গুলমার্গ

ভালো লেগেছে
0
Ratings
রেটিংস ( রিভিউ)

গুলমার্গ (Gulmarg), জম্মু-কাশ্মীর এর বারামুলা জেলার অন্তর্গত যা পাকিস্তান সীমান্ত থেকে মাত্র ৮ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত যা TAJ OF KASHMIR নামেও পরিচিত। কাশ্মীর এর রাজধানী শ্রীনগর থেকে ৫২ কিলোমিটার দূরে এবং ৮৮২৫ ফুট উপরে এই হিল স্টেশনে গেলে দ্বিধা সৃষ্টি হবেই, স্থানটি গুলমার্গ নাকি সুইজারল্যান্ডের কোনো বরফ ঢাকা শহর। জম্মু ও কাশ্মীরের পীরপঞ্জাল রেঞ্জে অবস্থিত এই হিল স্টেশনে সারাবছর পর্যটকদের ভিড় লেগেই থাকে। গরমের সময়ে যেমন ঠান্ডা আবহাওয়ায় মানুষ ছুটি কাটাতে আসেন, তেমনই শীতের সময়ে আসেন বরফ দেখতে। এশিয়ার অন্যতম সেরা স্কিয়িং করার জায়গা রয়েছে গুলমার্গেই। এখানে বিংশ শতকে ব্রিটিশ শাসনের সময়ে স্কিয়িং ক্লাব তৈরি হয়। এছাড়াও শীতকালে আরও নানা ধরনের খেলা হয় এখানে। শীতের সময়ে গুলমার্গ পুরোটাই বরফে ঢেকে যায়।

শ্রীনগর থেকে গুলমার্গ একদিনেই ট্যুর দিয়ে ফিরে আসা যায়। শ্রীনগর শহর থেকে গুলমার্গ যেতে গাড়ী ভাড়া নেবে ২০০০ রুপি এর মত। গুলমার্গে দুই ধাপের কেবল কার বা রোপওয়ে আছে যা গন্ডোলা রাইড (Gondola Ride) নামে পরিচিত। নভেম্বর থেকে এপ্রিলের মধ্যে গেলে একধাপ উঠলেই বরফ দেখা যায়, যায় ভাড়া ৭৫০ রুপি করে। আর বাকি সময়ে গেলে দ্বিতীয় ধাপে উঠলে বরফ মেলে যার ভাড়া আরও ৯৫০ রুপি করে। আর স্নো স্কেটিং ৭০০ থেকে ১০০০ রুপি পড়বে। রুপি খরচ করে বরফে অনেক বিনোদন নেয়া যায়, স্কেটিং, স্কুটার, প্যারাগ্লাইডিং ইত্যাদি।

গুলমার্গের দর্শনীয় স্থানসমূহ

  • গন্ডোলা রাইড
  • আফারওয়াত পিক
  • খিলানমার্গ
  • বাবা রেশির মাজার
  • গলফ কোর্স
  • সেন্ট মেরী চার্চ
  • এলপাথর লেক
  • বায়সফিয়ার রিজার্ভ

ভ্রমণের উপযুক্ত সময়

গুলমার্গ ভ্রমনের উপযুক্ত সময় মার্চ – নভেম্বর। এটি সবচেয়ে বেশি আকর্ষণীয় রূপ নেয় এপ্রিল-মে মাসে। তবে যারা স্নোফল দেখতে কাশ্মীর যেতে চান তাদের জন্যে ডিসেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি উত্তম। কারন এ সময়টায় কাশ্মীরে সব থেকে বেশী স্নোফল পাবার সম্ভাবনা থাকে।

কাশ্মীর কিভাবে যাবেন

কলকাতা থেকে সরাসরি জম্মু যাওয়ার দুটি ট্রেন আছে। হিমগিরি ও জম্মু তাওয়াই। হিমগিরি সপ্তাহে ৩ দিন (মঙ্গল, শুক্র ও শনিবার) রাত ১১:৫০ টায় হাওড়া থেকে জম্মুর উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। সময় লাগে ৩৫ ঘণ্টা ৩০ মিনিট। আর জম্মু তাওয়াই প্রতিদিন চললেও সময় একটু বেশি লাগে। ভাড়া পড়বে ১২০০ থেকে ৫০০০ পর্যন্ত স্লিপার,এসি থ্রি/টু টায়ার আর বাথ। জম্মু নেমে শ্রীনগর যেতে হবে বাস বা রিজার্ভ কারে করে। বাসের ভাড়া পড়বে ‪৮০০-১৫০০‬ রুপি। আর গাড়ি ভাড়া পড়বে ৫০০০-৮০০০‬ রুপি পর্যন্ত। গ্রুপের সদস্য সংখ্যার ওপরে নির্ভর করে গাড়ি নেবেন। জম্মু থেকে শ্রীনগর যেতে সময় লাগবে ৮-১০ ঘণ্টা। চাইলে ৫২ কিমি এগিয়ে উদামপুর নাগাদ যাওয়া যায়, তারপর সেখান থেকে ১৫২ কিমি ট্যাক্সিতে প্রায় ৫/৬ ঘন্টায় বানিহিল নাগাদ যেয়ে বাকি অংশ মানে বানিহিল থেকে শ্রীনগর নাগাদ রেলে যাওয়া যায়। এতে সময় ও খরচ দুটোই বাঁচে। এই পথে পাহাড়ের নীচ দিয়ে প্রায় ১১২৫০ মিটার লম্বা টানেল পার হয়ে যেতে হয়, তাছাড়া উদামপুর ও জম্মুর মধ্যেও অনেকগুলো টানেল রয়েছে।

এছাড়াও কলকাতা থেকে দিল্লী যেতে পারেন বেশ আয়েশ করে রাজধানী এক্সপ্রেসে। ভাড়া পড়বে ‪৩০০০-৪০০০‬ টাকা শ্রেণিভেদে। তবে সব খাবার এই টিকেট ভাড়ার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত থাকে। দিল্লীতে সারা দিন ঘুরে রাতের রাজধানী এক্সপ্রেসে যেতে পারেন দিল্লী থেকে জম্মু পর্যন্ত। রাতে ছেড়ে সকালে পৌঁছায়। জম্মু থেকে শ্রীনগর পর্যন্ত আগের মতো বাস বা গাড়ি রিজার্ভ করে।

এয়ারে কাশ্মীর যেতে হলে ঢাকা থেকে আন্তর্জাতিক বিমানে প্রথম যেতে হবে দিল্লি ইন্ধিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে, সেখান থেকে শ্রীনগর। অথবা ঢাকা থেকে কলকাতা যাবেন ট্রেনে বা বাসে পরে সেখান থেকে ডোমেস্টিক বিমানে জম্মু অথবা শ্রীনগর বিমানবন্দরে যাওয়া যাবে। কলকাতা থেকে সরাসরি শ্রীনগরে কোনো ফ্লাইট নেই তাই দিল্লী হয়ে যেতে হয়।

শ্রীনগর থেকে গুলমার্গ

শ্রীনগর শহর থেকে ৫২ কিমি গুলমার্গ। গাড়ী ভাড়া পড়বে ২০০০ রুপি। শীতল ঝর্ণা, পাহাড়ী আঁকা- বাঁকা পথ ধরে গুলমার্গ যেতে সময় লাগবে ১.৩০ ঘন্টা থেকে ২ ঘন্টা।

ঘুরতে যেয়ে পদচিহ্ন ছাড়া কিছু ফেলে আসবো না,
ছবি আর স্মৃতি ছাড়া কিছু নিয়ে আসবো না।।

দিক নির্দেশনা

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।

Sending