ক্যাথলিক গির্জা, সৈয়দপুর

ভালো লেগেছে
2

উত্তরের ব্যবসা- বাণিজ্য কেন্দ্র নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরের গোড়াপত্তন হয়েছিল ব্রিটিশ কোম্পানি শাসনামলে। আসাম বেঙ্গল রেলওয়ে স্থাপিত হলে সৈয়দপুরের গুরুত্ব বেড়ে যায় বহুগুণ। সে সময়ে আসাম বেঙ্গল রেলওয়ের সৈয়দপুর ছিল একটি ছোট্ট রেলওয়ে স্টেশন। এই স্টেশনের ঠিক উত্তর পার্শ্বে স্থাপন করা হয় ছোট একটি লোকোশেড। এই লোকোশেডটি ছিল আজকের দেশের বৃহত্তম সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার ভিত্তিভূমি। পরবর্তীতে লোকোশেডটিকে ঘিরেই ১১০ একর জমি নিয়ে গড়ে তোলা হয় বিশাল রেলওয়ে কারখানাটি। এ কারখানাটি স্থাপনে ব্রিটিশরা বিবেচনায় নিয়েছিল এর অবস্থান, জলবায়ূ ও পরিবেশগত অবস্থান। এ কারখানায় বাঙালি ও বিহারীর সাথে কাজ করতো বহু ব্রিটিশসহ এ্যাংলো ইন্ডিয়ান ক্যাথলিক প্রোটেষ্টান্ট খ্রিষ্টান। এদের বসবাসের জন্য গড়ে তোলা হয় বেশ ক’টি আবাসিক এলাকা। এর মধ্যে সাব-অর্ডিনেট কলোনি, সাহেবপাড়া ও অফিসার্স ক্লাব অন্যতম।

১৮৮৬ খ্রিষ্টাব্দে তাদের ধর্মীয় উপাসনার জন্য ব্রিটিশ সরকার সাহেবপাড়ার দু’প্রান্তে দুটি গির্জা নির্মাণ করে। এর একটি ছিল রোমান ক্যাথলিক (Roman Catholic Church) ও অপরটি প্রোটেষ্টান্ট সম্প্রদায়ের। এ গির্জা দুটি উত্তরাঞ্চলের সর্বপ্রথম ও প্রাচীনতম গির্জা। এর নির্মাণ শৈলী রোমান ও ইউরোপীয় স্থাপত্য কলায় সমৃদ্ধ। এর মধ্যে রেলওয়ে কারখানা গেট সংলগ্ন গির্জাটি কুমারী মরিযমের নামে উৎসর্গ করা হয়। ব্রিটিশ সরকার ১৮৯২ সালে গির্জার পাশেই রেলওয়ের ৩ বিঘা জমির উপর পুরোহিত ভবন নির্মাণ করে। তখন ফাদার ফ্রান্সিস বোক্কা লিমে মহমতি যিশু খ্রিষ্টের ভক্ত- অনুরক্তদের নিয়ে আধ্যাত্মিক কর্মকান্ড পরিচালনা করতেন।

সৈয়দপুরের (Saidpur) পুরনো গির্জা ও পুরোহিত ভবন নির্মাণের পর সিস্টারস অব চ্যারিটি সম্প্রদায়ের সিস্টাররা এই ধর্মপল্লীতে আসেন। পরে এদের প্রচেষ্টায় সেন্ট জেরোজা নামে একটি স্কুল চালু করা হয়। সেখানে এখনও সুনামের সাথে ছেলে-মেয়রা লেখাপড়া করছেন। একসময় রেলওয়ে কারখানাকে কেন্দ্র করে সৈয়দপুরে আগমন ঘটেছিল ব্রিটিশ ও এ্যাংলো ইন্ডিয়ানদের। কালের বিবর্তনে তারা চলে গেলেও রয়ে গেছে ক্ষুদ্র পরিসরে তাদের গড়া ধর্মপল্লী সাব-অর্ডিনেট কলোনি, সাহেবপাড়া ও অফিসার্স ক্লাব। সে সাহেবরা আর নেই। কিন্ত রয়ে গেছে সাহেবপাড়ার দু’প্রান্তে তাদের গড়া দুটি দর্শনীয় গির্জা। যার স্থাপত্য কলা ও নির্মাণ শৈলী মুগ্ধ করে আগত প্রতিটি মানুষকে।

কিভাবে যাবেনঃ

ঢাকা থেকে নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনে সরাসরি সৈয়দপুরে চলে যেতে পারেন। ট্রেনের ভাড়াও খুবই অল্প। এছাড়াও গাবতলী, কলেজগেট, মহাখালি থেকে সৈয়দপুর সরাসরি অনেকগুলো বাস সার্ভিস চালু আছে। এছাড়াও বিমানযোগে সরাসরি সৈয়দপুরে চলে যেতে পারেন। সৈয়দপুরে ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ ও বেঙ্গল এয়ারওয়েজ এর বেসরকারি বিমান সপ্তাহে দু’দিন চালু আছে। সময় লাগবে ৩০/৪০ মিনিট।

কোথায় থাকবেনঃ

সৈয়দপুরে থাকার জন্যে যেসব আবাসিক হোতেল আছে তাদের মধ্যে একটি হলো – দিয়াজ হোটেল এন্ড রিসোর্টস, উত্তরা ইপিজেড, সৈয়দপুর, নীলফামারি-৫৩০০, বাংলাদেশ। টেলিফোন: +88 0551 62552, +88 0551 62553 ; মোবাইল: +88 01978 302080, 01778 302080

এ ছাড়াও নীলফামারীতে থাকার জন্যে বেশ কিছু আবাসিক হোটেল আছে। আপনার পছন্দমতো যে কোন একটিতে উঠুন। এ্যাপোল, বনফুল(সৈয়দপুর রোড) অবকাশ (এবাদত প্লাজা), কিংবা নাভানা আবাসিক হোটেলে উঠতে পারেন।

×

করোনা (COVID-19) ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে যা করনীয়ঃ

  • সবসময় হাত পরিষ্কার রাখুন। সাবান দিয়ে অন্তত পক্ষে ২০ সেকেন্ড যাবত হাত ধুতে হবে।
  • সাবান না থাকলে হেক্সিসল ব্যবহার করুন। হেক্সিসল না থাকলে হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন, যতটুকু সম্ভব ভীড় এড়িয়ে চলুন।
  • বাজারে কিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন, করলে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • টাকা গোনা ও লেনদেনের পর হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ওভার ব্রিজ ও সিড়ির রেলিং ধরে ওঠা থেকে বিরত থাকুন।
  • পাবলিক প্লেসে দরজার হাতল, পানির কল স্পর্শ করতে টিস্যু ব্যবহার করুন।
  • হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।
  • নাক, মুখ ও চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন।
  • হাঁচি কাশির সময় কনুই ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়ে থাকেন তবে মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক নয় তবে আক্রান্ত হলে সংক্রমণ না ছড়াতে নিজে মাস্ক ব্যবহার করুন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকুন। Stay Home, Stay Safe.

দিক নির্দেশনা

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।