দামতুয়া / তুক অ / লামোনই ঝর্ণা

ভালো লেগেছে
2
Ratings
রেটিংস ( রিভিউ)

দামতুয়া (Damtua Waterfall) ঝর্ণাটি পার্বত্য বান্দরবান জেলার আলীকদমে অবস্থিত যা অনেকের কাছে ডামতুয়া/তুক অ/লামোনই ঝর্ণা নামেও পরিচিত। ঝর্ণার নাম সাধারনত বেশীর ভাগই ঝিরির নাম অনুসারে হয়। ঝর্ণাটি যে ঝিরিতে তার নাম ব্যাঙ ঝিরি। যেহেতু মুরং এলাকায় অবস্থান তাই তাদের ভাষায় ব্যাঙ কে “তুক” বলে আর ঝিরিকে “অ” বলে। দামতুয়া অর্থ হলো এর খাড়া আকৃতির জন্য এর দেয়াল বেয়ে উপরে ব্যাঙ বা মাছ উঠতে পারেনা। আর ওয়াজ্ঞাপারাগ অর্থ পাহাড়/উচুঁ স্থান থেকে পানি পড়া। তাই তারা এক কথায় তুক অ ডামতুয়া ওয়াজ্ঞাপারাগ সহ উনাদের ভাষায় মিলিয়ে সংক্ষেপে আরো কিছু নামই বলে। তবে আমরা বেশীর ভাগই ঝর্নাকে, ঝর্না (মাতৃ ভাষার কারনে) ও সাইতার (বম এলাকায় বেশী আনাগোনার কারনে) বলে থাকি। তাই তাদের নামেই “তুক অ” ঝর্ণা বলতে পারি। আর এখানে দুই দিক থেকে পানি পড়ার কারনে ঝর্ণা সহ খোলা স্থানটিতে চাঁদের আলোতে অন্য রকম সৌন্দর্যের অবতরনের কারনে একে স্থানীয় মুরং ভাষায় “লামোনই” ঝর্ণা (লামো= চাঁদ ও নই= আলো) বলে।

কিভাবে যাবেন

ঢাকা-চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার যাওয়ার পথে চকরিয়া পৌর বাস টার্মিনাল নেমে বাস অথবা চাঁদের গাড়ি করে আলীকদম বাস ষ্টেশন নামবেন। লোকাল বাসে গেলে ৭০ টাকা ভাড়া পড়বে। ষ্টেশন থেকে রিক্সা বা টমটম যোগে পানবাজার চলে যাবেন। পানবাজার থেকে ভাড়া চলিত বাইক ও চাদের গাড়ি পাওয়া যাবে৷ সেখান থেকে ১৭ কি.মি. এলাকা থেকে গাইড নিয়ে দামতুয়া রওনা দিবেন। ১০ কি.মি. এলাকায় সেনা ক্যাম্প আছে ওখানে সবার নাম এন্ট্রি করে যেতে হবে সাথে অবশ্যই ভোটার আইডি কার্ড দেখাতে হবে।

২য় রুটঃ ঢাকা থেকে ডিরেক্ট আলিকদমের বাসেও যেতে পারেন (হানিফ প্রেফারেবল) (ভাড়াঃ ৮৫০ টাকা নন এসি)। আলিকদম গিয়ে পৌছাবেন নরমালি অ্যারাউন্ড ৮-৩০ থেকে ৯-০০। তারপরে সেখানে নাস্তা করে চান্দের গাড়িতে করে ১৭ কিলোমিটার নামক জায়গায় যেতে হবে। সেখান থেকে গাইড ঠিক করে হাটা শুরু করবেন দামতুয়ার উদ্দেশ্যে। মোটামুটি ২ঃ৩০-৩ ঘন্টা নানান চড়াই উৎরাই পেরিয়ে পৌছাবেন কাংখিত দামতুয়া ঝর্ণায়।

সাথে যা যা থাকতে হবে

  • ভোটার আইডি কার্ড (1st priority)
  • অন্যথায় কলেজ/ভার্সিটি আই,ডি,কার্ড বা জন্মসনদ/পাসপোর্ট এর ফটোকপি
  • যথেষ্ট পরিমান পলিথিন
  • ট্রেক করার উপযোগী জুতা/সেন্ডেল

থাকার ব্যবস্থা

আলীকদম বাজারে তিনটি থাকার হোটেল রয়েছে। আলীকদম গেস্ট হাউজ, হোটেল দামতুয়া, হোটেল আলীকদম। ভাড়া ৬০০- ২০০০ টাকার মধ্যে। অবশ্যই রুম নেওয়ার আগে ভাড়ার ব্যাপারে কথা বলে নিবেন।

খাওয়া-দাওয়া

আলীকদম বাজারে মোটামুটি সবকিছুই পাবেন। এছাড়া দুপুর বা রাতের খাবারের জন্য বেশ কয়েকটি খাবার হোটেল রয়েছে।

গাইড

আদুপাড়াতে গাইড সমিতি আছে। গাইড ভাড়া পড়বে ১০০০ টাকা। টীম মেম্বার কোন ব্যাপার না, কিন্তু গাইডকে ১০০০ টাকা দিতেই হবে, এটা ফিক্সড। ১৭ কিমি এলাকার দোকাঙ্গুলোর কাছ থেকেও গাইড নিতে পারবেন। খরচ একই।

  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

ঘুরতে যেয়ে পদচিহ্ন ছাড়া কিছু ফেলে আসবো না,
ছবি আর স্মৃতি ছাড়া কিছু নিয়ে আসবো না।।

দেশের স্থানসমূহঃ

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।

Sending

  1. খরচের ব্যাপারটা একটু যোগ করে দিলে খুব ভালো হতো

    আমি আসলে ভ্রমনের নেশায় আক্রান্ত … লেখাটি পড়েই সিদ্ধান্ত নিয়েছি আল্লাহ্‌ বাচালে খুব শীঘ্রই যাবো এখানে … … তবে খরচটা জানতে পারলে ভালো হতো

    আপনার কাছে এই রিভিউ সাহায্যপূর্ণ মনে হয়েছে? হ্যাঁ না

  2. হেঁটে হেঁটে যত ক্লান্তিই অাপনার উপর ভর করুক না কেন কথা দিচ্ছি এই ঝর্ণা আপনার সকল ক্লান্তি এক নিমিষেই দূর করে দিবে, অাপনাকে পুরো সতেজ করে দেবে। এই ঝর্ণায় প্রচুর পানি আছে। এছাড়া যাওয়ার পথে কয়েকটা ঝিরিপথ পার হতে হয়। এই ঝিরিপথ গুলোও অাপনাকে মুগ্ধ করবে এটা নিশ্চিত ভাবে বলা যায়।

    আপনার কাছে এই রিভিউ সাহায্যপূর্ণ মনে হয়েছে? হ্যাঁ না