সাইরু হিল রিসোর্ট

ভালো লেগেছে
0
Ratings
রেটিংস ( রিভিউ)

সৌন্দর্যের দিক থেকে প্রথম সারিতে থাকা একটি অনিন্দ্য সুন্দর আর মনোরম রিসোর্ট – সাইরু হিল রিসোর্ট। বান্দরবান শহর হতে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এটি। সাইরু রিসোর্ট সম্ভবত বান্দরবানের সবচেয়ে এক্সপেন্সিভ রিসোর্ট। তবে অসম্ভব রকম সুন্দর একটা জায়গা সাইরু। এটি দেখে মনপ্রাণ জুড়োবে বেরসিক মানুষেরও। পাহাড়, নদী, আকাশ, মেঘ আর নান্দনিক ভঙ্গিমায় সাজানো গোছানো এই রিসোর্টটি একইসঙ্গে চোখ আর মনের প্রশান্তি এনে দেয়। কোনও এক প্রেমপিয়াসী পাহাড়ি কন্যার নাম থেকেই নাকি এই রিসোর্ট (Sairu Hill Resort) এর নামকরণ। এই রিসোর্টে প্রতিটি মুহূর্ত করে তোলে অনন্য উপভোগ্য।

সাইরু হিল রিসোর্ট এর রুম ভাড়া

room rent of sairu hill resort
সাইরু হিল রিসোর্টের রুম ভাড়া

কখন যাবেন

শরৎকাল হলো সাইরু ভ্রমণের জন্যে সবচেয়ে ভালো সময়। কিন্তু যারা মেঘ ভালোবাসেন তাদের জন্যে বর্ষাকাল হতে পারে সেরা সময়।

কিভাবে যাবেন

ঢাকা থেকে বান্দরবানের বাসে সরাসরি বান্দরবান বাসস্ট্যান্ড। বান্দরবান থেকে চিম্বুক পাহাড়ে যাওয়ার পথে সাইরু হিল রিসোর্ট। তাই বাসস্ট্যান্ড থেকে চান্দের গাড়ি কিংবা সিএনজি করে যাওয়া যেতে পারে।

যোগাযোগ

ই-মেইলঃ info@sairuresort.com

ঢাকা অফিস এর ফোন নাম্বার +8801531-411111, +8801531-422222
বান্দরবান অফিসের ফোন নাম্বার – +8801531-433333
ম্যানেজার এর ফোন নাম্বার – +8801531-477777

দিক নির্দেশনা

ঘুরতে যেয়ে পদচিহ্ন ছাড়া কিছু ফেলে আসবো না,
ছবি আর স্মৃতি ছাড়া কিছু নিয়ে আসবো না।।

দেশের স্থানসমূহঃ

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।

Sending

  1. রিসোর্ট টি অনেক বিস্তীর্ণ জায়গায় পাহাড়ের মধ্যে তৈরী। কটেজে গুলো পাহাড়ের বিভিন্ন উচ্চতায় অবস্থিত। নৈসর্গিক পরিবেশ অনেক সুন্দর, পাহাড় আর প্রকৃতির মধ্যে থাকার জন্য অসাধারণ সুন্দর জায়গা। ৪ তারকা মানের থাকার অভিজ্ঞতা পাবেন।

    বান্দরবান শহর থেকে প্রায় ১৮ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত, পাহাড়ি পথে যেতে হবে, রাস্তার অবস্থা মোটেও ভালো না। ২০১৮ জানুয়ারিতে গিয়েছি গাড়ি নিয়ে, রাস্তা জায়গায় জায়গায় ভাঙা। তাই অনেক সময় লেগেছে। কটেজে গুলোর ভাড়া অত্যন্ত বেশি, একটা মাত্র রেস্টুরেন্ট আছে রিসোর্ট এর মাঝে যার খাবার মান সন্তোষ জনক নয়, তার উপর অতিমূল্যের জন্য মেজাজ খারাপ হবে। আপনার আশে পাশে ১৪ কিলোমিটারের মধ্যে আর কোনো মানসম্পন্ন খাবারের আশা করা উচিত হবে না।

    রুম গুলো বাঁশ ও কাঠের তৈরী অনেক সুন্দর ও সকল আধুনিক সুবিধা সম্বলিত। রুমের ভেতরকার সজ্জা অত্যন্ত প্রতি টা লেভেলে ৪ টা কটেজে যার ২ টা রুম পাশাপাশি একটা দেয়াল দিয়ে পৃথক করা। রুমের একটা বড়ো সমস্যা হলো পাশাপাশি রুমের সব শব্দ শোনা যায়। দিনের বেলাতেও পাশের রুমের সব কথা স্পষ্ট শোনা যায়। রুমের এই ব্যাপার টি আপনাকে নিঃসন্দেহে হতাশ করবে।

    সন্ধ্যার পর বসে থাকা ছাড়া কিছুই করার নেই, তাই লম্বা সময় থাকাটা বোরিং মনে হবে।

    আপনার কাছে এই রিভিউ সাহায্যপূর্ণ মনে হয়েছে? হ্যাঁ না