ফালুট

সান্দাকফু-ফালুট ট্রেকের সর্বশেষ গন্তব্য ফালুট (Phalut) যা সান্দাকফু থেকে ২৩ কিমি দূরে অবস্থিত। ফালুট টপের উচ্চতা ৩৬০০ মিটার বা ১১৭৯০ ফিট যা ভারতের পশ্চিমবঙ্গে দ্বিতীয়। হিমালয়ের অপরূপ শোভার জন্যই ফালুট এর খ্যাতি। মেঘ না থাকলে কাঞ্চনজঙ্ঘা আর এভারেস্ট দুই শৃঙ্গই এখান থেকে স্পষ্ট দেখা যায়। এখান থেকে সূর্যোদয় এবং সূর্যাস্তও বেশ মনোরম। ফালুট … বিস্তারিত

গুরদুম, দার্জিলিং

গুরদুম

গুরদুম (Gurdum) গ্রামটা সিঙ্গালিলা রেঞ্জের পাশেই যা সান্দাকফু-ফালুট ট্রেকের কারনে বেশ পরিচিত এবং জনপ্রিয়। সান্দাকফু থেকে নামার পথে গুরুদুম হয়ে অনেকে নেমে থাকেন। সান্দাকফু থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করে শ্রীখোলা যাবার পথে পড়বে এই নয়নাভিরাম গ্রাম। মেঘের মধ্যে ভাসতে ভাসতে মনে হবে যেন স্বপ্নের মধ্যে পৌঁছে গিয়েছেন কোনো অজানা … বিস্তারিত

সান্দাকফু থেকে মাকালু এভারেস্ট রেঞ্জ

সান্দাকফু ট্রেকের কিছু জরুরী ফোন নাম্বার

এখন অনেকেই সান্দাকফু যাচ্ছেন বা যাওয়ার প্ল্যান করছেন। তা ট্রেক করেই হোক বা গাড়ি করেই হোক। আর সান্দাকফু ট্যুরের শুরুতেই যে বাধাটার সম্মুখীন হতে হয় আমাদের সেটা হলো থাকার খোঁজ মেলা। থাকার জায়গার খোঁজ মিললেও মিলে না বুকিং নাম্বার, গাড়ীর খোঁজ নয়ত গাইডের খোঁজ। আর তাই আজ এই পোস্টে … বিস্তারিত

পায়ে হেঁটে সান্দাকফু

দার্জিলিং এবং সান্দাকফু ভ্রমণ

অনেকদিনের ই পরিকল্পনা ছিল সান্দাকফু ফালুট যাওয়ার। বন্ধুদের ভিসা আর পাসপোর্টের ঝামেলার জন্য কিছুটা দেরি হয়েছে। বাংলাবান্ধা রুটটি তুলনামূলক নতুন এবং শিলিগুড়ির কাছে হওয়ায় সেটাকেই আমরা বেছে নিয়েছিলাম। পোর্টে কিছু টাকা নিলেও দুই পাশের লোকজনই ভালো ব্যবহার করেছে। ভারতে প্রবেশ করে মজুমদার মানি এক্সচেঞ্জ থেকে টাকা নিয়ে ৩৫০ রুপিতে একটা … বিস্তারিত

স্নোফল, সান্দাকফু

সন্দাকফুতে প্রবল তুষারপাতের স্বাক্ষী

গত ১৮ ই ডিসেম্বর, ২০১৮ সন্দাকফুতে প্রবল তুষারপাতের স্বাক্ষী থাকার ভয়ংকর সুন্দর অভিজ্ঞতা সকলের সাথে ভাগ করে নেবার প্রয়াস এই লেখা। প্রথম দিন মানেভাঞ্জাং থেকে টংলু পৌঁছে যে নীল আকাশ ও হাত বাড়ালে ছোঁয়া যাবার মত কাঞ্চনজঙ্ঘা দেখলাম তাতেই মন ভরে গেল। সূর্যাস্ত বা সূর্যদয়ে হাজার রংয়ের খেলা, রাতে হাড় … বিস্তারিত

সান্দাকফু

সান্দাকফু – বাজেট ট্যুর প্ল্যান

প্রথমেই আমাদের ট্যুর এর রুটটা বলে নেইঃ ঢাকা – কোলকাতা – দার্জিলিং – সান্দাকফু – কোলকাতা – ঢাকা। সর্বমোট সময় = ৭ রাত ৬ দিন। তবে বিস্তারিত পড়ার আগে একটা জিনিস মাথায় রাখবেন – যারা অঢেল টাকা, সময় নিয়ে রিলাক্স ট্যুর করতে চান এই ট্যুর প্ল্যান তাদের জন্য নয়। আমরা ৫ বন্ধু-বড় ভাই মিলে … বিস্তারিত

