অষ্টগ্রাম হাওর

Ratings
রেটিংস 0 (0 রিভিউ)

অষ্টগ্রাম উপজেলা একটি হাওর বেষ্টিত যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন উপজেলা। কিশোরগঞ্জ হতে দক্ষিণ-পূর্ব দিকে অষ্টগ্রাম উপজেলার অবস্থান। কিশোরগঞ্জ জেলা সদর হতে অষ্টগ্রামের দূরত্ব প্রায় ৬০ কি: মি:। বিখ্যাত হাকালুকি ও টাঙ্গুয়ার পাশেই এর অবস্থান। কিশোরগঞ্জের ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম এর পুরোটা, নিকলী, তাড়াইলও করিমগঞ্জের কিছু অংশ, নেত্রকোণার খালিয়াজুড়ী, হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ এবং সুনামগঞ্জের কিছু এলাকাজুড়ে এই হাওর বিস্তৃত। বর্ষায় বিস্তীর্ণ এলাকা পানিতে তলিয়ে মহাসাগরের রুপ নেয়। একটানা সাড়ে ৩ ঘন্টা জলপথ পাড়ি দেয়ে দারুন সব সৌন্দর্য-মণ্ডিত জলবেষ্টিত এ জনপদটি।

বর্ষাকালে অষ্টগ্রাম হাওর (Astagram Haor) এ নৌকা ভাসালে মনে হয় অকুল দরিয়া পার হতে যাচ্ছে। কুল নাই কিনার নাই শুধু অশান্ত ঊর্মিমালা উঠানামা করছে বিরামহীন ভাবে। সকালে যখন রক্তলাল সূর্যের উদয় ঘটে তখন মনে হয় ঢেউয়ের ছন্দ দোলায় রক্তিম সূর্য একবার পানির নিচে ডুবছে আবার ভেসে উঠছে। অতি প্রত্যুষে দিগন্ত বিস্তৃত নিস্তব্ধ জলরাশি ভেদ করে চারিদিকে অয়াবীর ছড়িয়ে সূর্য যখন স্বেচ্ছায় তার তেজ সংবরন করে পুর্বদিক থেকে একটি বড় লাল গোলাকৃতি বলের মত লাফিয়ে লাফিয়ে উঠতে থাকে তখন সে দৃশ্য বড়ই চিত্তাকর্ষক।

নৌকাবাইচ

কিশোরগঞ্জের (Kishoreganj) নিকলীতে ঐতিহ্যবাহী নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। নৌকাবাইচকে কেন্দ্র করে উপজেলা সদরসহ পুরো হাওরবাসীর মাঝে থাকে ঊৎসবের আমেজ। ছন্দের তালে তালে মাঝিদের দাড় বেয়ে নৌকা এগিয়ে নেয়ার দৃশ্য উপভোগ করে শিশু, নারী-পুরুষসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার কয়েক লাখ মানুষ। নিকলী ও আশপাশের বেশ কয়েকটি উপজেলাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা বিপুলসংখ্যক লোকজন নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতা দেখতে বেড়িবাঁধ সংলগ্ন সোয়াইজনী নদীর পাড়ে এসে ভিড় জমায়।

