শাহ মখদুম মাজার

জন
১১ মিনিটস
জন

শাহ মখদুম মাজার (Shah Makhdum Mazar) বাংলাদেশের রাজশাহী শহরে অবস্থিত একটি গুরুত্বপূর্ণ ইসলামিক পবিত্র স্থান। এটি বিখ্যাত সুফি সাধক হযরত শাহ মখদুম (শাহ সুলতান মখদুম রূপস নামেও পরিচিত) এর শেষ বিশ্রামস্থল, যাকে বাংলার ইসলামের ইতিহাসে সবচেয়ে শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

হযরত শাহ মখদুম ২রা রজব,৬১৫ হিজিরী মোতাবেক ১২১৬ খ্রিস্টাব্দ বাগদাদে  জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন হযরত আলী (রা ) -এর বংশধর এবং পণ্ডিত ও ধার্মিক ব্যক্তিদের পরিবারে বেড়ে ওঠেন। শাহ মখদুমের প্রকৃত নাম আব্দুল কুদ্দুস। অল্প বয়সে, তিনি কুরআন এবং নবীর ঐতিহ্য অধ্যয়ন শুরু করেন এবং শীঘ্রই ইসলামী শিক্ষার গভীর উপলব্ধি এবং তার আধ্যাত্মিক অন্তর্দৃষ্টির জন্য পরিচিত হন।

লেখাপড়া শেষ করে হযরত শাহ মখদুম ইসলামের বাণী প্রচারের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। তিনি বর্তমান বাংলাদেশ, ভারত এবং পাকিস্তান সহ সমগ্র ভারতীয় উপমহাদেশ জুড়ে ব্যাপকভাবে ভ্রমণ করেন এবং পথে অনেক মসজিদ ও ইসলামিক কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি তার অলৌকিক ক্ষমতার জন্যও পরিচিত, যার মধ্যে রয়েছে অসুস্থদের নিরাময় করার ক্ষমতা । এছাড়াও কথিত আছে তিনি কুমিরের পিঠে চড়ে নদী পার হতেন। তার অলৌকিক শক্তিতে শুধুমাত্র কুমির নয় বরং বনের বাঘ ও নাকি তার আনুগত্য ছিলো। তিনি যেই কুমিরের পিঠে চরে নদী পার হতেন সেই কুমিরটির কবর তার কবরের পাশেই রয়েছে। 

হযরত শাহ মখদুম ১৩ শতকের মাঝামাঝি রাজশাহীতে বসতি স্থাপন করেন এবং সেখানে তাঁর বাকি জীবন কাটিয়ে দেন, ইসলামের শিক্ষা ও প্রচার করেন। তিনি 1259 খ্রিস্টাব্দে মারা যান এবং একই শহরে তাকে সমাহিত করা হয়।

বর্তমানে, শাহ মখদুম মাজার সারা বিশ্বের মুসলমানদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ তীর্থস্থান। কমপ্লেক্সে একটি বড় মসজিদ, একটি মাদ্রাসা এবং একটি সমাধি রয়েছে, যেখানে হযরত শাহ মখদুমের সমাধি রয়েছে। সাইটটি তার সুন্দর স্থাপত্য এবং শান্তিপূর্ণ পরিবেশের জন্য পরিচিত, এবং প্রতি বছর হাজার হাজার ভক্তরা পরিদর্শন করেন।

শাহ মখদুম মাজার শুধুমাত্র একটি গুরুত্বপূর্ণ ধর্মীয় স্থানই নয়, এটি রাজশাহী ও সমগ্র বাংলাদেশের সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যেরও প্রতীক। এটি হজরত শাহ মখদুমের স্থায়ী উত্তরাধিকার এবং এই অঞ্চলে ইসলামের প্রসারে তাঁর অবদানের স্মারক হিসাবে কাজ করে।

শাহ মখদুম এর বংশপরিচয়

হযরত শাহ মখদুম রূপোশ হযরত আলী এর বংশধর ছিলেন। বড়পীর হযরত আব্দুর কাদির জিলানী তার আপন দাদা। শাহ মখদুমের বংশ তালিকা নিম্নরূপ –

