গুলিয়াখালী সমুদ্র সৈকত

গুলিয়াখালী সমুদ্র সৈকত

গুলিয়াখালী সমুদ্র সৈকত (Guliakhali Sea Beach) চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ড উপজেলায় অবস্থিত। স্থানীয় মানুষের কাছে এই সৈকত মুরাদপুর বীচ নামে পরিচিত। সীতাকুণ্ড বাজার থেকে গুলিয়াখালি সি বীচের দূরত্ব মাত্র ৫ কিলোমিটার। অনিন্দ্য সুন্দর গুলিয়াখালি সী বিচ কে সাজাতে প্রকৃতি কোন কার্পন্য করেনি। একদিকে দিগন্তজোড়া সাগর জলরাশি আর অন্য দিকে কেওড়া বন এই সাগর … বিস্তারিত

কুসুম্বা মসজিদ

কুসুম্বা মসজিদ

পাঁচ টাকা নোটে অঙ্কিত সাড়ে চারশ’ বছরের অধিক কাল পূর্বে নির্মিত মসজিদ হল কুসুম্বা মসজিদ। মসজিদটি নওগাঁ জেলার মান্দা থানার কুসুম্বা গ্রামের একটি প্রাচীন মসজিদ। কুসুম্বা দিঘির পশ্চিম পাড়ে, পাথরের তৈরি ধুসর বর্ণের মসজিদটি অবস্থিত। মসজিদের প্রবেশদ্বারে বসানো ফলকে মসজিদের নির্মাণকাল লেখা রয়েছে হিজরি ৯৬৬ সাল (১৫৫৪-১৫৬০ খ্রিস্টাব্দ)। আফগানী … বিস্তারিত

চিলড্রেন্স পার্ক

চুকু লুপি চিলড্রেন্স পার্ক

চিলড্রেন্স পার্কটি বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী ভারতের মেঘালয় রাজ্যঘেঁষা শেরপুর জেলার গারো পাহাড় এলাকার গজনী অবকাশ কেন্দ্রে অবস্থিত। পাহাড়ে যাদের ঘুরতে ভালো লাগে, তাদের জন্য এটি সুখবরই বলা যায়। বন-বৃক্ষের ছায়াঘেরা নাম না জানা অসংখ্য পাখ-পাখালির কলতান, গারো, কোচ, হাজং, ডালু, বানাই সম্প্রদায়ের সংস্কৃতি বেষ্টিত পাহাড়ের … বিস্তারিত

মল্লিকপুর এর বটগাছ

মল্লিকপুর এর বটগাছ

এশিয়ার বৃহত্তম এবং প্রাচীন বটগাছটি কালীগঞ্জ শহর হতে ১০ কিলোমিটার পূর্বে মালিয়াট ইউনিয়নের বেথুলী মৌজায় অবস্থিত যা ঝিনাইদহ জেলা সদর হতে দুরত্ব ২৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। বটগাছটি বর্তমানে ১১ একর জমি জুড়ে বিদ্যমান। সুইতলা – মল্লিকপুর এর বটগাছ নামে এটি বিশেষভাবে পরিচিত। গাছটি দুইশো বছরের পুরনো। রাস্তার ধারে ডাল পাতায় পরিপূর্ণ গাছটি … বিস্তারিত

গুরুদুয়ারা নানকশাহী

গুরুদুয়ারা নানকশাহী

ঢাকার গুরুদুয়ারা নানকশাহী বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা শহরে অবস্থিত একটি শিখ ধর্মের উপাসনালয়। এটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর ক্যাম্পাসের কলাভবনের পাশে অবস্থিত। এই গুরুদুয়ারাটি বাংলাদেশে সবকটি গুরুদুয়ারার মধ্যে বৃহত্তম। কথিত আছে যে, ঢাকার এই গুরুদুয়ারাটি যেখানে অবস্থিত, সেই স্থানে ষোড়শ শতকে শিখ ধর্মের প্রবর্তক গুরু নানক … বিস্তারিত

সাইরু হিল রিসোর্ট

সাইরু হিল রিসোর্ট

সৌন্দর্যের দিক থেকে প্রথম সারিতে থাকা একটি অনিন্দ্য সুন্দর আর মনোরম রিসোর্ট – সাইরু হিল রিসোর্ট। বান্দরবান শহর হতে প্রায় ২০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এটি। সাইরু রিসোর্ট সম্ভবত বান্দরবানের সবচেয়ে এক্সপেন্সিভ রিসোর্ট। তবে অসম্ভব রকম সুন্দর একটা জায়গা সাইরু। এটি দেখে মনপ্রাণ জুড়োবে বেরসিক মানুষেরও। … বিস্তারিত