অষ্টগ্রাম (Austagram) নেমে বাজারের বাবুলের রেষ্টুরেন্ট এ খাবার খেয়ে চলে যাবেন কুতুব শাহ মসজিদ দেখতে। চারদিকে হাওড় বেষ্টিত যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন উপজেলা অষ্টগ্রামে রয়েছে ৪০০ বছরের পুরুনো কুতুবশাহ মসজিদ। গেলে অবশ্যই দেখে আসবেন সেটা। কিংবা শুধু এ মসজদি দেখতেই যাওয়া যায় অষ্টগ্রাম এ। কিশোরগঞ্জ জেলার অষ্টগ্রাম থানা সদরে অবস্থিত পাচ গম্বুজ বিশিষ্ট এই মসজিদ টি বাংলার সুলতানী ও মোগল স্থাপত্য বৈশিষ্টে্ নির্মিত।মসজিদের নির্মান কাল সম্পর্কে ঐতিহাসিকদের মধ্যে মতবিরোধ দেখা যায়।কেউ কেউ এটাকে ১৬শ শতাব্দীতে নির্মিত বললেও অধিকাংশ ঐতিহাসিকগণ এটা ১৭শ শতাব্দীতে নির্মিত বলে মনে করেন।১৭শ শতাব্দীর প্রথমদিকে নির্মিত বলেই এই মসজিদটিতে সুলতানী ও মোগল স্থাপত্য বৈশিষ্টে পরিলক্ষিত হয়।বিখ্যাত দরবেশ কুতুব শাহ নামনুসারে এই মসজিদটির নাম করণ করা হয়েছে। মসজিদের পাশে এই দরবেশের কবর অবস্থিত।আয়তকার এই মসজিদটি উত্তর-দক্ষিনে ৪৬’-১১” এবং পূর্ব-পশ্চিমে ২৭’-১১”। বাংলার চৌ-চালা ঘরের চেয়েও এর কার্নিশ গুলি অধিক বক্র। এর চার কোনে আট কোন বিশিষ্ট চারটি মিনার রয়েছে।বহির্গাত্রে প্যানেলিং এর কারুকার্য রয়েছে।এর পুর্ব দেয়ালে ৩টি এবং উত্তর-দক্ষিনে ২টি করে ৪টি সর্বমোট ৭টি সুলতানী খিলান যুক্ত প্রবেশপথ রয়েছে।পুর্ব দেয়ালে প্রবেশপথের বিপরীতে পশ্চিম দেয়ালে ৩টি মেহরাব রয়েছে।১৯০৯ ইং সালে সরকার মসজিদটিকে সংরক্ষিত পূরাকীর্তি হিসাবে ঘোষনা করে।

যাওয়ার উপায়

সবচে ভালো হলো ট্রেনে যাওয়া। প্রতিদিন সকাল ৭ টায় এগারসিন্দুর প্রভাতি (বুধবার বন্ধ) ছাড়ে কিশোরগন্জের উদ্দ্যেশ্যে। এতে উঠে কুলিয়ারচর নেমে পড়ুন। ভাড়া ১২০ টাকা। এছাড়া গুলিস্তান ফুলবাড়িয়া থেকে বিআরটিসি বাসে করেও কুলিয়ারচর যাওয়া যায়। ভাড়া ২০০ টাকা। যারা ভৈরব হয়ে যেতে চান তারা ভৈরব নেমে সিএনজিতে করে কুলিয়ারচর যাবেন। শেয়ারে ভাড়া নেবে জনপ্রতি ৪০ টাকা।

কুলিয়ারচর নেমে একটা রিক্সা নিয়ে চলে যান লঞ্চঘাট। এখান থেকে প্রতিদিন সকাল ৬ টা, ৮ টা, ৯ টা, ১১ টা এমনি করে ৩ টা পর্যন্ত লঞ্চ ছেড়ে যায় অষ্টগ্রাম। ভাড়া ১০০ টাকা। সময় লাগবে সাড়ে ৩ ঘন্টা।

আসার সময় বাজিতপুর হয়ে আসতে পারেন। বিআরটিসির এসি বাস পাবেন সারাদিন। ভাড়া ১৮০ টাকা।

হ্যালো

গ্রুপ ট্যুরে গেলে আগে থেকে জানালে ট্রলার নিয়ে হাজির হবে। মাতু মিয়াঃ ০১৯-৩৭৯২৯৯১৪ সোহেলঃ ০১৯-৮৫৬৮৬০৬৬ , ০১৭৬২৩৯২০৫৩ খোকনঃ ০১৭৬-১৮৫১৪৪১
যাওয়া আসা একসাথে ঠিক করে নেবেন। ছোট নৌকার ভাড়া নেবে সাড়ে ৩ থেকে ৪ হাজার। আর ১৫-২০ জন গ্রুপের বড় নৌকা ২ দিনের জন্য নিতে পারে ৪-৬ হাজার টাকা।

কোথায় থাকবেন

প্রথম ও প্রধান জায়গা হলো জেলা পরিষদ ডাক বাংলো। ভাড়া ৩০০-১৫০০ টাকা (রুম ভেদে) । কেয়ারটেকার রন্জন ভাইয়ের সাথে আগে যোগাযোগ করে বুকিং দিয়ে রাখবেন। রান্নার ব্যবস্থাও উনি করবেন। ওনার ফোন নম্বর : ০১৭১-০২৯১২২৫ / ০১৯১৪-৯৭৫৩৮৯

এছাড়া বাজারে দুটি সাধারণ মানের হোটেল আছে ভাড়া ১০০-২০০ টাকা। অথবা নিজেরা টেন্ট নিয়ে ক্যাম্পিং করতে পারেন।

View Direction

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।

Sending