  1. হযরত আলী
  2. হজরত হাসান (রাঃ)
  3. হাসান আল মাসনা
  4. আব্দুল্লাহ আলা মাহাজ
  5. সায়্যিদ মূসা আল জওন
  6. সায়্যিদ আব্দুল্লাহ সানী
  7. মূসা সানি
  8. সায়্যিদ দাউদ
  9. সায়্যিদ মোহাম্মাদ
  10. সায়্যিদ ইয়াহিয়া আল জায়েদ
  11. সায়্যিদ আবি আব্দুল্লাহ
  12. সায়্যিদ আবু সালেহ মূসা জঙ্গী
  13. সায়্যিদ আব্দুল কাদের জিলানী
  14. সায়্যিদ আযাল্লাহ শাহ
  15. সায়্যিদ আব্দুল কুদ্দুস শাহ মখদুম রূপোশ

বাল্যকাল এবং প্রাথমিক শিক্ষালাভ

শাহ মখদুমের বাল্যকাল কাটে বাগদাদ নগরে। জ্ঞানচর্চার হাতে-খড়ি হয় তার পিতা আযাল্লাহ শাহের মাধ্যমে।আযাল্লাহ শাহ তৎকালীন সময়ের একজন বিশিষ্ট আলেম এবং ধার্মিক হিসেবে বিখ্যাত ছিলেন। সুফী জ্ঞানে তার অগাধ পান্ডিত্য ছিল। শিশু বয়সেই তিনি তার পুত্র আব্দুল কুদ্দুস শাহ মখদুমকে আব্দুল কাদের জিলানী প্রতিষ্ঠিত কাদেরিয়া মাদ্রাসায় ভর্তি করিয়ে দেন। কিছুদিনের মধ্যেই শাহ মখদুমের তীক্ষ্ণ মেধার পরিচয় পাওয়া যায়। অল্প বয়সেই তিনি কুরআন, হাদিস, ফিকহ, আরবী ভাষা ও ব্যাকরণ, সুফিতত্ত্ব ইত্যাদি বিষয়ে জ্ঞান লাভ করে ফেলেন। কিন্তু কিছুদিন পর, যখন শাহ মখদুম কৈশোরকালীন সময়ে ছিলেন, তখন তার পিতা শাসকদের রোষানলে পড়েন এবং স্বপরিবারে বাগদাদ ছাড়তে বাধ্য হন। অন্যদিকে তাতারীদের আক্রমণে আব্বাসীয় সাম্রাজ্যের লন্ডভন্ড অবস্থা। সমস্ত সাম্রাজ্য তারা ধ্বংস করতে থাকে। ১২৫৮ সালে তাতারীদের হাতে বাগদাদ নগরীর পতন ঘটে ।বাগদাদ নগরীর পতন হওয়ার আগেই পিতা আযাল্লাহ শাহের সাথে শাহ মখদুম বাগদাদ ত্যাগ করে ভারতের দিকে রওয়া হন।

রাজশাহীতে শাহ মখদুম

রাজশাহীতে অবস্থিত শাহ মখদুমের মাজারের প্রধান ফটক। নোয়াখালী থেকে নৌপথে শাহ মখদুম রূপোশ রাজশাহীর বাঘা উপজেলায় এসে অবতরণ করেন। বাঘায় পদ্মা নদী থেকে ২ কিলোমিটার দূরে তিনি বসতি স্থাপন করেন এবং এ অঞ্চলের সামাজিক এবং রাজনৈতিক অবস্থার ওপর গভীর ভাবে পর্যবেক্ষণ শুরু করেন। রাজশাহী তখন মহাকালগড় নামে পরিচিত ছিলো। মহাকালগড় শাসন করতেন তৎকালীন সামন্তরাজ কাপলিক তন্ত্রে বিশ্বাসী দুই ভাই। তাদের একজনের নাম হলো আংশুদেও খেজ্জুর চান্দভন্ডীও বর্মভোজ এবং অপর ভাই হলেন আংশুদেও খেজ্জুর চান্দখড়্গ গুজ্জভোজ। এই দুই ভাইয়ের অত্যাচারী শাসন ব্যবস্থায় জনগণ অতিষ্ঠ হয়ে উঠে। সেই সময় রাজশাহী বা মহাকালগড় অঞ্চলে নরবলী দেওয়ার প্রচলন ছিলো। জনগণ এই প্রথার বিরুদ্ধেও প্রতিবাদী চেতনা লালন করতো। সর্বোপরি প্রশাসনিক ব্যবস্থা ছিলো একদম দুর্বল। শাহ মখদুম শাসকের এই দুর্বলতা কে উপলব্ধি করে যুদ্ধ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। তিনি একই সাথে নৌবাহিনী, অশ্বারোহী বাহিনী এবং পদাতিক বাহিনীর জন্য লোকবল সংগ্রহ করে প্রশিক্ষণ দিতে শুরু করেন। অল্প সময়ের মধ্যে তার বাহিনী অপরাজেয় শক্তির অধিকারী হয়ে উঠে। সেখানে তিনি একটি ছোট কেল্লাও নির্মাণ করেছিলেন। এদিকে শাসকচক্র এসব সংবাদ পেয়ে পাল্টা বাহিনী গঠন করেন। ফলে যুদ্ধ অবশ্যম্ভাবী হয়ে উঠে।

