নাগরকোট

ভালো লেগেছে
2

কাঠমুন্ডু থেকে ৩২ কি.মি. পূর্বে নাগরকোট (Nagorkot) এর অবস্থান। ভক্তপুরের সবচেয়ে নৈসর্গিক স্থান এটি। যেখান থেকে হিমালয়ের জমকালো সূর্যোদয় দেখা যায়। পর্যটকরা কাঠমুন্ডু থেকে গিয়ে নাগরকোটে রাত্রি যাপন করে সূর্যোদয় দেখার জন্য। বিশেষত বসন্তকালে দর্শনার্থীরা নাগরকোট ভ্রমণে যায়। এ সময় বিভিন্ন রকমের ফুলের সমারোহ ঘটে। এখানকার হিমালয়ের সর্বোচ্চ শিখরের নাম প্যানরোমা। হিমালয়ের আরো কিছু চূড়া যেমন – মানাস্লু, গণেশ হিমেল, লেঙ্গান, চোবা ভাম্রি গৌরীশঙ্কর নাগরকোট থেকে স্পষ্ট ভাবে দেখা যায়।

নাগরকোট গ্রামের বৈশিষ্ট্য হলো পৃথিবীর সবচেয়ে উঁচু স্থানে এটি অবস্থিত। পৃথিবীর অন্যান্য গ্রামে বসবাসকারী মানুষজন যেখানে মাঠ থেকে আকাশকে দেখে। সেখানে নাগরকোটের বাসিন্দারা নিচে তাকিয়ে আকাশ দেখে। ঠিক যেন স্বর্গের অপার সৌন্দর্য অনুভব করার মতো অবস্থা। এভারেস্ট ছাড়াও বেশ কয়েকটি চূড়া এখান থেকে দেখা যায়। এর মধ্যে লাংটাং, মানাসলু, গৌরীশংকর অন্যতম।

যেতে যেতে দেখা যাবে, পাহাড় থেকে খুব সরু ঝিরঝিরে ঝর্ণা নেমে এসেছে বিভিন্ন জায়গায়। ঘরের উঠোনে মুরগি আর শূকরছানার ঘোরাঘুরি। শুকোতে দেওয়া ভুট্টা আর আলু বোখারা (পিচ)। লাল আপেলের মতোন গাল আর সরু চেরা চোখের শিশুরা। ঘরের দ্বারে জপ মালা হাতে মন্ত্র পাঠরত ঐতিহ্যবাহী তিব্বতি পোশাকের বৃদ্ধা।

নাগরকোট এর সূর্যাস্ত সবার মনেই দাগ কাটার মতো। সূর্যাস্তের সময় আকাশে যদি অল্টোস্ট্যাটাস মেঘ থাকে তাহলে তো আর কথাই নেই। বরফের চূড়ার সোনা রঙ আর তার সাথে আকাশের রঙের খেলা সব মিলে মিশে যে একটা রূপ ফুটে উঠে তা কখনোই ভোলার নয়।

কখন যাবেন

এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময়টা নাগরকোট ভ্রমণের জন্য সবচেয়ে ভালো। এ সময়ের তাপমাত্রা ১০-১৫ ডিগ্রির নিচে কখনও নামে না। আবার ২৩ ডিগ্রির বেশি ওঠে না। তবে ডিসেম্বর-ফেব্রুয়ারি সময়টা খুব খারাপ। ৩ ডিগ্রি পর্যন্ত নেমে যায় তাপমাত্রা। ১৪ ডিগ্রির উপরে কখনও তাপ ওঠে না। কুয়াশার চাদর মেখে হিমালয় কন্যা তখন দীর্ঘ শীতনিদ্রায় কাতর থাকেন।

প্রবেশমূল্য

নাগারকোটে প্রবেশের সময় এন্ট্রি ফি হিসেবে জনপ্রতি ২০০ নেপালী রূপি দিতে হয়। এটা কেবল সার্ক ভুক্ত দেশগুলোর জন্য। নেপালীদের জন্য ১০০ নেপালী রূপি। আর অন্য সকল দেশের নাগরিকদের জন্য জনপ্রতি ১২০০ নেপালী রূপি করে দিতে হয়।

কিভাবে যাবেন

কাঠমুন্ডু থেকে নাগরকোট গাড়িতে যেতে দেড় থেকে দুই ঘণ্টা সময় লাগে। কাঠমুন্ডু থেকে রওনা দিয়ে রিং রোড ছাড়িয়ে তালকোট পার হয়ে শুরু হয় পাহাড়ের গা ঘেঁষে সরু পেঁচানো রাস্তা। একদিকে পাহাড়, অন্যদিকে উপত্যকা। রাস্তা আকাশের দিকে মুখ করে ২০০০ মিটার ওপরে উঠে গেছে।

কেনাকাটা

পশমিনা, কাঠের কাজ, পাথরের চুড়ি, মালা, কানের দুল, ইয়াকের হাড়ের জিনিসপত্র, নানা সাইজের, নানা ভঙ্গিমার বরাভয় মুদ্রায় গৌতম বুদ্ধের মূর্তি, নেপালি কুকরী সবই আছে এখানে।

কোথায় থাকবেন

উন্নতমানের কিছু হোটেল আছে নাগরকোটে। ক্লাব হিমালয়ানের কথা না বললেই নয়। ওদের প্রায় সবগুলো রুম থেকেই হিমালয় দেখা যায়। নিজস্ব অবজারভেটরিও আছে। ব্যয় একটু বেশি। মাঝারি মানের হোটেল আর ব্যক্তিগত গেস্ট হাউসও আছে এখানে। তবে পানির সমস্যা প্রকট। বড় হোটেলগুলোতে নিজস্ব পানি পরিবহন এবং উত্তোলনের ব্যবস্থা আছে।

×

করোনা (COVID-19) ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে যা করনীয়ঃ

  • সবসময় হাত পরিষ্কার রাখুন। সাবান দিয়ে অন্তত পক্ষে ২০ সেকেন্ড যাবত হাত ধুতে হবে।
  • সাবান না থাকলে হেক্সিসল ব্যবহার করুন। হেক্সিসল না থাকলে হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন, যতটুকু সম্ভব ভীড় এড়িয়ে চলুন।
  • বাজারে কিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন, করলে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • টাকা গোনা ও লেনদেনের পর হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ওভার ব্রিজ ও সিড়ির রেলিং ধরে ওঠা থেকে বিরত থাকুন।
  • পাবলিক প্লেসে দরজার হাতল, পানির কল স্পর্শ করতে টিস্যু ব্যবহার করুন।
  • হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।
  • নাক, মুখ ও চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন।
  • হাঁচি কাশির সময় কনুই ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়ে থাকেন তবে মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক নয় তবে আক্রান্ত হলে সংক্রমণ না ছড়াতে নিজে মাস্ক ব্যবহার করুন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকুন। Stay Home, Stay Safe.

দিক নির্দেশনা

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।

  1. নাগোরকোট জায়গাটার অনেক নাম শুনেছিলাম এটা সুন্দর, আবহাওয়া ভালো থাকলে হতে পারে আপনি হিমালাওয়ের মাথা দেখে ফেলবেন, কিন্তু গ্যারান্টি দিয়ে বলছি, এর থেকে আমাদের সাজেক সুন্দর।