কাওয়াচি ফুজি গার্ডেন

Ratings
রেটিংস 0 (0 রিভিউ)

কাওয়াচি ফুজি গার্ডেনকে জাপানের অনেক সুন্দর জায়গাগুলোর মাঝে একটি বলা হয়ে থাকে। কাওয়াচি ফুজি গার্ডেন এর প্রধান আকর্ষন হচ্ছে উইস্টেরিয়া ফুল। বাগানের মাঝে উইস্টেরিয়া ফুল গাছগুলো এমনভাবে লাগানো হয়েছে যে আপনি যখন দেখবেন তখন মনে হবে নিশ্চই কোনো দক্ষ চিত্রশিল্পী তার রংতুলি দিয়ে পুরো বাগানটিকে এঁকে রেখেছেন। দেখলে মনে হবে চোখের সামনে নানা রঙের ক্যানভাস ঝুলানো আছে। এই বাগানে সবচেয়ে আকর্ষনীয় বিষয় হচ্ছে উইস্টেরিয়া ফুলে আবৃত দুটি টানেল, যার একটি ৮০ মিটার ও অন্যটি প্রায় ২২০ মিটার দৈর্ঘ্যের। প্রায় ২২ ধরনের উইস্টেরিয়া ফুল দিয়ে এই টানেলগুলো সাজানো হয়েছে। আপনি যখন এই টানেলের মাঝে প্রবেশ করবেন মনে হবে আপনি কোনো ফুলের রাজ্যে চলে এসেছেন।

অসাধারণ এই পায়ে চলার পথটি পরিচিত উইস্টেরিয়া টানেল (Wisteria Tunnel) হিসেবেও পরিচিত। এটি যেন একটি শান্তির জায়গা। উইস্টেরিয়া এক ধরনের ফুলগাছ, এটি উইস্টেরিয়া ফুজি ফ্লাওয়ার নামেও পরিচিত। উইস্টেরিয়া বিখ্যাত তার বিচিত্র রং আর মোহনীয় সৌরভের কারণে। এটি সাধারণত সাদা, বেগুনি, নীল আর গোলাপি রঙের হয়ে থাকে। উইস্টেরিয়া টানেলের জেন গার্ডেন এবং একটি চেরি ফোটার উৎসব পৃথিবীতে স্বর্গীয় অনুভুতি নিয়ে আসে। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হচ্ছে কাওয়াচি ফুজি গার্ডেনটি (Kawachi Fuji Garden) বেসরকারিভাবে তৈরি করা হয়েছে। মশাও মিজোগুচি নামের একজন ব্যাক্তির একক পরিশ্রম ও প্রচেষ্টায় এই বাগানটি তৈরি হয়েছে। ১৯৭৭ সালে প্রথম জনসাধারণের জন্য কোয়াচি ফুজি গার্ডেনের দরজা খুলে দেয়া হয় এবং কোনো রকম বিজ্ঞাপন ছাড়াই বাগানটি খুব দ্রুত জাপানে জনপ্রিয় স্থান হয়ে উঠে।

কখন যাবেন

কাওয়াচি ফুজি গার্ডেন ভ্রমণের জন্য উপযুক্ত সময় হচ্ছে এপ্রিল থেকে মে মাস। মে মাসের শেষ সপ্তাহে কোয়াচি ফুজি গার্ডেন দেখে সবচেয়ে বেশি ভালো লাগবে। এই সময়টাকে এই বাগানের গোল্ডেন টাইম বলা হয়। কারণ এই সময় উইস্টেরিয়া ফুলগুলো তার সঠিক রং ও রূপ মেলে ধরে। আর তাছাড়া এপ্রিল-মে মাসে ‘ফুজি মাতসুরি’ এবং ‘উইস্টেরিয়া উৎসব’ হয়।

সকাল ৮ টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত এই পার্কটি দর্শনার্থীদের জন্যে খোলা থাকে। সিজন ভেদে এন্ট্রি টিকেটের মূল্য ৫০০/১০০০/১৫০০ ইয়েন হয়ে থাকে।

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।

Sending