ইলম

ভালো লেগেছে
2

হিমাল কন্যা নেপাল এর এক বিস্ময়কর চা রাজ্য – ইলম। এখান থেকে ভারতের দার্জিলিং খুব বেশী দূরে নয়। ইলম হলো ভারত-নেপাল বর্ডারের সীমান্ত জেলা। গোটা জেলাটাই যেন জাপানি ফেরস্কো! প্রতিটা বাড়ি সাজানো। একচিলতে বারান্দায় কিছু না হলেও গাদা ফুলের গাছ। তবে টব নয়। প্লাস্টিকের বালতিতে। সহজেই সরানো যায়।

শিলিগুড়ি থেকে পূর্ব নেপালে বেড়াতে যাওয়া কোনও সমস্যাই নয়৷ ভারত নেপাল সীমান্ত থেকে ঝাপা, ইলম কিংবা ধারানের পর্যটন কেন্দ্রগুলি কয়েক ঘণ্টার পথ৷ যাঁরা দার্জিলিং, সিকিম বেড়াতে আসেন, তাঁরা অনায়াসেই ওই এলাকাগুলি ঘুরে আসতে পারেন৷

ইলম জেলার কন্যম (Kanyam) নেপালের একমাত্র চা শিল্প এলাকা।

কিভাবে যাবেন

মিরিক হয়ে যেতে পারেন। বর্ডারের সামনেই সারি সারি গাড়ি। দুশো টাকা দিলেই পশুপতি মার্কেট। হরেক রকমের জিনিসের দেখা মেলে এখানে। সবই অবশ্য শিলিগুড়ি মার্কেট থেকে আমদানি করা তবে দাম শুনলে ভয় লাগবে।

বাংলাদেশিদের জন্যে যাওয়ার উপায়

বাংলাদেশ থেকে যারা যাবেন, তাদের ভারতের ট্রানজিট ভিসা নিতে হবে নেপাল বাই রোডে ঢুকতে চাইলে। প্রথমেই শিলিগুড়ি থেকে কাঁকড়ভিটার উদ্দেশ্যে রওনা করুন। এই কাঁকড়ভিটা হলো ভারত নেপাল সীমানাবর্তী এলাকা। কাঁকড়ভিটা পৌঁছে সেখান থেকে নেপালে ঢোকার সকল ফরমালিটিস শেষ করে শেয়ার গাড়িতে চলে যান বিরথা মোড় বাস স্ট্যান্ড। সেখান থেকে আমরা ইলাম যাবার শেয়ার গাড়ি পাবেন। ইলাম হচ্ছে নেপালের ইলাম জেলার সদর শহর। দীর্ঘ ৫ ঘন্টা যাত্রা করার পর ইলাম শহরে পৌঁছানো যাবে।

কোথায় থাকবেন

ইলমে সদরে থাকার জন্যে ৭০০-১০০০ রুপীতে বেশ ভালো মানের হোটেল পেয়ে যাবেন। এছাড়াও চা বাগানের দিকে থাকতে চাইলে থাকতে হবে বাঁশ আর কাদা মাটির প্রলেপ দিয়ে বানানো কটেজে। একটু বৃষ্টি পেয়ে গেলে তো সোনায় সোহাগা।

×

করোনা (COVID-19) ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে যা করনীয়ঃ

  • সবসময় হাত পরিষ্কার রাখুন। সাবান দিয়ে অন্তত পক্ষে ২০ সেকেন্ড যাবত হাত ধুতে হবে।
  • সাবান না থাকলে হেক্সিসল ব্যবহার করুন। হেক্সিসল না থাকলে হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন, যতটুকু সম্ভব ভীড় এড়িয়ে চলুন।
  • বাজারে কিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন, করলে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • টাকা গোনা ও লেনদেনের পর হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ওভার ব্রিজ ও সিড়ির রেলিং ধরে ওঠা থেকে বিরত থাকুন।
  • পাবলিক প্লেসে দরজার হাতল, পানির কল স্পর্শ করতে টিস্যু ব্যবহার করুন।
  • হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।
  • নাক, মুখ ও চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন।
  • হাঁচি কাশির সময় কনুই ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়ে থাকেন তবে মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক নয় তবে আক্রান্ত হলে সংক্রমণ না ছড়াতে নিজে মাস্ক ব্যবহার করুন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকুন। Stay Home, Stay Safe.

দিক নির্দেশনা

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।