সুনতালেখোলা

Ratings
রেটিংস ৪.৬৭ ( রিভিউ)

কিছুটা নির্জনতা, প্রকৃতির সঙ্গে কথা বলা, কর্মব্যস্ততার জীবনকে দূরে সরিয়ে নিজের মতো কাটাতে জঙ্গল, নদী পাহাড়ের সমন্বয় ডুয়ার্সের সুনতালেখোলা৷ ডুয়ার্সের মানচিত্রে প্রকৃতির পাঠশালা, যদিও জায়গাটি দার্জিলিং জেলার অন্তর্গত৷ ছোট্ট পাহাড়ি গ্রাম সুনতালেখোলা, নেপালি ভাষায় সুন্তালের অর্থ কমলালেবু এবং খোলার অর্থ ছোটো নদী৷ বর্ষায় সবুজের সমাহার, রং-বেরঙ-এর প্রজাতি, পাখির কলতান সেই সঙ্গে মায়াবী শান্ত পরিবেশ না এলে আপসোস থেকে যাবে৷ নীল আকাশ, ঘন সবুজ বনানী-বিস্তৃত গিরিরাজের পাদদেশে অবস্থিত ডুয়ার্সের স্বল্পপরিচিত এই স্থানটি চমৎকার একটি ট্যুরিস্ট স্পট। নেওড়া ভ্যালির গহন অরণ্য এখানে এসে মিশেছে সমতলের সাথে। ছোট বড় চাবাগান ও ঘন জঙ্গলে মোড়া উঁচু-নিচু পাহাড় পরিবেষ্টিত স্থানটি মনে ও প্রাণে ভরে দেয় মুক্ত সতেজ প্রাণবায়ু।

সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে আনুমানিক ৩০০০ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত সুনতালেখোলা। নুড়ি-পাথরের মাঝ দিয়ে বয়ে আসা ছোট্ট নদী মূর্তি ও তার ওপরে কাঠের পাটাতনবেষ্টিত একটি ঝুলন্ত সেতু, এই পাড়ের সাথে শক্ত করে বেঁধে রেখেছে অন্য পাড়কে। সেতু পার হয়ে রাস্তা গিয়েছে পাহাড়ের গা ঘেঁষে ঘন জঙ্গলের পাশ দিয়ে। সেটি ধরে একটু এগিয়ে গিয়ে ডানদিকে বেঁকে গেলেই যাত্রাপথ রুদ্ধ করে দাঁড়িয়ে ফরেস্ট ডিপার্টমেন্টের মূল ফটক। আপনার সর্বক্ষণের সঙ্গী এখানে মূর্তি নদী ও উঁচু পাহাড় থেকে ঢাল বেয়ে নেমে আসা ঘন জঙ্গলের গাছে গাছে উড়ন্ত পাখিরা। নদীর স্রোতে গড়িয়ে আসা নুড়ির ওপর বসে ঝিঁঝিঁ ও পাখির কিচিরমিচির এবং মূর্তির কুলকুল শব্দের কোরাস শুনতে শুনতে স্নিগ্ধ পরিবেশে জঙ্গলের শোভা দেখে কাটিয়ে কাটিয়ে দেওয়া যায় অনেকটা সময়।

প্রকৃতির মতোই সহজ-সরল নিপাট ভদ্র এখানকার মানুষজন৷ বেশ কয়েকটি হোমস্টে রয়েছে৷ এছাড়া পাহাড়ের গায়ে ছোট-ছোট দোকান যা স্থানীয় মহিলারা মোমো, চাওমিন চা বিক্রি করে, এর স্বাদ নিতে ভুলবেন না৷ অকৃত্রিম সৌন্দর্যের টানে বারবার ফিরে আসতে ইচ্ছে হয় সুন্তালেখোলাতে৷ সামসিং ফাঁড়ি পর্যন্ত গাড়ি যায়৷ এরপর ১ কিমি স্থানীয় গাড়িতে বা পায়ে হেঁটে সুন্তালেখোলা পৌঁছোনো যায়৷ জঙ্গল ক্যাম্প এ বুকিং থাকলে গাড়ি শেষ অবধি যায়৷