শাহ মখদুম মাজারে যাওয়ার উপায়

শাহ মখদুম মাজার বাংলাদেশের রাজশাহীতে অবস্থিত এবং বিভিন্ন পরিবহনের মাধ্যমে সহজেই এখানে প্রবেশ করা যায়।

আকাশ পথে

রাজশাহীর নিকটতম বিমানবন্দর হল শাহ মখদুম বিমানবন্দর, যা মাজার থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। বিমানবন্দর থেকে, আপনি একটি ট্যাক্সি ভাড়া করতে পারেন বা একটি স্থানীয় বাস নিতে পারেন।

ট্রেনে

রাজশাহী বাংলাদেশের অন্যান্য প্রধান শহরগুলির সাথে ট্রেন দ্বারা ভালভাবে সংযুক্ত। ঢাকা, চট্টগ্রাম এবং অন্যান্য বড় শহর থেকে রাজশাহীতে নিয়মিত ট্রেন সার্ভিস রয়েছে। রাজশাহী রেলস্টেশন থেকে লোকাল বাস বা ট্যাক্সিতে করে মাজারে যেতে পারেন।

বাসে করে

বাংলাদেশের সব বড় শহর থেকে রাজশাহীতে নিয়মিত বাস সার্ভিস রয়েছে। রাজশাহী বাস টার্মিনাল থেকে লোকাল বাস বা ট্যাক্সিতে করে মাজারে যেতে পারেন।

স্থানীয় পরিবহন

একবার আপনি রাজশাহী পৌঁছে, আপনি শাহ মখদুম মাজারে পৌঁছানোর জন্য একটি ট্যাক্সি, অটো-রিকশা বা একটি লোকাল বাস ভাড়া করতে পারেন। মাজারটি শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত এবং স্থানীয় পরিবহনের যেকোনো উপায়ে সহজেই যাওয়া যায়।

সপ্তাহান্তে এবং সরকারি ছুটির দিনে শাহ মখদুম মাজারে বেশি ভিড় হওয়ার কারণে সপ্তাহের বাকি দিনগুলিতে আপনি চাইলে ভ্রমণের পরিকল্পনা করতে পারেন । এছাড়াও, মাজারে প্রবেশের আগে বিনয়ী পোশাক পরতে এবং জুতা খুলে ফেলতে ভুলবেন না।

কোথায় থাকবেন

শাহ মখদুম মাজার পরিদর্শন করার সময় থাকার জন্য বিভিন্ন বিকল্প ব্যবস্থা রয়েছে। কিছু জনপ্রিয় বিকল্প ব্যবস্থা হল:

  • হোটেল নাইস ইন্টারন্যাশনাল: শাহ মখদুম মাজারের হাঁটা দূরত্বের মধ্যে অবস্থিত এটি একটি বাজেট-বান্ধব হোটেল। হোটেলটি এয়ার কন্ডিশনার, ওয়াই-ফাই এবং কেবল টিভির মতো মৌলিক সুবিধা সহ পরিষ্কার এবং আরামদায়ক কক্ষ অফার করে।
  • হোটেল মুক্তা ইন্টারন্যাশনাল: এটি মাজার থেকে মাত্র কয়েক কিলোমিটার দূরে শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত একটি মধ্য-পরিসরের হোটেল। হোটেলটি শীতাতপনিয়ন্ত্রণ, ফ্ল্যাট-স্ক্রিন টিভি এবং ওয়াই-ফাই-এর মতো আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সহ সুনিয়ন্ত্রিত কক্ষ অফার করে।
  • হোটেল মিডটাউন: এটি একটি বাজেট-বান্ধব হোটেল যা মাজার থেকে প্রায় 4 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। হোটেলটি এয়ার কন্ডিশনার, ওয়াই-ফাই এবং কেবল টিভির মতো মৌলিক সুবিধা সহ পরিষ্কার এবং আরামদায়ক কক্ষ অফার করে।
  • হোটেল স্টার ইন্টারন্যাশনাল: এটি শাহ মখদুম মাজারের হাঁটা দূরত্বের মধ্যে অবস্থিত একটি মধ্য-পরিসরের হোটেল। হোটেলটি শীতাতপনিয়ন্ত্রণ, ফ্ল্যাট-স্ক্রিন টিভি এবং ওয়াই-ফাই-এর মতো আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সহ সুনিয়ন্ত্রিত কক্ষ অফার করে।

রাজশাহীতে শাহ মখদুম মাজার পরিদর্শন করার সময় থাকার জন্য অনেকগুলি বিকল্প ব্যবস্থার মধ্যে এগুলি কয়েকটি। শেষ মুহূর্তের ঝামেলা এড়াতে, বিশেষ করে পিক সিজনে আপনার বাসস্থান আগে থেকেই বুক করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

কোথায় খাবেন

শাহ মখদুম মাজারে যাওয়ার সময় খাওয়ার জন্য বিভিন্ন বিকল্প ব্যবস্থা রয়েছে। কিছু জনপ্রিয় বিকল্প ব্যবস্থা  হল:

  • দিঘি বিরিয়ানি: এটি শাহ মখদুম মাজারের কাছে অবস্থিত একটি বিখ্যাত স্থানীয় বিরিয়ানি রেস্তোরাঁ। রেস্তোরাঁটি তার সুস্বাদু বিরিয়ানি এবং অন্যান্য স্থানীয় খাবারের জন্য পরিচিত।
  • ক্যাফে আল-বদর: এটি মাজারের কাছে অবস্থিত একটি জনপ্রিয় ক্যাফে। ক্যাফেটি বিভিন্ন ধরণের স্ন্যাকস, চা এবং কফি পরিবেশন করে।
  • রাব্বানী হোটেল এবং রেস্তোরাঁ: এটি একটি স্থানীয় রেস্তোরাঁ যা মাজারের হাঁটা দূরত্বের মধ্যে অবস্থিত। রেস্তোরাঁটি বিরিয়ানি, কাবাব এবং তরকারি সহ বিভিন্ন স্থানীয় খাবার পরিবেশন করে।
  • গ্র্যান্ড সুলতান টি রিসোর্ট এবং গলফ: এটি শাহ মখদুম মাজার থেকে প্রায় 30 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত একটি বিলাসবহুল রিসোর্ট। রিসর্টে স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক খাবার পরিবেশনকারী একটি রেস্তোরাঁ, একটি ক্যাফে এবং একটি বার সহ বেশ কয়েকটি খাবারের বিকল্প রয়েছে।
  • স্ট্রিট ফুড স্টল: শাহ মখদুম মাজারের কাছে বেশ কয়েকটি স্ট্রিট ফুড স্টল রয়েছে, যেখানে বিভিন্ন ধরনের স্থানীয় স্ন্যাকস এবং খাবার যেমন সামোসা, চাট এবং জিলাপি পরিবেশন করা হয়।
  • শাহ মখদুম মাজার পরিদর্শন করার সময় খাওয়ার জন্য অনেকগুলি বিকল্প ব্যবস্থার মধ্যে এটি কয়েকটি। আপনি চাইলে স্থানীয় সংস্কৃতির স্বাদ পেতে স্থানীয় রন্ধনপ্রণালী এবং সুস্বাদু খাবারগুলি অবশ্যই চেষ্টা করে দেখবেন বলে আমরা আশা করি।