শ্রীখোলা, রিম্বিক, দার্জিলিং

শ্রীখোলা

শ্রীখোলা (Srikhola) – দার্জিলিং এর একটি ছোট্ট গ্রাম যেখানে সচরাচর পর্যটকরা যান না৷ তবে যারা সান্দাকফু – ফালুট ট্রেকিং করতে যারা যান তারা শ্রীখোলার সৌন্দর্যে ক্ষণিকের জন্য হলেও থমকে যান৷ এখানে অতিথিদের স্বাগত জানায় শান্ত সুন্দর শ্রীখোলা নদী যার উপরে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে দু’শো বছরের ঝুলন্ত … বিস্তারিত

কাঞ্চনজঙ্ঘা

সান্দাকফু – ফালুট ট্যুর এর A টু Z

হঠাৎ প্ল্যান করা ট্যুর গুলো অনেক ইন্টারেস্টিং হয়। তাহলে শুরু করা যাক একটা ইন্টারেস্টিং ট্যুর এর গল্প 🙂 ২৮/৯/১৮ সন্ধ্যার হানিফ বাসে করে রওনা হলাম তেতুলিয়ার উদ্দেশ্যে। সকাল ৭ টার মধ্যে গাড়ি পৌঁছে যাবে তেতুলিয়া। রাস্তায় ১ বার ৩০ মিনিট এর বিরতি এবং একবার ১০ মিনিট এর বিরতি দিবে গাড়িটি। তেতুলিয়া … বিস্তারিত

যুক্ত করা হয়েছে

সান্দাকফু – ফালুট – গোরখে ♥

ভ্রমণের সময়কালঃ ০১.০৫.১৮ ~ ০৬.০৫.১৮ ৬ মাস হয়ে গেছে কোথাও ঘুরতে যাওয়া হয়নি। ঘুরতে যেতে কারই বা না ভালো লাগে? যদিও আমার মধ্যে বরাবর এই ব্যাপারটা একটু বেশি। তাই আর ভালো লাগছিল না একঘেয়ে কাজ আর অফিস নিয়ে। কয়েকজন বন্ধু আর ভাই মিলে … বিস্তারিত

সান্দাকফু এর পথে
যুক্ত করা হয়েছে

ঘুমন্ত বুদ্ধের কোলে, জয়িতার খোঁজেঃ সান্দাকফু-ফালুট – ৩ (মেঘের রোশনাই দেখার আরও একটি ধাপ)

আগের পর্বঃ ঘুমন্ত বুদ্ধের কোলে, জয়িতার খোঁজেঃ সান্দাকফু-ফালুট – ২ গতকাল দুপুর থেকে চলছি তো চলছিই। এক মুহূর্ত থামার অবকাশ এখন পর্যন্ত মেলেনি। মাঝে পেরিয়ে এসেছি দীর্ঘ পথ। উদ্দেশ্য সেই পাহাড় আর মেঘ ছুয়ে যাবার স্বপ্ন। এক নতুন অভিজ্ঞতার সাক্ষী হতে যাচ্ছি। দাঁড়িয়ে আছি … বিস্তারিত

সান্দাকফু
যুক্ত করা হয়েছে

ঘুমন্ত বুদ্ধের কোলে, জয়িতার খোঁজেঃ সান্দাকফু-ফালুট – ২ (স্বপ্ন, ভয় ও বিড়ম্বনা)

আগের পর্বঃ ঘুমন্ত বুদ্ধের কোলে, জয়িতার খোঁজেঃ সান্দাকফু-ফালুট – ১ মনের মাঝে তিলেতিলে গড়া ওঠা স্বপ্ন, মস্তিষ্কের প্রতিটি নিউরনে জমাট বাঁধা হিমালয়ের হাতছানি, প্রথমবার ইমিগ্রেশন পার হবার ভয় তাও একা একা। কখন আসবে সেই ক্ষন যখন ভোরের টাটকা আলো কাঞ্চনজঙ্ঘারর উপর … বিস্তারিত

সান্দাকফু
যুক্ত করা হয়েছে

ঘুমন্ত বুদ্ধের কোলে, জয়িতার খোঁজেঃ সান্দাকফু-ফালুট – ১ (স্বপ্ন বীজ বপন ও অঙ্কুরোদগম)

সমরেশ মজুমদারের ‘গর্ভধারীনি’ প্রথম পড়েছিলাম ২০১৩ তে। তখন শুধু দার্জিলিং নামটাই পরিচিত ছিল। তাও ভাসাভাসা। কিন্তু ঘুম, সান্দাকফু, ফালুট, চ্যাংথাপু এ আবার কি! ‘ঘুম’! এ কেমন নাম? এখানকার মানুষরা কি সারাদিন ঘুমিয়েই থাকে বলে এমন নাম। ফালুটই বা কেমন? ফেলুদার সাথে কোনভাবে সম্পর্কিত নাকি? সদ্য কলেজে ভর্তি হওয়া কিশোর মনে উৎসাহের কোন কমতি নেই। … বিস্তারিত