কি দেখবেন

পাহাড় ও জঙ্গলের মেলবন্ধন যুক্ত এ স্থান প্রকৃতি এবং পক্ষীপ্রেমীদের স্বর্গরাজ্য। বিভিন্ন প্রজাতির পাখি, বিশেষত বন-কপোত, রেড-ভিন্টেড বুলবুলি, হরেক রঙের ফিঙে, হিমালয়ান ঈগল, বন মোরগ, গ্রীন ম্যাগপাই, গ্রে-গোল্ড ট্রিপাই, ফ্যানটেল, স্কারলেট-মিনিভেট, হর্নবিল ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। দূষণ আর কোলাহলের থেকে শত ক্রোশ দূরে, বনবাংলোয় বসে অলস সময় কাটানোর অভিজ্ঞতা চমকপ্রদ। এলাচ ও চায়ের গন্ধমাখা প্রকৃতির সৌন্দর্যকে দেখতে এবং নিবিড়ভাবে উপলব্ধি করতে সুনতালেখোলা এককথায় অনবদ্য।

আরও যা দেখতে পারেন

সুনতালেখোলা (Suntalekhola) থেকে একই রুটে দেখে নেওয়া যায় সামসিং (৪ কিমি), রকি আইল্যান্ড (৫ কিমি), ঝালং (২৩ কিমি), প্যারেন (৩১ কিমি) এবং বিন্দু (৩৪ কিমি)। সারাদিনের জন্য গাড়িভাড়া পড়বে ১৫০০-১৮০০ টাকা। এছাড়াও এখান থেকে ঘুরে আসা যায় একই রুটে – চাপড়ামারি ফরেস্ট (২৮ কিমি), গরুমারা ন্যাশনাল পার্ক (৩০ কিমি)। সারাদিনের জন্য গাড়িভাড়া পড়বে ২২০০-২৫০০ টাকা।

টুকিটাকি!

  • বাইরের গাড়ি সুনতালেখোলা চেকপোস্ট পর্যন্ত যেতে পারে। সেখান থেকে নির্দিষ্ট স্পটে পৌঁছাতে স্থানীয় গাড়ি ভাড়া করতে হয় নতুবা ট্রেক করেও যাওয়া যায়। চেকপোস্ট থেকে স্পট অবধি গাড়ি ভাড়া ২৫০ টাকা।
  • সুনতালেখোলা চেকপোস্ট থেকে ফরেস্ট বাংলো বা নেচার ক্যাম্পের দূরত্ব প্রায় ১ কিলোমিটার।
  • সুনতালেখোলা চেকপোস্টের সামনে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের কিছু দোকানপাট আছে।
  • ফরেস্ট বাংলো / কটেজ বুকিং করার জন্য যোগাযোগ করুন – www.wbfdc.com

কখন যাবেন

ঋতুপরিবর্তনের সাথে সাথে সুনতালেখোলার অপার সৌন্দর্যের বদল ঘটে। গ্রীষ্মের তাপদাহের আঁচ না লাগলেও মূর্তির কুলকুল শব্দের সাথে পাখপাখালির কিচিরমিচিরে মুখরিত হয় চারপাশ। বর্ষায় বারিধারায় পুষ্ট সরু নদীই রুদ্রমুর্তি ধারণ করে ঝমঝমিয়ে লাফিয়ে চলে নিচে। ঝাউ, দেবদারু, মেহগিনি, অর্জুন, জাম, কমলালেবুর হালকা-ঘন চিরহরিৎ জঙ্গলের বর্ষাস্নাত দৃশ্য অবর্ণনীয়। শীত ও বসন্তে ফুলে ফলে ভরা গাছে উড়ে বেড়ায় রং-বেরঙের প্রজাপতি ও মৌমাছি। কমলালেবু ফুলের সুবাস নিতে নিতে কুয়াশাচ্ছন্ন পাহাড়ের চূড়াগুলি ঠায় দাঁড়িয়ে থাকে একচিলতে রোদের আশায়। প্রত্যেক ঋতুই তার সুস্পষ্ট ছাপ ফেলে রেখে যায় এখানে। তাই বছরের যে কোন সময়ই সুনতালেখোলা স্বাগত জানায় সকলকে।

