাদের প্রিয় দেশে। অনেক জিনিসপত্র থাকার পরেও ইন্ডিয়ান বর্ডারে টাকা দিতে হয়নি কিন্তু বাংলাদেশ বর্ডারে ১০০ টাকা ঠিকই দিতে হয়েছে। সন্ধ্যায় বুড়িমারিতে মুরগি+ভাত খেতে খরচ হয়েছে ৬০ টাকা।

এবার আসি পুরো খরচের ব্যাপারে

১ম দিনের খরচ

বাস ভাড়া ১২০০ টাকা
ভ্রমণ কর ৫০০ টাকা

২য় দিন

নাস্তা ৩৫ টাকা
স্পিড মানি ২০০ টাকা
চ্যাংড়াবান্ধা টু শিলিগুড়ি ২০০ রুপি
লাঞ্চ ১০০ রুপি
শিলিগুড়ি টু গ্যাংটক (২৫০০/৭)=৩৬০ রুপি
ডিনার ১৩০ রুপি
হোটেল (৯০০/৫)= ১৮০ রুপি

৩য় দিন

ব্রেকফাস্ট ৫০ রুপি
সাইট সিয়িং(২৫০০/৭)= ৩৬০ রুপি
টিকিট ৪০ রুপি
লাঞ্চ ১১০ রুপি
স্ট্রিট ফুড ৮০ রুপি
ডিনার ১৮০ রুপি
মোট: ৮২০ রুপি

North Sikkim

৪র্থ দিন এবং ৫ম দিন

প্যাকেজ(১১০০০/৬)= ১৮৬০ রুপি
ব্রেকফাস্ট ৫০ রুপি
ডিনার ১৩০ রুপি
সিনেমা ৭৫ রুপি
হাল্কা নাস্তা ১৩০ রুপি
হোটেল ১৮০ রুপি

৬ষ্ঠ দিন

গ্যাংটক টু শিলিগুড়ি(২৫০০/৭)= ৩৫০ রুপি
হোটেল (৫০০/৩)= ১৭০ রুপি
ডিনার ১০০ রুপি
লাঞ্চ ১২০ রুপি

৭ম দিন

নাস্তা ৩০ রুপি
অটো ভাড়া ২০ রুপি
লাঞ্চ ১১০ রুপি
ডিনার ২০০ রুপি
হোটেল ১৭০ রুপি

৮ম দিন

গাড়ি ভাড়া ১১০০ রুপি
লাঞ্চ ১০০ রুপি
স্পিড মানি ১০০ টাকা
ডিনার ৬০ টাকা

সর্বমোট

২০৯৫ টাকা
৭৫৮৮ রুপি * ১.১৭ টাকা=৮,৮৮৮টাকা === ১১,০০০ টাকা

নর্থ সিকিম

সতর্কতা

  • শিলিগুড়ি থেকে পুরো ট্যুরের কোনো প্যাকেজ নিবেন না। কারণ এখানের ম্যাক্সিমাম ট্যুর এজেন্সির কথার সাথে কাজের মিল থাকে না।
  • বেবি সাথে করে নিয়ে যেতে চাইলে অবশ্যই ওয়েদার সম্পর্কে জেনে বুঝে ট্যুরের প্ল্যান করবেন।
  • নর্থ সিকিম আর সাঙ্গু লেক যেতে চাইলে অবশ্যই একজন গাইড নিয়ে যেতে হয়। এক্ষেত্রে ট্যুর অপারেটরদের সাথে যোগাযোগ করে প্যাকেজ নিতে হয়। কোন ট্যুর অপারেটর ভালো সে সম্পর্কে অভিজ্ঞ কারো থেকে ভাল করে জেনে নিবেন।
  • প্যাকেজ নিলে প্যাকেজে কি কি থাকবে না থাকবে ভাল করে জেনে নিবেন। পারলে লিখিত নিয়ে নিবেন।
  • র‍্যাংপো তে FOREIGNER REGISTRATION OFFICE থেকে যাওয়া-আসার সময় অবশ্যই এন্ট্রি আর এক্সিট এর অফিসের খাতায় এন্ট্রি এবং পাসপোর্ট এ সিল মেরে নিবেন।
  • ড্রাইভারকে অবশ্যই আগে বলে নিবেন যেনো র‍্যাংপো তে ওয়েট করতে হবে। নয়তো ওখানে ওয়েট এর জন্য এক্সট্রা টাকা দাবি করতে পারে।
  • ময়লা-প্লাস্টিক যেখানে সেখানে ফেলা সিকিমে নিষিদ্ধ। প্রকাশ্যে ধুমপান ও নিষিদ্ধ। ওখানকার আইন মেনে চলবেন এবং স্থানীয় কারো সাথে তর্কে জড়াবেন না।
  • শপিং করার জন্য শিলিগুড়ি বেস্ট অপশন হবে গ্যাংটক এর চেয়ে। গ্যাংটক এর থেকে অনেক সাশ্রয়ী মূল্যে শপিং করতে পারবেন শিলিগুড়ি থেকে। (ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে বললাম)
এমন কোনো কিছু করবেন না যেনো আপনার জন্য আমাদের পুরো দেশের নাম খারাপ হয়। আপনি যেহেতু পুরো দেশকে রিপ্রেজেন্ট করবেন অবশ্যই আপনার ফ্রেন্ডলি আচরণ করা উচিত সবার সাথে। অর্গানিক সিকিম এর সৌন্দর্য আপনার দ্বারা যেনো সামান্য পরিমাণ নষ্ট না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখবেন। Keep Travelling 🙂
  • 134
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    134
    Shares

ঘুরতে যেয়ে পদচিহ্ন ছাড়া কিছু ফেলে আসবো না,
ছবি আর স্মৃতি ছাড়া কিছু নিয়ে আসবো না।।