কোহ সামুই দ্বীপ

ভালো লেগেছে
0
Ratings
রেটিংস ( রিভিউ)

কোহ সামুই এর চমকপ্রদ সৈকত আর সমৃদ্ধ ইতিহাস ও সংস্কৃতির মাধ্যমে যেগুলি এই মনোরম স্থানের গর্ব। সামুই দ্বীপ থাইল্যান্ডের তৃতীয় বৃহত্তম দ্বীপ।

কোহ সামুই (Koh Samui Island) এর অবস্থান ব্যাংকক থেকে ৭৬৩ কিলোমিটার দূরে থাইল্যান্ডের সুরাতথানি প্রদেশে। দ্বীপের মোট আয়তন ২২৮ বর্গকিলোমিটার। দ্বীপটা গোলাকৃতির এর চারিদিক দিয়ে ৪৫ কিলোমিটার মেরিন ড্রাইভের জন্য রাস্তা আছে। আপনি ইচ্ছে করলে বাইক ভাড়া নিয়ে পুরো দ্বীপ ঘুরে সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারেন। মিনি বাস গুলি প্রধান রাস্তায় সাধারনত চলাচল করে। টুরিস্টরা সাধারনত থাকতে পছন্দ করে লামাই ও চেয়াং বীচে। কারন খুবই হ্যাপেনিং প্লেস আর সবচেয়ে সুন্দর বীচ।

এর একটা পর্বতমালা রয়েছে যা পূর্ব থেকে পশ্চিমে চলে গেছে। এখানে মৎস্য সম্পদ ছাড়াও আছে নারকেল। প্রতি মাসে দুই মিলিয়ন নারকেল ব্যাংককে পাঠানো হয়। সারা দেশের মধ্যে এখানকার নারকেল সর্বোত্তম। মাঝেমাঝে কর্মচারীরা বানরকে প্রশিক্ষণ প্রদান করে নারকেল গাছ থেকে নারকেল সংগ্রহের জন্য। সামুই আপনাকে দেবে সরল প্রকৃতি যা অন্যগুলি থেকে আলাদা। এর সৈকত সাদা বালু দ্বারা গঠিত যা পরিষ্কার ও স্বচ্ছ। এই দ্বীপে নারকেল ছাড়াও ধান আবাদ হয়ে থাকে।

আপনি সৈকতের দিকে তাকালে দেখতে পাবেন পাম গাছের সারি সৈকত জুড়ে। সৈকত পরিষ্কার ও স্বপ্নপূর্ণ। চায়েং ও লামাই এ সবচেয়ে বেশী লোক ভ্রমণ করেন। এখানকার সূর্যোদয় সবচেয়ে মনোরম। নিজেকে তামাটে করার জন্যে কিছু না করে আলস্যে শুয়ে থাকা হবে আদর্শ। যারা বেশী সক্রিয় থাকতে চান তারা যেমন উইন্ডসার্ফিং এবং স্নরকেলিং করতে পারেন। এখানে পানি অত্যন্ত স্বচ্ছ, আপনি পানির নীচের সৌন্দর্যময় জীবন দেখতে পারেন অনায়াসে।

দর্শনীয় স্থানসমূহ

আপনি যদি সাঁতার ও সূর্য্যস্নান ছাড়া অন্য কিছু উপভোগ করতে চান তাহলে কাছাকাছি অন্য দ্বীপে যেতে পারেন। একটা নৌকা ভাড়া করে কোহ ফাংগান চলে যান কিংবদন্তীর পূর্ণচন্দ্র পার্টতে যোগ দেয়ার জন্য। এই দ্বীপ নিকটতম ও বৃহত্তম যেখানে আছে সাশ্রয়ী অনেক বাংলো। আপনি এখানে সুন্দর জলপ্রপাত ও সুদৃশ্য সমুদ্র সৈকত দেখতে পাবেন। ছোট দ্বীপগুলির একটিতেও আপনি যেতে পারেন, কো তাও আর কো নাং ইউয়ান দুটোই ভ্রমণের জন্য অপূর্ব। চমৎকার পানিতে আপনি স্নরকেল করতে পারেন এবং পানির নীচের সব সৌন্দর্য দেখতে পারেন।

যারা অডভেঞ্চারপ্রিয় তাদের জন্য আছে অং থং মেরিন ন্যাশনাল পার্ক। এটা একদিনের ভ্রমণ। আপনি এখানে চুনা পাথরের গুহা, নীল লেগুন আর সৈকত দেখতে পারেন। কো উয়া তা ল্যাপে পার্কের হেডকোয়ার্টার্স এ আপনি বাংলো ভাড়া করতে পারেন। সামুই এ গাইডেড ট্যুরের ব্যবস্থা আছে। যদি দ্বীপে থাকতে চান ও ভালভাবে জানতে চান তাহলে আপনি সুরাত থানিতে যেতে পারেন। এটা মতস্য আহরণ ও জাহাজ নির্মানের কেন্দ্র। এখানে আপনি তাপি নদী দেখতে যেতে পারেন হেটে হেটে। সুরাত থানি ঝিনুক চাষের জন্য সুপরিচিত যেখানে বিশালাকৃতির ঝিনুক চাষ হয়।