কিভাবে যাবেন

  • নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশন/বাগডোগরা এয়ারপোর্ট থেকে গাড়ি ভাড়া করে সোজা চলে যেতে পারেন সুনতালেখোলা। গাড়িভাড়া পড়বে ২০০০-২৫০০ এর মধ্যে।
  • শিলিগুড়ি থেকে বাসে চালসা, চালসা থেকে যে কোন গাড়ি নিয়ে সুনতালেখোলা। চালসা থেকে মূর্তির দূরত্ব ভায়া মাতেল্লি-সামসিং রোড, আনুমানিক ২০ কিমি।
  • মাল বাজার/মাল জংশন গাড়ি ভাড়া করেও সুনতালেখোলা আসা যায় সেক্ষেত্রে দূরত্ব আনুমানিক ২৮ কিমি।

কোথায় থাকবেন

রাত্রি যাপনের জন্য এখানে আধুনিক সুবিধাযুক্ত বাংলো টাইপের দু-তিনটি বাড়ি এবং স্থানীয় মানুষদের ব্যবস্থাপনায় কিছু হোম স্টেও রয়েছে। এছাড়াও রাত কাটানোর জন্য রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ ফরেস্ট ডিপার্টমেন্টের ছোট ছোট অনেকগুলি আধুনিক সুবিধাযুক্ত কটেজ। আগে থেকে বুক করে যেতে হয় নতুবা ঘর খালি থাকলেও এখানে প্রবেশ নিষিদ্ধ। এক রাত্রি থাকার খরচ ১০০০ – ২০০০ টাকা।

সুন্তালেখোলা বন উন্নয়ন নিগম এর বাংলোয় থাকতে পারেন৷ এছাড়া রিভার ক্যাম্প রয়েছে৷

খাওয়া-দাওয়া

যে রিসোর্ট/হোমস্টে বুক করবেন তারাই খাবার পরিবেশন করেন। খুব ছোট জনপদ হওয়ায় চাইলেও বাইরে খাবারের বিশেষ ব্যবস্থা নেই। কাছাকাছির মধ্যে প্রায় ২কিমির মধ্যে আছে সামসিং বাজার, দু একটি ছোট রেস্তোরাঁ ও হোটেল আছে। এখানকার মোমো এবং নুডুলসের স্বাদ বেশ ভালো।

কেনাকাটা করতে চান?

কাঠের তৈরী ঘর সাজানোর জিনিসের বিপুল সম্ভার নিয়ে হাজির ডুয়ার্স। সেগুলি কেনার জন্যে অবশ্য সামসিং বাজারে আসতে হবে। এখানকার বিশেষ আকর্ষণ হল পার্শ্ববর্তী বাগানের ভিন্ন স্বাদের টাটকা তাজা চা। ফেরার আগে অবশ্যই কিছু চায়ের প্যাকেট সাথে নিতে ভুলবেন না।

Book a Tour


ট্যুরের সম্ভাব্য তারিখ -



View Direction

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।

Sending

  1. সুনতালেখোলা নিঃসন্দেহে ডুয়ার্সের অন্যতম সেরা ঠিকানা। পাহাড়, জঙ্গল আর নদী সব মিলিয়ে সুনতালেখোলার নিসর্গ এককথায় অনবদ্য।

    আপনার কাছে এই রিভিউ সাহায্যপূর্ণ মনে হয়েছে? হ্যাঁ না