সাতভাইখুম

ভালো লেগেছে
3

আমিয়াখুম ঝর্ণা থেকে সামান্য উপরে উঠলেই শুরু হয় ছোট-বড় অনেক পাথর দিয়ে সাজানো পাথুরে রাস্তা। খুব সাবধানতার সাথে রাস্তাটুকু পার করার পরে সামনে পড়বে বিশাল আকৃতির পাথরের পাহাড় আর তার মাঝে সবুজ, শান্ত, স্বচ্ছ জলধারা। আর এখান থেকে শুরু সাতভাইখুম। এই পথটুকু যেতে হবে বাঁশের ভেলায় করে। অর্থ্যাৎ সাতভাইখুম এর এই জলপথটুকু পাড়ি দিতে ভেলায় চড়তেই হবে। ভেলায় চড়ে যাত্রা শুরুর পরে মনে হবে – হঠাৎ যেন কোন পাথুরে দুর্গে প্রবেশ করলেন। এবার শুধু বাকরুদ্ধ অবাক মুগ্ধ চোখে দেখার পালা আর সেই সাথে অনুভব হবে – দু’পাশের আকাশছোঁয়া পাথরের পাহাড় যেন গাম্ভীর্য নিয়ে আপনাকে স্বাগত জানাচ্ছে। সবুজ অরণ্য তাদের রাজ্যে আপনাকে আলিঙ্গন করে স্বাগতম জানাচ্ছে আর সবুজ টলটলে জলপথ যেন সংবর্ধনা দিচ্ছে আপনাকে। সাতভাইখুম (Satvaikhum) এর রুপ-সৌন্দর্যের বিবরন দিতে সকল উপমা ব্যবহার করলেও হয়তো এর সৌন্দর্য বর্ণনায় শব্দের কমতি হবে। সাতভাইখুমের সবুজ অরন্য, জলপাথরের গিরিপথ আর পাথুরে পাহাড়ী রাজ্য থেকে ফেরার পথে আপনার সঙ্গী হবে অনেক দুরন্ত, দুর্গম আর ভয়ানক রোমাঞ্চকর ভ্রমনের দারুন এক অনুভুতি।

সাতভাইখুম বলতে আপনাকে বাঁশের ভেলায় করে দুই পাথরের পাহাড়ের মাঝখানের সরু জলধারায় ঘুরিয়ে নিয়ে আসবে। যাওয়া আসায় ৫০ মিনিট মত লাগে। এখানের সবুজ টলমলে পানি দেখে নামতে ইচ্ছে হতে পারে কিন্তু না নামাই শ্রেয়। এখানে পানির গভীরতা অনেক।

যাওয়ার উপায়

বান্দরবানে পৌঁছে সোজা চলে যাবেন থানচিতে। সেখান থেকে নৌকা নিয়ে থামবেন রেমাক্রিতে। এরপর আর কোনো গাড়ি যাবে না, পায়ের ওপরে ছেড়ে দিতে হবে শহুরে হাওয়ায় পেলে পুষে বড় করা শরীরটাকে। চলতি পথে নাফাখুম পড়বে, সেখান থেকে যেতে হবে জিন্নাপাড়া। সেখানে রাতে থেকে পরদিন খুব ভোরে আমিয়াখুম আর সাতভাইখুম এর দিকে হাঁটা দেবেন। সঙ্গে করে রশি, লাইফ জ্যাকেট আর খাবার নিয়ে যাবেন। ফিরে আসার পথে পদ্মমুখ রাস্তা দিয়ে ফেরত আসতে পারেন। সেক্ষেত্রে মাত্র পাঁচ ঘণ্টা হেঁটে অনেক আগেই আপনি থানচিতে পৌঁছাতে পারবেন।

খরচ

আমিয়াখুম, সাতভাইখুম ও ভেলাখুম ভালোভাবে ঘুরে আসতে চার দিন লেগে যাবে। শুধু থানচি থেকে সব ঘুরে আবার থানচিতে ফেরত আসতে মাথাপিছু মোট খরচ হবে সাড়ে চার হাজার থেকে পাঁচ হাজার টাকার মত। এই জায়গা অনেক দুর্গম তাই ভারী জিনস আর ট্রলি ব্যাগ না নিয়ে যাওয়াই ভালো।

×

করোনা (COVID-19) ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে যা করনীয়ঃ

  • সবসময় হাত পরিষ্কার রাখুন। সাবান দিয়ে অন্তত পক্ষে ২০ সেকেন্ড যাবত হাত ধুতে হবে।
  • সাবান না থাকলে হেক্সিসল ব্যবহার করুন। হেক্সিসল না থাকলে হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন, যতটুকু সম্ভব ভীড় এড়িয়ে চলুন।
  • বাজারে কিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন, করলে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • টাকা গোনা ও লেনদেনের পর হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ওভার ব্রিজ ও সিড়ির রেলিং ধরে ওঠা থেকে বিরত থাকুন।
  • পাবলিক প্লেসে দরজার হাতল, পানির কল স্পর্শ করতে টিস্যু ব্যবহার করুন।
  • হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।
  • নাক, মুখ ও চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন।
  • হাঁচি কাশির সময় কনুই ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়ে থাকেন তবে মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক নয় তবে আক্রান্ত হলে সংক্রমণ না ছড়াতে নিজে মাস্ক ব্যবহার করুন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকুন। Stay Home, Stay Safe.

দিক নির্দেশনা

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।