বঙ্গবন্ধু ক্যান্টমেন্ট এ ক’দিন

যুক্ত করা হয়েছে
ভালো লেগেছে
0

ক্লান্তিহীন কর্মজীবনের ধকল আর কোরবানির ঝক্কি শেষে বেড়িয়ে এলাম যমুনার তীর ঘেষা বঙ্গবন্ধু ক্যান্টনমেন্টে থেকে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা আত্মীয় হবার সুবাদে রেস্ট হাউস বুকিং এ বেগ পেতে হয়নি একদম। শ্রাবণ মুখর দিনে যাত্রা শুরু করেছিলাম মতিঝিল থেকে আনুমনিক সকাল দশটার দিকে। পুরো পরিবার মিলিয়ে আমরা ছিলাম দশজন। রাস্তায় যানজটের কবলে না পড়ায় বেলা দুটো বাজার আগেই পৌঁছে গিয়েছিলাম। রুমে ঢুকে পশ্চিম পাশের জানালা দিয়ে চোখে পড়ল যমুনা সেতু আর নদীর তীর ঘেষে সবুজের সমারোহ।

বঙ্গবন্ধু ক্যান্টমেন্ট

ফ্রেশ হয়ে দুপুরের খাবার খেয়ে নিই সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে পরিচালিত ডাইনিং হল থেকে। তারপর এগার তলার ছাদে গিয়ে দেখি যমুনার অপার সৌন্দর্য অপেক্ষা করে ছিল আমাদের জন্য। পাশেই ট্রেন লাইন। কিছুক্ষণ পরপর কু ঝিক ঝিক করে ট্রেন যাচ্ছে। মেঘলা দিন শেষে সূয্যিমামার দেখা মিলল খানিকটা। গোধুলির শেষ ছটাটুকু দিয়েই তিনি যেন ডুব দিলেন মেঘবালিকার বুকে। অতঃপর পুবাকাশে চন্দ্রমামার আগমন। সেও যেন কেমন ম্লান। সন্ধ্যা না নামতেই শোনা গেল দূর মধুপুর বন থেকে শেয়ালের হুক্কাহুয়া। প্রকৃতির নিবিড় সানিড়বধ্যে দেখতে দেখতে তিনটি দিন কিভাবে কেটে গেল টেরই পাইনি।

বঙ্গবন্ধু ক্যান্টমেন্ট
×

করোনা (COVID-19) ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে যা করনীয়ঃ

  • সবসময় হাত পরিষ্কার রাখুন। সাবান দিয়ে অন্তত পক্ষে ২০ সেকেন্ড যাবত হাত ধুতে হবে।
  • সাবান না থাকলে হেক্সিসল ব্যবহার করুন। হেক্সিসল না থাকলে হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন, যতটুকু সম্ভব ভীড় এড়িয়ে চলুন।
  • বাজারে কিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন, করলে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • টাকা গোনা ও লেনদেনের পর হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ওভার ব্রিজ ও সিড়ির রেলিং ধরে ওঠা থেকে বিরত থাকুন।
  • পাবলিক প্লেসে দরজার হাতল, পানির কল স্পর্শ করতে টিস্যু ব্যবহার করুন।
  • হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।
  • নাক, মুখ ও চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন।
  • হাঁচি কাশির সময় কনুই ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়ে থাকেন তবে মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক নয় তবে আক্রান্ত হলে সংক্রমণ না ছড়াতে নিজে মাস্ক ব্যবহার করুন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকুন। Stay Home, Stay Safe.