সিঙ্গাপুরের ভিসা প্রসেসিং প্রক্রিয়া

যুক্ত করা হয়েছে
ভালো লেগেছে
0

ঢাকাস্থ সিঙ্গাপুর কনস্যুলেট অফিস থেকে সিঙ্গাপুরের ভিসা ইস্যু করা হলেও সেখানে সরাসরি ভিসা আবেদন গ্রহণ করা হয় না, ঢাকার কিছু অনুমোদিত ভিসা এজেন্টের কাছে ভিসা আবেদন জমা দিতে হয়। ডিপ্লোম্যাটিক এবং অফিসিয়াল পাসপোর্টধারীদের সিঙ্গাপুর যেতে ভিসা লাগে না।

ভিসা ফি

ভিসা ফি হিসেবে ৩০ সিঙ্গাপুর ডলারের সমপরিমাণ টাকা জমা দিতে হয়। এছাড়া ভিসা এজেন্টের সার্ভিস চার্জও জমা দিতে হয়।

প্রয়োজনীয় সময়

সাধারণত পাঁচ কর্মদিবসের মধ্য ভিসা প্রক্রিয়াকরণ হয়ে যায় (জমা দেয়ার দিন বাদে)।

ভিসা আবদনের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

  • সিঙ্গাপুরে পৌঁছানোর দিন থেকে শুরু করে অন্তত ছয় মাস পর্যন্ত পাসপোর্টের মেয়াদ থাকতে হবে।
  • পাসপোর্টে কমপক্ষে একটি ফাঁকা পৃষ্ঠা থাকতে হবে।
  • এক সেট ১৪এ (14A) ফর্ম সঠিক ভাবে পূরণ করতে হবে। ১৪এ (14A) ফর্মটি ডাউনলোড করতে এই লিংকে ক্লিক করুন – ১৪এ (14A) ফর্ম
    লেটার অফ ইন্ট্রোডাকশন (Letter of Introduction):
    ১) সাধারণ ভ্রমণকারীদের ক্ষেত্রে কমপক্ষে ২১ বয়সের বেশি সিঙ্গাপুরের স্থায়ী নাগরিক দ্বারা ‘লেটার অফ ইন্ট্রোডাকশন’ ফর্মটি ইস্যুকৃত হতে হবে।
    ২) ব্যবসায়িক ভ্রমণকারীদের সিঙ্গাপুরে রেজিস্টারকৃত কোম্পানি অথবা সংস্থার স্থানীয় যোগাযোগের ঠিকানা এবং কমপক্ষে ২১ বয়সের বেশি সিঙ্গাপুরের স্থায়ী নাগরিক দ্বারা ‘লেটার অফ ইন্ট্রোডাকশন’ ফর্মটি ইস্যুকৃত হতে হবে।

আবেদনকারীর ছবি

– তিন মাসের মধ্যে তোলা ২ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি।
– ছবি অবশ্যই রঙ্গিন হতে হবে এবং ছবির ব্যাকগ্রাউন্ড সাদা হতে হবে।
– ছবিতে আবেদনকারীর সম্পূর্ণ মুখ স্পষ্ট বোঝা যেতে হবে।
– ছবি ২৫মি.মি.×৩৫মি.মি. সাইজের হতে হবে।

পাসপোর্টে ব্যক্তিগত তথ্যের পেজটির একটি ফটোকপি আবেদনপত্রের সাথে জমা দিতে হবে। আরও বিস্তারিত তথ্যের জন্য এই লিংকে ভিজিট করতে পারেন- www.ica.gov.sg

×

করোনা (COVID-19) ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে যা করনীয়ঃ

  • সবসময় হাত পরিষ্কার রাখুন। সাবান দিয়ে অন্তত পক্ষে ২০ সেকেন্ড যাবত হাত ধুতে হবে।
  • সাবান না থাকলে হেক্সিসল ব্যবহার করুন। হেক্সিসল না থাকলে হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন, যতটুকু সম্ভব ভীড় এড়িয়ে চলুন।
  • বাজারে কিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন, করলে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • টাকা গোনা ও লেনদেনের পর হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ওভার ব্রিজ ও সিড়ির রেলিং ধরে ওঠা থেকে বিরত থাকুন।
  • পাবলিক প্লেসে দরজার হাতল, পানির কল স্পর্শ করতে টিস্যু ব্যবহার করুন।
  • হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।
  • নাক, মুখ ও চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন।
  • হাঁচি কাশির সময় কনুই ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়ে থাকেন তবে মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক নয় তবে আক্রান্ত হলে সংক্রমণ না ছড়াতে নিজে মাস্ক ব্যবহার করুন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকুন। Stay Home, Stay Safe.