একদিনে রাতারগুল ও বিছনাকান্দি ভ্রমণ প্ল্যান

যুক্ত করা হয়েছে

আপনি যদি একদিনে রাতারগুল এবং বিছনাকান্দি ভ্রমন করতে চান, তাহলে আপনাকে মিনিমাম সকাল ৮ টার আগে শহর থেকে বের হতে হবে। যেমন – সকাল ৮ টায় শাহজালাল র. মাজার থেকে ২ মিনিট হেটে আম্বরখানা থেকে সিএনজি রিজার্ভ করে রওনা হবেন রাতারগুল এর উদ্দ্যেশ্যে। ৯.৩০ টার দিকে রাতারগুল পৌছাবেন ইনশাআল্লাহ। রাতারগুলে আপনি অবস্থান করবেন ১২ টা পর্যন্ত। এসময়ের মধ্যে আপনি নৌকা ভ্রমণ, বনের মধ্যে হাটাহাটি, জোঁক নিয়ে টানাটানি😃 ইত্যাদি শেষ করতে পারবেন ১২ টার মধ্যে।

১২ টার সময় রাতারগুল থেকে বিছনাকান্দির অভিমুখে রওয়ানা। বিছনাকান্দি পৌঁছাবেন দুপুর ১.৩০ থেকে সর্বোচ্চ ২ টা এর মধ্যে। বিছনাকান্দি অবস্থান করবেন বিকেল ৫ টা পর্যন্ত। এ সময়ের মধ্যে ছবি তোলা, গোসল করা, কমদামে ইন্ডিয়ান পন্য কেনা সবই করতে পারবেন ইনশাআল্লাহ।

বিকেল ৫ টার সময় সিলেট শহর ব্যাক করবেন। সিলেট শহরে পৌঁছাতে পারবেন সন্ধ্যা ৭টার এর দিকে। তারপর রিজেনেবল প্রাইসে পানসি অথবা পাচঁ ভাই রেস্টুরেন্ট এ জম্পেশ খাওয়া-দাওয়া, তারপর ঘুম………….।

ভাড়া

আপনি যদি শুধুই বিছনাকান্দি যেতে চান তাহলে সিএনজি রিজার্ভ সর্বোচ্চ ১৩০০ বা ১৪০০ টাকা। একটা সিএনজিতে পাঁচ জন যেতে পারেন। রাস্তা মেরামত চলছে এজন্য একটু কষ্ট হবে। সিলেট শহর থেকে লোকাল বিছনাকান্দি যায় জনপ্রতি ১৪০ টাকা। আর যদি রাতারগুল এবং বিছনাকান্দি একসাথে যেতে চান তাহলে পুরো দিন সিএনজি রিজার্ভ ১৮০০ টাকা থেকে সর্বোচ্ছ ২০০০ টাকা।

নৌকা ভাড়া

মূল বিছনাকান্দি পয়েন্ট এ যেতে ৩ টা নৌকা ঘাট আছে। এর মধ্যে ২টা ঘাটে ক্ষমতাসীনরা ভাড়া নির্ধারণ করে দিয়েছে! আশা করি বুঝতে পারছেন কেনো নির্ধারণ করে দিয়েছে!! টাকার লোভে 😞😞😞 কিন্তু আপনারা সিএনজি ওয়ালা কে বলবেন, মামা যে ঘাটে সরকার কর্তৃক ভাড়া নির্ধারণ হয়নি ওই ঘাটে আমাদের নিয়ে যান! সিএনজি ওয়ালা অবশ্য ঘাড় বাকা করে তাকাতে পারে, এরা এত কিছু কেমনে জানে? 😲

ঘাটে নিয়ে যাওয়ার পর আপনারা দামাদামি করবেন, ভাড়া নিবে ৭০০ থেকে সর্বোচ্চ ৯০০ টাকা। ছোট একটা নৌকায় ১০ জন যেতে পারবেন। আর সরকার কর্তৃক ভাড়া হচ্ছে ১৫০০ টাকা! এখানে যদি ৮০০/৯০০ টাকা সেইভ হয় তাহলে স্টুডেন্ট দের জন্য অনেক কিছু।

বিছনাকান্দি থেকে কেউ ইন্ডিয়ান পন্য কিনতে চাইলে দামাদামি করে কয়েক দোকান দেখে কিনবেন আশা করি।

আর একটা কথা শহরের অধিকাংশ রেস্তোরা, হোটেল কিন্তু স্থানীয়রা চালায় না! অনেক সময় তাদের খারাপ ব্যবহারের কারনে আমাদের মানে সিলেটের যারা স্থানীয় তাদের লজ্জায় পরতে হয়। 😰😰

ঘুরতে যেয়ে পদচিহ্ন ছাড়া কিছু ফেলে আসবো না,
ছবি আর স্মৃতি ছাড়া কিছু নিয়ে আসবো না।।