টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতাল, মুম্বাই

যুক্ত করা হয়েছে
ভালো লেগেছে
1
টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতাল, মুম্বাই

মুম্বাইয়ের টাটা মেমোরিয়াল হসপিটালে যারা নতুন ডাক্তার দেখাতে যান, তাদের জন্য তো বটেই, এমনকি যারা পুরনো রোগী তাদেরও কাজে লাগবে এমন কিছু তথ্য এখানে রুলে ধরা হলো।

ব্যাকআপ ফাইল

সবসময় চেষ্টা করবেন রোগীর পুরো ফাইলের ফটোকপি করিয়ে একটি ব্যাকআপ রাখার যাতে কখনও ফাইল হারিয়ে গেলেও সমস্যা না হয়। যখনই ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন পাবেন, সেটা ফটোকপি করে ব্যাকআপ হিসেবে ভিন্ন একটা ফাইলে রেখে দিবেন।

হসপিটালে যদি ভর্তি হতে হয়

  • কেমো বা অন্য কোনো কারণে রোগীকে হসপিটালে এডমিট করতে হলে প্রাইভেট ক্যাটাগরি ও বিদেশি রোগীদেরকে ডেপোজিট হিসেবে দুই লাখ রুপি জমা দিতে হয়। তবে এক লাখ রুপি বা তার কিছু বেশি রাখলেও এডমিট করানো যায়। সেক্ষেত্রে হোমিবাবা ব্লকের প্রথম তলায় মেডিকেল সুপারিন্টেন্ডেন্ট বরাবর একটি আবেদনপত্র জমা দিয়ে তাতে সুপারের সম্মতিসূচক স্বাক্ষর নিতে হয়।
  • রোগীকে হসপিটালে এডমিট করতে হলে প্রাইভেট ক্যাটাগরি ও বিদেশি রোগীদেরকে অবশ্যই সিকিউরিটি চেকিংয়ে যেতে হবে। সিকিউরিটি অফিসটি মেইন বিল্ডিংয়ের নিচ তলায়। আপনাকে মূল পাসপোর্টসহ রোগী ও অ্যাটেনডেন্টের পাসপোর্টের তিন কপি ফটোকপি নিয়ে সেখানে যেতে হবে।
  • হোমিবাবা ব্লকের প্রথম তলায় এডমিশন অফিসে রোগীকে হসপিটালে এডমিট করানোর প্রাথমিক কাজ শেষ হলে অবশ্যই গেট পাস চেয়ে নেবেন। নইলে রাতে বা ছুটির দিনে অ্যাটেনডেন্টদের সমস্যায় পড়তে হবে হসপিটালে ঢুকতে গিয়ে।

প্রয়োজনীয় কিছু তথ্য

  • ব্লাড ক্যান্সারের রোগীদের প্রায়ই আইটি এমটিএক্স (পিঠের ইনজেকশন) দিতে হয়। এজন্য আপনাকে যেতে হবে গোল্ডেন জুবিলি বিল্ডিংয়ের তৃতীয় তলার মাইনর অপারেশন থিয়েটার কক্ষে। সেখানে গিয়ে ঠিক বেলা একটায় ফাইল জমা দিয়ে অপেক্ষা করতে হবে। সাধারণত আইটি এমটিএক্স (পিঠের ইনজেকশন) দেওয়া হয় বেলা তিনটা থেকে।
  • কখনো যদি ব্লাড কালচার পরীক্ষার জন্য রক্তের বোতল জমা দেওয়ার প্রয়োজন পড়ে, সেটা জমা দেবেন মেইন বিল্ডিংয়ের লাগোয়া এনেক্স বিল্ডিংয়ের ষষ্ঠ তলায় মাইক্রোবায়োলজি বিভাগে।