ভ্রমণের উপযুক্ত সময়

  • শাহ মখদুম মাজার পরিদর্শনের সর্বোত্তম সময় নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত শীতের মাস। এই সময়ে, আবহাওয়া মনোরম এবং আরামদায়ক, তাপমাত্রা 15°C থেকে 25°C এর মধ্যে থাকে, যা এটিকে দর্শনীয় স্থান এবং শহরটি ঘুরে দেখার জন্য একটি আদর্শ সময়।
  • মার্চ থেকে মে গ্রীষ্মের মাসগুলি গরম এবং আর্দ্র হতে পারে, তাপমাত্রা 40 ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত বেড়ে যায়, এই তাপমাত্রা ভ্রমণের জন্য জন্য অস্বস্তিকর হতে পারে। জুন থেকে অক্টোবর পর্যন্ত বর্ষা মৌসুমে ভারী বৃষ্টিপাত এবং মাঝে মাঝে বন্যা হয়, যা ভ্রমণ পরিকল্পনা ব্যাহত করতে পারে।
  • এছাড়াও, শাহ মখদুম মাজার পরিদর্শনের পরিকল্পনা করার সময় স্থানীয় অনুষ্ঠান এবং উত্সবগুলি বিবেচনা করা গুরুত্বপূর্ণ। বার্ষিক উরস মোবারক, যা শাহ মখদুমের মৃত্যুবার্ষিকীকে চিহ্নিত করে, এটি একটি প্রধান অনুষ্ঠান এবং সারা বাংলাদেশ এবং প্রতিবেশী দেশ থেকে বিপুল সংখ্যক ভক্তকে আকর্ষণ করে। উরস সাধারণত ইসলামী রজব মাসের ২৭ তারিখ অনুষ্ঠিত হয়, যা মার্চ থেকে এপ্রিলের মধ্যে পড়ে এবং তিন দিন ধরে চলে।
  • একটি মনোরম এবং ঝামেলামুক্ত অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করতে শাহ মখদুম মাজারে যাওয়ার পরিকল্পনা করার আগে আবহাওয়ার পূর্বাভাস এবং স্থানীয় ইভেন্ট ক্যালেন্ডার অবশ্যই পরীক্ষা করে নিবেন। যাতে আপনার ভ্রমণটি আরো সুন্দর হয়

আশে পাশের দর্শনীয় স্থান

শাহ মখদুম মাজারের কাছে বেশ কয়েকটি দর্শনীয় স্থান রয়েছে। আপনার হাতে যদি পর্যাপ্ত সময় থাকে তাহলে অবশ্যই এই সব র্যটন কেন্দ্র ও ঘুড়ে আসার আমন্ত্রন রইলো।  

  • বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘর: এই জাদুঘরটি রাজশাহী শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত এবং এখানে পাল, গুপ্ত ও সেন রাজবংশের প্রাচীন নিদর্শন, ভাস্কর্য, মুদ্রা এবং পাণ্ডুলিপির বিশাল সংগ্রহ রয়েছে।
  • বাঘা মসজিদ: এই মসজিদটি শাহ মখদুম মাজার থেকে প্রায় 25 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এবং এটি বাংলার প্রাথমিক ইসলামিক স্থাপত্যের একটি চমৎকার উদাহরণ। মসজিদটিতে পোড়ামাটির অলঙ্করণ এবং পাথরের খোদাই রয়েছে এবং এটি 15 শতকে নির্মিত বলে মনে করা হয়।
  • পাহাড়পুর বৌদ্ধ মঠ: এই ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইটটি শাহ মখদুম মাজার থেকে প্রায় 75 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এবং এটি দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান হিসেবে বিবেচিত। মঠটি 8 ম শতাব্দীর এবং এটি বৌদ্ধ শিক্ষা ও সংস্কৃতির কেন্দ্র ছিল বলে মনে করা হয়।
  • বরেন্দ্র পার্ক: রাজশাহী শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত এই পার্কটি পিকনিক, বোটিং এবং বহিরঙ্গন কার্যক্রমের জন্য একটি জনপ্রিয় স্থান। পার্কটিতে একটি মিনি চিড়িয়াখানা, একটি শিশুদের খেলার মাঠ এবং একটি ছোট হ্রদ সহ বেশ কয়েকটি আকর্ষণ রয়েছে৷
  • নাটোর রাজবাড়ী: এই প্রাসাদটি শাহ মখদুম মাজার থেকে প্রায় 50 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এবং এটি ঔপনিবেশিক যুগের স্থাপত্যের একটি চমৎকার নিদর্শন। প্রাসাদটিতে জটিল খোদাই, ম্যুরাল এবং একটি বড় উঠোন রয়েছে।

