উবুদ

ভালো লেগেছে
1

উবুদ (Ubud) ইন্দোনেশিয়ার বালির একটি গ্রামের নাম। গত কয়েক বছরে উবুদ এতটাই জনপ্রিয় হয়েছে যে গ্রামের আমেজ একটু কমে গেছে। উবুদে প্রচুর ইউরোপিয়ানরা আসেন। মাসের পর মাস থেকে যায়। উবুদে প্রচুর মন্দির, রাইস ট্যারেস এবং ঝর্ণা আছে। ঊবুদের কিছু কিছু মন্দির এর ব্যাপারে বালিনিজরা বিশ্বাস করে যে এই মন্দির গুলোতে গোসল করলে তাদের পাপ মোচন হয়।

উবুদ রাইস ট্যারেস বলতে মূলত চিরসবুজ এই জায়গায় সিঁড়ির মতো করে কাটা জমিতে চাষ করা হয় ধান। উবুদকে বলা হয় ইন্দোনেশিয়ার সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। প্রতিবছর প্রতিদিন এখানে সঙ্গীত আর নৃত্যের দামামা লেগেই থাকে। আরো আছে মাটির তৈরি নানা জিনিসের দোকান আর চিত্রকর্মের গ্যালারি। উবুদে হেঁটে অথবা সাইকেলে চড়ে লোকালয় থেকে দূরে চলে আসা যায় অনায়াসেই।

তেগুঙ্গুয়ান ওয়াটারফল

Tegenungan Waterfall এ ঢোকার টিকেট ২০ হাজার রুপিয়া। মানে ১২০ টাকার মতো। পাহাড় বেয়ে নেমে ওয়াটারফলসে যেতে হয়। বালির ঝর্ণা গুলোর মধ্যে এটা বেশ বড়। প্রতিদিন এটা দেখতে অনেক টুরিস্ট আসে। ওখানে লাঞ্চ করার জন্য রেস্টুরেন্ট ও আছে।

তেগালালাং রাইস ট্যারেস

ওয়াটারফল থেকে Tegallalang Rice Terrace প্রায় ১ ঘণ্টার পথ। বৃষ্টিতে পুরো ট্যারেস কাদা কাদা হয়ে থাকে। ট্যারেস যেহেতু পাহাড় কেটে করা, তাই পিচ্ছিল পথ বেয়ে নামা বা ওঠা খুবই কষ্টকর। উঠা নামা করার সময় সাবধানে করতে হবে। এখানে ছবি তোলার জন্যে মানুষের সমান পাখির বাসা (Birds Nest) রয়েছে যা ছবি প্রেমীদের খুব কাছে টানে। এছাড়া Tegalalang Rice Terrace Swing এর স্বাদ নিতে পারবেন এখানে।

মাংকি ফরেস্ট

মাংকি ফরেস্ট (Monkey Forest) বেশ বড় একটা পার্ক এর মতো। এটাকে বানরের অভয়ারণ্য ও বলা চলে। প্রচুর বানর এখানে। ঢুকার টিকেট ৮০ হাজার রুপিয়া। প্রায় ৫০০ টাকার মতো। ভেতরে মন্দির আছে। বসার স্থান আছে। আছে হরেক রকমের বানর।

তিরথা ইম্পুল টেম্পল

স্থানীয়দের মতে সকল পাপ মোচন হয় তিরথা ইম্পুল টেম্পল (Pura Tirta Empul) এর পানিতে গোসল করলে। মন্দিরের ভিতরে ঢুকতে সামান্য কিছু টাকা ফি হিসেবে দিতে হয়। বাংলা টাকায় যা ২০০/২৫০ টাকা। মন্দিরের ভিতরে পুকুরের মতো আছে। স্থানীয় লোকদের মতে এখানের পুকুরের নল থেকে পানি বের হয় এটা খুবই পবিত্র এবং প্রত্যেকটি নলে মাথা ঠেকিয়ে স্নান করলে আপনার সব পাপ মোচন হবে। তাই টুরিস্ট দের ঢল লেগে থাকে এখানে। এছাড়া মন্দিরে আরও কিছু উপাসনার জায়গা আছে। কিন্তু এই স্থানটায় সবচেয়ে বেশি লোকের আনাগোনা। এই মন্দিরটা উবুদের ম্যাপ এর একটু উপরের দিকে। এটা প্রায় ১২/১৪ কিলো দুরে সেন্টার থেকে। বাইকে করে যাওয়া সবচেয়ে ভালো। খরচ একদমই নেই। কিন্তু ট্যাক্সি অথবা প্রাইভেট কার ভাড়া করলে অনেক খরচ পড়বে যা প্রায় কয়েক হাজার টাকার মতো।

উবুদ মার্কেট

উবুদ মার্কেট উবুদের সব কালচারাল জিনিসপত্রের মার্কেট। এখানে আপনি বালিনিজ কালচারের অনেক কিছু পাবেন। সারং, ছোট ছোট বাদ্যযন্ত্র, কিছু মূর্তি , বালিনিজ দের পোশাক এসব এখানে পাওয়া যায়।

এছাড়া উবুদের শহুরে এলাকাটাও বেশ সুন্দর। হেটে হেটে ঘুরে দেখতে বেশ ভাল লাগবে ।

যাতায়াত

উবুদে চলাচল এর জন্য সবচেয়ে ভাল হচ্ছে স্কুটার ভাড়া নেয়া। এটা দিন প্রতি ৩০০ টাকার মত লাগবে। এছাড়া ট্যাক্সি বা গাড়িও ভাড়া নেয়া যায় কিন্তু খরচ একটু বেশি।

কিভাবে যাবেন

ইন্দোনেশিয়া যেতে বাংলাদেশীদের ভিসা ফ্রি। প্লেন এর রিটার্ন টিকেট কাটলেই ভিসা পাওয়া যাবে। ঢাকা থেকে সরাসরি কোন ফ্লাইট নাই। কুয়ালামপুর অথবা সিঙ্গাপুর হয়ে যেতে হয়। প্লেন ভাড়া ৩০-৩৫ হাজারে মতো।

থাকার হোটেল

উবুদে বিভিন্ন ধরনের হোটেল আছে। ফাইভ স্টার থেকে শুরু করে নরমাল হোটেল। এখানে হোটেল ভাড়া মিনিমাম শুরু হয় ১৫০০ টাকা থেকে।

খাবার

উবুদে খাবার খরচ কুটা বা অন্য এলাকা থেকে একটু বেশি। প্রতিবেলা ৩০০ থেকে ৪০০ টাকার মত খরচ হতে পারে।

×

করোনার প্রাদুর্ভাব বেরে যাওয়ায় অনেক ট্যুরিষ্ট প্লেস গুলোতে ভ্রমণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তাই সেখানে ভ্রমণের প্ল্যান করলে আগে থেকে ভালো ভাবে খোঁজ খবর নিয়ে যাবেন।

দিক নির্দেশনা

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।