জোড়বাংলা মসজিদ, ঝিনাইদহ

জোড়বাংলা মসজিদ

জোড়বাংলা মসজিদ ঝিনাইদহ জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার বারোবাজার মৌজায় অবস্থিত। জোড়বাংলা নামকরণ সম্পর্কে সঠিক কোন তথ্য নেই, তবে প্রচলিত মতে ঐ স্থানে এক জোড়া কুড়ে ঘর ছিল। সে কারনেই নামকরণ করা হয় জোড়বাংলা। আবার কারো কারো মতে এখানে জোড়া দিঘি ছিল। যার কারনে জোড়বাংলা নামকরণ হয়েছে। সম্ভবত ৮০০ হিজরিতে আলাউদ্দিন হুসাইন শাহের … বিস্তারিত

খেজুরতলা বীচ

খেজুরতলা বীচ

চট্রগ্রাম শহরে যে কয়টি সুন্দর বীচ আছে তার মধ্যে সৌন্দর্যয়ের দিক দিয়ে যদি তুলনা করা যায় তাহলে খেজুরতলা অন্যতম। আপনি যদি একবার যান তাহলেই বুঝতে পারবেন কেন এটি সুন্দর? সত্যিকারের সৌন্দর্য দেখতে হলে যেতে হবে খুব ভোরবেলা/পড়ন্ত বিকেলে। বিকেলের দিকে বীচের সৌন্দর্য দেখার মতো! সহজেই কম খরচে যাতায়াতযোগ্য খেজুরতলা বীচ (Khejurtola Sea Beach) এ আপনি একই সাথে … বিস্তারিত

বলিহার রাজবাড়ি

নওগাঁ সদর উপজেলার বলিহার ইউনিয়নের নওগাঁ-রাজশাহী সড়কের পশ্চিমে অবস্থিত প্রাচীনতম ঐতিহ্যবাহী বলিহার রাজবাড়ি। নওগাঁ জেলা শহর থেকে ১৮ কিলোমিটার পশ্চিমে বলিহার ইউনিয়নের কুড়মইল মৌজায় বলিহার রাজবাড়ি অবস্থিত। দেশ বিভাগের সময়কালে বলিহারের রাজা ছিলেন বিমেলেন্দু রায়। দেশ বিভাগের সময় জমিদারী প্রথা বিলুপ্ত হলে বলিহারের রাজা বিমেলেন্দু … বিস্তারিত

লামা, বান্দরবান

লামা

বান্দরবান জেলার লামা সবার কাছেই যেন একটা স্বর্গ রাজ্য। ১১টি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর বসবাস স্থল লামা যে কোন ভ্রমণ পিপাসু মানুষের মন কাঁড়বে। এখানে দেখে মুগ্ধ হবার মত আছে অনেক কিছুই। চকরিয়া থেকে লামা যাওয়ার রাস্তা হলো এর শুরুর আকর্ষন। লামার রাস্তায় প্রবেশ … বিস্তারিত

মায়াদ্বীপ, নারায়ণগঞ্জ

মায়াদ্বীপ

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার বারদী ইউনিয়নের মেঘনা নদীবেষ্টিত দুর্গম চরাঞ্চল মায়াদ্বীপ। অবিনাশী মেঘনা নদীর ঠিক মাঝখানে জেগে ওঠা একটা ত্রিভুজ আকৃতির চর। দ্বীপটা বেশি একটা বড় না তবে চারিপাশে শুধু সবুজ আর সবুজ। সবুজ দ্বীপের ত্রিভুজের ঠিক মাথায় দাঁড়িয়ে আকাশ পানে চোখ বন্ধ … বিস্তারিত

চর আলেকজান্ডার

চর আলেকজান্ডার

নোয়াখালী এর সোনাপুর সদর থেকে প্রায় ৪০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত আলেকজান্ডার চর। একসময় শুধু চর বলেই পরিচিত ছিল এটি। তবে যান্ত্রিক জীবনের সঙ্গে প্রতিনিয়ত লড়াই করা মানুষগুলোর ভ্রমণ পিপাসা মেটাতে এটি এখন আপাদমস্তক পর্যটনকেন্দ্রই বলা চলে। চারদিকে সবুজ বিস্তৃত মাঠ। মানুষের কোলাহল নেই বললেই চলে। একটু সামনেই বেঁড়িবাঁধ। এই বাঁধের … বিস্তারিত