ভ্রমণ টিপস এবং সতর্কতা

শাহ মখদুম মাজার পরিদর্শন করার সময় এখানে কিছু ভ্রমণ টিপস এবং সতর্কতাগুলি মনে রাখতে হবে:

  • স্থানীয় রীতিনীতি এবং ঐতিহ্যকে সম্মান করুন: শাহ মখদুম মাজার একটি ধর্মীয় স্থান, এবং স্থানীয় রীতিনীতি ও ঐতিহ্যের প্রতি বিনয়ী পোশাক এবং সম্মানের সাথে আচরণ করা গুরুত্বপূর্ণ।
  • পকেটমার এবং চুরি সম্পর্কে সচেতন থাকুন: অন্য যেকোনো পর্যটন গন্তব্যের মতো, পকেটমার এবং চুরি সম্পর্কে সচেতন হওয়া গুরুত্বপূর্ণ। আপনার জিনিসপত্র আপনার কাছাকাছি রাখুন এবং বিপুল পরিমাণ অর্থ বা মূল্যবান জিনিসপত্র বহন করা এড়িয়ে চলুন।
  • নিয়ম ও প্রবিধান অনুসরণ করুন: শাহ মখদুম মাজারের কিছু নিয়ম ও প্রবিধান রয়েছে যা দর্শনার্থীরা অনুসরণ করে থাকেন। এর মধ্যে রয়েছে মাজারে প্রবেশের আগে জুতা খুলে ফেলা, মাজারের ভেতরে ছবি না তোলা এবং নীরবতা ও সাজসজ্জা বজায় রাখা।
  • কেলেঙ্কারী থেকে সতর্ক থাকুন: যারা আপনার কাছে অতিরিক্ত ভাড়া বা পণ্য অফার করে তাদের সম্পর্কে সতর্ক থাকুন। লাইসেন্স করা ট্যাক্সি ব্যবহার করার জন্য এবং ট্যাক্সিতে ওঠার আগে ভাড়া নিয়ে আলোচনা করার পরামর্শ দেওয়া হয়।
  • হাইড্রেটেড থাকুন এবং রাস্তার খাবার এড়িয়ে চলুন: হাইড্রেটেড থাকার জন্য প্রচুর পানি পান করুন, বিশেষ করে গ্রীষ্মের মাসগুলিতে। রাস্তার খাবার এড়িয়ে চলা এবং স্বাস্থ্যকর এবং ভালো মানের রেস্তোরাঁয় খাবার গ্রহন করার জন্য পরামর্শ দেওয়া হযল।
  • ভিড়ের জন্য প্রস্তুত থাকুন: শাহ মখদুম মাজারটি প্রচুর সংখ্যক ভক্তকে আকর্ষণ করে, বিশেষ করে উরস মোবারকের সময়। ভিড় এবং দীর্ঘ সারিগুলির জন্য প্রস্তুত থাকুন এবং সেই অনুযায়ী পরিকল্পনা করুন।
  • COVID-19 নির্দেশিকা অনুসরণ করুন: চলমান COVID-19 মহামারীর কারণে, মাস্ক পরা, সামাজিক দূরত্ব অনুশীলন করা এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজার বহন করা সহ স্থানীয় কর্তৃপক্ষের দ্বারা নির্ধারিত নির্দেশিকা এবং প্রবিধানগুলি অনুসরণ করা গুরুত্বপূর্ণ।
  • এই ভ্রমণ টিপস এবং সতর্কতাগুলি অনুসরণ করে, আপনি শাহ মখদুম মাজার পরিদর্শন করার সময় একটি নিরাপদ এবং আনন্দদায়ক অভিজ্ঞতা পেতে পারেন।
কন্টেন সহযোগিতায়ঃ Shakil Alam Munna
দিক নির্দেশনা