ভ্রমণের মতো অন্য একটি জায়গা হলো চাইয়া। এটা উত্তরে ৪৫ মিনিটের পথ। আপনি এই ঐতিহাসিক স্থান দেখতে যেতে পারেন। অনেক পন্ডিত মনে করেন এখানে শ্রীভিজায়া রাজত্বের রাজধানী ছিল। এটা নিয়ে বিতর্ক থাকতে পারে তবে অনেক প্রাচীন মন্দির বিদ্যমান এখানে। এই ওয়াত ফ্রা বোরোমাহাত চায়ার এ একটা সৌধ আছে যা ১,৩০০ বছরের পুরনো। অন্য তিনটি দর্শনীয় মন্দির হলো ওয়াত উইয়াং, ওয়াত লং ও ওয়াত কায়েং। আপনি যদি চাইয়া থেকে কয়েক কি.মি. দুরে প্রবহমান পানির মঠ নামে পরিচিত ওয়াত সুয়ান মক এ যান তাহলে এখানে একটা মেডিটেশন সেন্টার দেখতে পাবেন।

সর্বশেষে আপনি খাও সক জাতীয় পার্কে ভ্রমন করতে পারেন। এটা গ্রীষ্মমন্ডলীয় দৃশ্যে ভরপুর আর এখানে আপনি বাংলোও ভাড়া করতে পারবেন। আপনি যদি বাংলো ভাড়া না করতে চান তাহলে গাছের মাথায় স্থাপিত অতিথি নিবাসে থাকতে পারেন।

কোথায় থাকবেন

কোহ দ্বীপে থাকবার জন্যে বেশ কিছু প্রথম শ্রেণীর হোটেল আছে। সাধারনত কোহ সামুই এর সৈকতে বাংলো পাওয়া যায় যেমন চালি বাংলো, কোরাল কোভ চ্যালেট ইত্যাদি। এই বাংলো গুলো পাম গাছের খড় থেকে তৈরী। এইগুলি সাধারন মানের আর শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ও অনিয়ন্ত্রিত উভয়ই। আপনি আপনার দরকারী সব জিনিসই পাবেন এখানে। আপনি যদি বিলাসবহুল কোন থাকবার জায়গা কোহ সামুই এ পছন্দ করেন তাহলে বীচকম্বার হোটেল কোহ সামুই, কেন্দ্রীয় সামুই বীচ রিজোর্ট কোহ সামুই, চায়েং রিজেন্ট রিজোর্ট কোহ সামুই ইত্যাদি বেছে নিতে পারেন।

বাংলোতে নিজস্ব রেস্তোরাঁ রয়েছে এছাড়াও আপনি অন্যান্য জায়গায়ও যেতে পারেন পছন্দনীয় খাদ্যের জন্য। সুস্বাদু সামুদ্রিক খাবারের জন্য জায়গা রয়েছে আর এখানকার ফলমুল একদম টাটকা আর স্থানীয়। মশলাদার খাবারও আপনি বেছে নিতে পারেন যেগুলি থাই খাবারের অন্তর্ভূক্ত।

কিভাবে যাবেন

ব্যাংকক (Bangkok) থেকে সরাসরি প্লেনে যাওয়াই ভালো। আর একটা উপায় আছে যাতে খরচ একটু কম হবে। ব্যাংককের ডনমুইয়েয়াং এয়ারপোর্ট হতে প্লেনে সুরাতথানি যাবেন। সুরাতথানি থেকে জাহাজে বা ফেরিতে কোহ সামুই।

ঘুরতে যেয়ে পদচিহ্ন ছাড়া কিছু ফেলে আসবো না,
ছবি আর স্মৃতি ছাড়া কিছু নিয়ে আসবো না।।

দিক নির্দেশনা

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।

Sending

  1. আশ্চর্য সুন্দর ছোট্ট দ্বীপ। আছে লামাই বীচ, ছাওয়াং বীচ, জলপ্রপাত ও একটা ছোট শহর। ছাওয়াং যায়গাটা সস্তা টুরিস্ট ও হই হুল্লোরের। তাই এড়িয়ে যাওয়া ভাল। বাকি দ্বীপটা তুলীতে আঁকা।

    আপনার কাছে এই রিভিউ সাহায্যপূর্ণ মনে হয়েছে? হ্যাঁ না