প্রাইভেট রোগীদের রক্তদানের পদ্ধতি

ডাক্তারের নির্দেশনা অনুসারে মেমো তৈরি করে নিতে হবে। বিকেল ৫টার পর বা সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ক্যাজুয়ালিটির (কক্ষ#৭৭) রিসিপশন থেকে বারকোডসহ মেমো সংগ্রহ করতে হবে। আগে হোমিবাবা সার্ভিস ব্লকের ষষ্ঠ তলার ব্লাড ব্যাংক থেকে একসেপটেন্স স্বাক্ষর সংগ্রহ করার নিয়ম ছিল। এখন আর ওই নিয়ম নেই। ফলে সরাসরিই হোমিবাবা গোলচত্বরের ব্লাড কালেকশন সেন্টার থেকে ব্লাড স্যাম্পলের বোতল সংগ্রহ করে নিতে হবে। বিকেল ৫টার পর বা সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ক্যাজুৃয়ালিটির পাশের ইমার্জেন্সি ল্যাব রুম থেকে স্যাম্পল নিতে হবে। পরের কাজ সোজা। হোমিবাবা ব্লকের তৃতীয় তলার ব্লাড ব্যাংকে মেমোসহ রক্তের স্যাম্পলটি জমা দিতে হবে। এরপর সিরিয়াল প্রাপ্তির সুবিধার্থে হোমিবাবা ব্লকের পঞ্চম তলায় ডে কেয়ার সেন্টারে আগেভাগে ফাইল জমা দেওয়াই ভালো।

বোনম্যারো পরীক্ষা

নতুন বা পুরনো রোগীদের যদি বোনম্যারো পরীক্ষার প্রয়োজন পড়ে, তাহলে প্রথমেই রোগীর ফাইল নিয়ে গোল্ডেন জুবিলির ৩ তলার কাউন্টারে গিয়ে বুকিং দিতে হবে। এরপর মেইন বিল্ডিংয়ের নিচতলার কোনো একটি কাউন্টারে গিয়ে বানাতে হবে মেমো। যদি ‌’সাইটোজেনেটিকস’ টেস্ট থাকে, তাহলে এনেক্স বিল্ডিংয়ের ৭ তলায় “সাইটোজেনেটিকস” বিভাগে গিয়ে অপর একটি মেমো বানাতে হবে।

দেশে ফেরার আগে কিছু জিনিস ক্রসচেক করে নিবেন

চিকিৎসা শেষে দেশে ফেরার আগে নিচের কাজগুলোর দিকে লক্ষ্য রাখুন –

  • ডাক্তারের কাছ থেকে পরবর্তী নির্দেশনা সংগ্রহ।
  • পরবর্তী অ্যাপয়নমেন্টের জন্য চিঠি সংগ্রহ (ভারতীয় মেডিকেল ভিসা প্রাপ্তির জন্যও এটা জরুরি)।
  • রোগের ইতিহাস সংক্রান্ত চিঠি সংগ্রহ।
  • ডায়াটিশিয়ানের জন্য যোগাযোগ করে পরবর্তী নির্দেশনা সংগ্রহ।

মুম্বাইয়ে আসার পর কাজে লাগে, এমন তিনটি গুরুত্বপূর্ণ আবেদনপত্রের নমুনা (ডাউনলোড লিংকসহ)

টাটা ক্যান্সার হাসপাতাল, মুম্বাই এ ভর্তি করতে হলে প্রাইভেট ক্যাটাগরি ও বিদেশি রোগীদেরকে ডেপোজিট হিসেবে দুই লাখ রুপি জমা দিতে হয়। তবে এক লাখ রুপি বা তার কিছু বেশি রাখলেও এডমিট করানো যায়। সেক্ষেত্রে মেডিকেল সুপারিন্টেন্ডেন্ট বরাবর একটি আবেদনপত্র জমা দিয়ে তাতে সুপারের সম্মতিসূচক স্বাক্ষর নিতে হয়। এরকম আবেদনপত্রের নমুনা ডাউনলোড করে রাখতে পারেন। মনে রাখবেন, চিঠিতে লাল রঙে চিহ্নিত জায়গাগুলো আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে পূরণ করে নিতে হবে।

