জব্বারের বলি খেলা

ইভেন্টের তারিখঃ শনিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২০
লালদীঘি ময়দান, চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামের লালদীঘি মাঠে ঐতিহ্যবাহী জব্বারের বলি খেলা এর ১০৮তম আসর বসবে মঙ্গলবার (২৫ এপ্রিল)। প্রতিবছর বৈশাখের ১২ তারিখে এ বলি খেলার আয়োজন করা হয়। বিকেল সাড়ে ৩টায় লালদীঘি মাঠে শুরু হবে এ বলি খেলা। চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় কুস্তি বলি খেলা নামে পরিচিত। গতবছর ২০০ জন বলি প্রতিযোগীতায় অংশ নিতে নাম লিখিয়েছেন। বলিখেলায় অংশ নিতে কক্সবাজারের টেকনাফ, রামু, চকরিয়া ও চট্টগ্রামের বাঁশখালী, পটিয়া, সাতকানিয়া এবং পার্বত্য অঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বলীরা লালদীঘি পাড়ে ছুটে যায়।

ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে বাংলা ১৩১৬ সালের ১২ বৈশাখ (ইংরেজি ১৯০৯ সালের ২৫ এপ্রিল) বলি খেলা বা মল্লযুদ্ধ দিয়ে সূচিত হয় এ বলি খেলা ও বৈশাখী মেলা। চট্টগ্রামের বদরপাতি এলাকার সওদাগর (ব্যবসায়ী) আবদুল জব্বার এটি শুরু করেছিলেন বলে মৃত্যুর পর তার নামেই উৎসবের নামকরণ হয় ‘জব্বারের বলি খেলা ও বৈশাখী মেলা’।

কিভাবে যাবেন

ঢাকার যেকোনো বাস কাউন্টার থেকে চট্টগ্রামগামী বাসে উঠবেন। পথে যানজট না থাকলে ৫/৬ ঘণ্টার মধ্যেই পৌঁছে যাবেন চট্টগ্রাম। ঢাকার ফকিরাপুল, সায়দাবাদ থেকে সোহাগ পরিবহন, গ্রীন লাইন পরিবহন, সৌদিয়া পরিবহন, হানিফ এন্টারপ্রাইজ, টি আর ট্রাভেলসের এসি বাস যায় চট্টগ্রাম। ভাড়া ১ হাজার থেকে ১ হাজার ২শ’ টাকা। এছাড়া শ্যামলী, হানিফ, সৌদিয়া, ইউনিক, এস আলম ইত্যাদি পরিবহনের নন এসি বাসও চলে এ পথে। ভাড়া ৪৮০ টাকা।

অথবা আপনি ট্রেনে কিংবা বাই এয়ার চিটাগং / চট্টগ্রাম যেতে পারেন।

চিটাগং নেমে বাস বা অটোরিক্সা করে লালদীঘির ময়দানে যেতে পারবেন।

×

করোনা (COVID-19) ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে যা করনীয়ঃ

  • সবসময় হাত পরিষ্কার রাখুন। সাবান দিয়ে অন্তত পক্ষে ২০ সেকেন্ড যাবত হাত ধুতে হবে।
  • সাবান না থাকলে হেক্সিসল ব্যবহার করুন। হেক্সিসল না থাকলে হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন, যতটুকু সম্ভব ভীড় এড়িয়ে চলুন।
  • বাজারে কিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন, করলে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • টাকা গোনা ও লেনদেনের পর হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ওভার ব্রিজ ও সিড়ির রেলিং ধরে ওঠা থেকে বিরত থাকুন।
  • পাবলিক প্লেসে দরজার হাতল, পানির কল স্পর্শ করতে টিস্যু ব্যবহার করুন।
  • হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।
  • নাক, মুখ ও চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন।
  • হাঁচি কাশির সময় কনুই ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়ে থাকেন তবে মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক নয় তবে আক্রান্ত হলে সংক্রমণ না ছড়াতে নিজে মাস্ক ব্যবহার করুন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকুন। Stay Home, Stay Safe.

দিক নির্দেশনা