ইটানগর

ভালো লেগেছে
0

অরুণাচল প্রদেশের রাজধানী ইটানগর (Itanagar) যা ভালুকপং থেকে ১৫০কিমি দূরে। নতুন আর পুরনো দুই শহর নিয়ে গড়ে উঠেছে ইটানগর। পুরনো শহর নাহারলাগুন (Naharlagun) ছবির মত সুন্দর। ছোট্ট এই শহরে রয়েছে দোকানপাট, বাজারহাট সবকিছুই। মূল ইটানগরের কাছেই রয়েছে এগারো শতকের ইটা দুর্গ এর ধ্বংসাবশেষ। ইটানগরে গেলে অব্যশই দেখতে হবে জওহর মিউজিয়াম। বিভিন্ন প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন ছাড়াও অরুণাচলের নানা উপজাতির সমাজ ও সংস্কৃতি বুঝতে পারবেন এখানে গেলে। সোম ছাড়া সপ্তাহের সবদিনই সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকে মিউজিয়াম। লোকাল সাইট সিয়িং এ দেখে নেওয়া যায় প্রাচীন বৌদ্ধ মন্দির, পোলো পার্ক, বোটানিকাল গার্ডেন ও চিড়িয়াখানা। ৬কিমি দূরে রয়েছে পিকচার পোস্টকার্ডের মতো গঙ্গা লেক।

কিভাবে যাবেন

তেজপুর বা ভালুকপং থেকে বাসে বা গাড়িতে ইটানগর যাওয়া যায়। বান্দরদেওয়া চেকপোস্টে পথটি দুই ভাগ হয়েছে। বাঁদিকের পথ ধরে ২০কিমি এগোলে নাহারলাগুন। ইটানগর আরও ১০কিমি দূরে।

এছাড়া জিরো থেকে ইটানগর যেতে প্রায় ছয় ঘন্টা লাগে। জিরো থেকে পতিন পর্যন্ত রাস্তা খারাপ হলেও তারপরের রাস্তা খুবই সুন্দর। একটার পর একটা পাহাড় অতিক্রম করে যাওয়ার অভিজ্ঞতা মনে রাখার মতো।

কেউ বিমানে যেতে চাইলে গৌহাটি থেকে পাসিঘাট পর্যন্ত যেতে পারবেন। মঙ্গলবার, বৃহস্পতিবার ও শনিবার ছাড়া সপ্তাহের বাকি দিনগুলো গুয়াহাটি-পাসিঘাট রুটে বিমান চালায় এয়ার ইন্ডিয়া।

কোথায় থাকবেন

ইটানগরে বেশ কয়েকটি বেসরকারি হোটেল আছে।

চিন-তিব্বত সীমান্তে অবস্থানের জন্য অরুণাচল প্রবেশে ইনারলাইন পারমিট লাগে। পশ্চিম, মধ্য ও পূর্ব অরুণাচলের জন্য আলাদা আলাদা পারমিট করতে হবে।

×

করোনা (COVID-19) ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে যা করনীয়ঃ

  • সবসময় হাত পরিষ্কার রাখুন। সাবান দিয়ে অন্তত পক্ষে ২০ সেকেন্ড যাবত হাত ধুতে হবে।
  • সাবান না থাকলে হেক্সিসল ব্যবহার করুন। হেক্সিসল না থাকলে হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন, যতটুকু সম্ভব ভীড় এড়িয়ে চলুন।
  • বাজারে কিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন, করলে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • টাকা গোনা ও লেনদেনের পর হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ওভার ব্রিজ ও সিড়ির রেলিং ধরে ওঠা থেকে বিরত থাকুন।
  • পাবলিক প্লেসে দরজার হাতল, পানির কল স্পর্শ করতে টিস্যু ব্যবহার করুন।
  • হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।
  • নাক, মুখ ও চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন।
  • হাঁচি কাশির সময় কনুই ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়ে থাকেন তবে মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক নয় তবে আক্রান্ত হলে সংক্রমণ না ছড়াতে নিজে মাস্ক ব্যবহার করুন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকুন। Stay Home, Stay Safe.

দিক নির্দেশনা

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।