মুম্বাইয়ে চিকিৎসা করাতে এসে অনেকেরই ভিসা এক্সটেনশন করানোর প্রয়োজন পড়ে। সেক্ষেত্রে মুম্বাই সিআইডি অফিসে গিয়ে শুরুতেই একটি আবেদনপত্র জমা দিতে হয়। এরকম আবেদনপত্রের নমুনা ডাউনলোড করে রাখতে পারেন।

মুম্বাইয়ে এসে কারো যদি ছয় মাসের বেশি থাকার প্রয়োজন পড়ে বা ভিসা এক্সটেনশনের প্রয়োজন পড়ে, তাহলে মুম্বাইয়ে আসার ১৪ দিনের মধ্যে মুম্বাই সিআইডি অফিসে গিয়ে রেজিস্ট্রেশন করা বাধ্যতামূলক। ভুলক্রমে কেউ যদি রেজিস্ট্রেশন না করেন, তাহলে জনপ্রতি ৩০ ডলার জরিমানা দিতে হয়। এই জরিমানা দেওয়ার জন্যও একটি আবেদনপত্র জমা দিতে হয়। এরকম আবেদনপত্রের নমুনা ডাউনলোড করে রাখতে পারেন।

কি ধরনের ভিসা নেবেন

মুম্বাই এর টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতালে ডাক্তার দেখাতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই মেডিকেল ভিসা নিয়ে যেতে হবে। টাটা মেমোরিয়াল ক্যান্সার হাসপাতালে টুরিস্ট ভিসায় চিকিৎসা করানো যায় না।

কিভাবে যাবেন

মুম্বাই আপনি বেশ কয়েকটি উপায়ে যেতে পারেন। ঢাকা থেকে সরাসরি ফ্লাইটে মুম্বাই যেতে পারেন অথবা ঢাকা – কলকাতা হয়ে কলকাতা – মুম্বাই প্লেনে বা ট্রেনে করে যেতে পারেন। সরাসরি ঢাকা – মুম্বাই প্লেনে গেলে খরচ অনেক বেশী পড়বে। সে তুলনায় ভেঙ্গে ভেঙ্গে গেলে খরচ কম। বিশেষ করে ভারতের আভ্যন্তরীন প্লেনের খরচ খুবই কম। আবার ট্রেনে সময় বেশী লাগলেও খরচ তুলনামূলক বেশ কম। এছাড়া টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতালের রোগী এ মর্মে প্রমানপত্র থাকলে ট্রেনে ৭৫% ডিসকাউন্ট পাওয়া যায়।

কোথায় থাকবেন

মুম্বাইতে পৌঁছানোর পর আপনাকে সবচেয়ে বড় যে সমস্যা মোকাবিলা করতে হবে তা হলো থাকা-খাওয়ার সমস্যা। কেননা মুম্বাইতে সব হোটেলে বাংলাদেশীদের থাকতে দেওয়া হয় না! তাই আপনার পকেটে অনেক টাকা থাকলেও আপনি থাকার জন্য তেমন ভাল সুযোগ-সুবিধা পাবেন না। তবে টাটা মেমোরিয়াল হাসপাতালের সবচেয়ে কাছে যেসব হোটেলে বাংলাদেশীদের থাকার ব্যবস্থা রয়েছে তাদের মধ্যে আছে – হোটেল শান্তিদূত এবং কে.জি.এন নামক প্রতিষ্ঠান, এ দুটোই প্যারেলে অবস্থিত।

ঘুরতে যেয়ে পদচিহ্ন ছাড়া কিছু ফেলে আসবো না,
ছবি আর স্মৃতি ছাড়া কিছু নিয়ে আসবো না।।

  • 53
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    53
    Shares