সুলুবান বীচ, বালি

ভালো লেগেছে
1

সুলুবান শব্দটি যে বালিয় শব্দ থেকে উৎপন্ন হয়েছে তার আক্ষরিক অর্থ দাঁড়ায় ‘ঝুঁকে পড়া’। দুই পাথরের মধ্যে সৃষ্ট ছোট্ট গুহা দিয়ে এই বীচে ঢোকার সময় ঝুঁকে পড়া বাধ্যতামূলক বলেই হয়তো এই রকম নামকরণ। যেহেতু এই বীচে যাওয়ার সরাসরি কোন পথ নেই তাই এইটাকে হিডেন বীচও বলা হয়। গুহা দিয়ে বের হয়েই আপনার চোখে পড়বে বড় বড় নীলচে ঢেউ আছড়ে পড়ছে সুলুবান বীচ (Suluban Beach) এর শুভ্র বালিয়াড়ীতে।

আকারে বেশ ছোট কিন্তু নয়নাভিরাম এই বীচ। তাছাড়া একটু দুর্গম আর কাছাকাছি পাদাং পাদাং বা ড্রীমল্যান্ড বীচের মতো জনপ্রিয় বীচ থাকাতে এখানে পর্যটকের আনাগোনা তুলনামুলক কম। অবিরাম বড় বড় ঢেউয়ের জন্য সার্ফারদেরও খুব পছন্দের জায়গা এই সুলুবান বীচ যেখানে আন্তর্জাতিক সার্ফিং প্রতিযোগিতাও হয় হরহামেশাই।

কিভাবে যাবেন

বালিতে পৌঁছে অবস্থান নিন সেমিনিয়াক বা কুটা বীচের কাছাকাছি কোথাও। তারপর একদিনের জন্য গাড়ি ভাড়া করে বা স্কুটি ভাড়া করে সকাল সকাল চলে যান সুলুবান বীচে। তারপর দুপুর পর্যন্ত এখানে জলকেলি করে লাঞ্চ সেরে চলে যান উলুয়াটু টেম্পলে বিকেল আর সূর্যাস্ত দেখতে যেটা খুব কাছে এই বীচ থেকে।

×

করোনার প্রাদুর্ভাব বেরে যাওয়ায় অনেক ট্যুরিষ্ট প্লেস গুলোতে ভ্রমণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তাই সেখানে ভ্রমণের প্ল্যান করলে আগে থেকে ভালো ভাবে খোঁজ খবর নিয়ে যাবেন।

দিক নির্দেশনা

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।