সিপ্পি আরসুয়াং

সিপ্পি আরসুয়াং

বাংলাদেশের সর্বোচ্চ চূড়াগুলোর মধ্যে সিপ্পি আরসুয়াং (Sippi Arsuang) অন্যতম, যার উচ্চতা আনুমানিক ৩০৩৪ ফুট যা বাংলাদেশের ১০ম সর্বোচ্চ চূড়া। সিপ্পি আরসুয়াং পাহাড়ের অবস্থান বাংলাদেশের পার্বত্য চট্রগ্রামের বান্দরবান জেলার রোয়াংছড়ি উপজেলার অনেক গহীনে। রোয়াংছড়িতে অবস্থিত এই পাহাড়টি বিগিনারদের জন্য আদর্শট্রেক হতে পারে। সময়ও কম লাগে। মাত্র তিনদিনেই এই ট্রেক … বিস্তারিত

মুনলাই পাড়া, রুমা

বান্দরবান শহর থেকে মাত্র দুই-আড়াই ঘণ্টার যাত্রায় চলে যাওয়া যায় ৫৪ বম পরিবারের প্রশান্তময় পাহাড়ি গ্রাম মুনলাই (Munlai Para) পাড়াতে। চারিদিকে পাহাড় বেষ্টিত এবং সাঙ্গু নদী বিধৌত এই পাড়াটিতে উপভোগ করতে পারবেন স্ট্যান্ডার্ড কিন্তু ইকো সিস্টেমের হোম স্টে এবং পাহাড়ি … বিস্তারিত

নাইক্ষ্যংছড়ি উপবন পর্যটন লেক

নাইক্ষ্যংছড়ি উপবন পর্যটন লেক

প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আর বৈচিত্র্যের লীলাভূমি বান্দরবান। উঁচুনিচু পথ, পাহাড়ের শরীর জুড়ে ঘন সবুজের সমারোহ যেন একেঁবেঁকে চলে গেছে গভীর থেকে আরো গভীরে। বৈচিত্র্যময় পাহাড়ি জেলা বান্দরবন এর রূপের জাদুর যেন শেষ নেই। প্রকৃতি তার আপন খেয়ালে এখানে মেলে ধরেছে তার সৌন্দর্যের মায়াজাল। বান্দরবনের পাহাড়, ঝর্ণা, লেক সবকিছুতেই রয়েছে বর্ণিল সৌন্দর্যের ছোঁয়া। আর তেমনই এক … বিস্তারিত

ভেলাখুম, বান্দরবান

ভেলাখুম

ভেলাখুম (Velakhum) এর জল-পাথরের রাজত্বে ভেলা বাইতে বাইতে অপার্থিব এক অনুভূতির জন্ম হয়! দুই পাশে পাথরের সুউচ্চ দেয়াল আর মাঝখান দিয়ে শান্ত-স্বচ্ছ সবুজ পানির এই লেগুন নেমে এসেছে আমিয়াখুম থেকে। আমিয়াখুমের আপ স্ট্রিমের এই জল-গিরি পথ পাড়ি দেবার সময় বিশ্বাস করতে বাধ্য হবেন যে দু’পাশের আকাশছোঁয়া পাথরের পাহাড় দেবতার মতো … বিস্তারিত

তিনাম ঝর্ণা

তিনাম ঝর্ণা

তিনাম ঝর্ণা (Tinam Waterfall), বাংলাদেশের পার্বত্য জেলা বান্দরবানের আলীকদম উপজেলায় অবস্থিত অপরুপ একটি ঝর্ণা। প্রকৃতির আরেক বিস্ময় এই ঝর্ণা। সুউচ্চ পাহাড় থেকে খানিক দূরত্বে পাশাপাশি দুইটি ঝর্ণা ওবিরাম ধারায় ঝরে পড়ছে অবিরত। তিনাম ঝর্ণাটি দেখতে আলীকদম সদর থেকে মাতামুহুরী নদীপথে অন্তত ৬০/৭০ কিলোমিটার দূরে যেতে হয়। বর্ষায় এ ঝর্ণার … বিস্তারিত

পালং খিয়াং ঝর্ণা

পালং খিয়াং ঝর্ণা

পালং খিয়াং (Palong Khiyang) ঝর্ণাটি বান্দরবন জেলার আলীকদম উপজেলায় অবস্থিত। তবে দুর্গমতার কারণে খুব বেশী পর্যটক সেখানে পৌঁছাতে পারে নি। তৈনখালের পাথুরে রাস্তা দিয়ে, কখনো-বা উঁচু পাহাড় ডিঙ্গিয়ে পালং খিয়াং ঝর্ণায় যেতে হয়। তবে ঝর্ণায় যাওয়ার পথে তৈনখালের যে নৈসর্গিক রূপ তাও পর্যটকগণের নিকট আকষর্ণের কেন্দ্রবিন্দু। তৈনখালের বাঁকে বাঁকে … বিস্তারিত

দেবতাখুম

দেবতাখুম

নৈসর্গীক বান্দরবানকে বলা হয় খুমের স্বর্গরাজ্য আর এই রাজ্যের শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট নিঃসন্দেহে দেবতাখুম (Debotakhum) এর কাছেই যাবে। স্থানীয়দের মতে প্রায় ৫০-৭০ ফুট গভীর এই খুমের দৈর্ঘ্য ৬০০ ফুট যা ভেলাখুম থেকে অনেক বড় এবং অনেক বেশী বন্য। দেবতাখুম যেতে হলে আপনাকে প্রথমে … বিস্তারিত

সাইরু হিল রিসোর্ট

সাইরু হিল রিসোর্ট

সৌন্দর্যের দিক থেকে প্রথম সারিতে থাকা একটি অনিন্দ্য সুন্দর আর মনোরম রিসোর্ট – সাইরু হিল রিসোর্ট। বান্দরবান শহর হতে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এটি। সাইরু রিসোর্ট সম্ভবত বান্দরবানের সবচেয়ে এক্সপেন্সিভ রিসোর্ট। তবে অসম্ভব রকম সুন্দর একটা জায়গা সাইরু। এটি দেখে মনপ্রাণ জুড়োবে বেরসিক মানুষেরও। পাহাড়, নদী, আকাশ, মেঘ আর নান্দনিক ভঙ্গিমায় … বিস্তারিত

লামা, বান্দরবান

লামা

বান্দরবান জেলার লামা সবার কাছেই যেন একটা স্বর্গ রাজ্য। ১১টি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর বসবাস স্থল লামা যে কোন ভ্রমণ পিপাসু মানুষের মন কাঁড়বে। এখানে দেখে মুগ্ধ হবার মত আছে অনেক কিছুই। চকরিয়া থেকে লামা যাওয়ার রাস্তা হলো এর শুরুর আকর্ষন। লামার রাস্তায় প্রবেশ করার সাথে সাথে পেয়ে যাবেন স্বর্গে প্রবেশের মতো একটা আমেজ। এছাড়া আছে কোয়ান্টাম শিশু কানন যা … বিস্তারিত

প্রান্তিক লেক, বান্দরবান

প্রান্তিক লেক

প্রায় ২৫ একর জায়গা জুড়ে সৃষ্ট কৃত্রিম জলাশয় প্রান্তিক লেক। প্রান্তিক লেক এর আয়তন ২৫ একর হলেও পুরো কমপ্লেক্সটি আরো অনেক বড়। ৬৮ একর এলাকা জুড়ে পাহাড় বেষ্টিত ২৫ একরের বিশাল লেক যা বগা লেক এর থেকেও বড়। জেলার এক প্রান্তে অবস্থিত বলে এই লেকের … বিস্তারিত

মারায়ন ডং

মারায়ন ডং

বান্দরবানের আলিকদমে অবস্থিত মিরিঞ্জা রেঞ্জের একটি পাহাড় মারায়ন ডং তবে স্থানীয়রা মারায়ন তং নামেও ডেকে থাকে। উচ্চতা প্রায় ১৬৪০ ফিট। পাহাড়ের একেবারে চূড়ায় রয়েছে এক বৌদ্ধ উপাসনালয়। চারদিকে খোলা ও ওপরের দিকে চালা। এতে আছে বুদ্ধের এক বিশাল মূর্তি। দর্শনীয় স্থান হিসেবেও জায়গাটা চমৎকার। ওপরের অংশটুকু সমতল। এখান থেকে যত দূর দৃষ্টি যায় শুধু … বিস্তারিত

কংদুক বা যোগী হাফং, বান্দরবান

কংদুক বা যোগী হাফং

ঠিক বান্দরবান-মিয়ানমার বর্ডার এ কংদুক বা যোগী হাফং (Jogihafong) এর অবস্থান। পাহাড় প্রেমীদের কাছে যোগী হাফং পরিচিত একটি নাম। যোগী হাফং বা কংদুক ৪র্থ সর্ব্বোচ্চ পাহাড়। কংদুক বা যোগীহাফং এর উচ্চতা ৯৮৩ মিটার বা ৩২২২ ফুট। বাংলাদেশ-মায়ানমার সীমান্তে বেশ দুর্গম অঞ্চলে অবস্থিত মোদক রেঞ্জের অন্তর্ভুক্ত এই পাহাড়টি। বাংলাদেশের … বিস্তারিত