নকশিপল্লী, পূর্বাচল

ভালো লেগেছে
1

নকশিপল্লী রেস্তোরাঁ (Nokshi Polli) ঢাকার পূর্বাচলে অবস্থিত। যারা ঢাকার মধ্যেই যানজট থেকে দূরে গিয়ে একটু শান্তির আভাস পেতে চান তাদের জন্য একটা ভাল জায়গা হতে পারে পূর্বাচলের বালু ব্রিজের পাশের এই সুন্দর এলাকা। এখানে মোটামুটি অনেক খাওয়ার হোটেল, রেস্তোরা আছে কিন্তু একটু ভিন্ন ধাচের একটা রেস্তোরা হল নকশিপল্লী। আপনি এখানে নদীর পাশে বসে কিছুটা সুন্দর সময় কাটাতে পারেন, ইচ্ছে করলে বোটে ঘুরতে পারেন, এমনকি ঘোড়ার গাড়িতে চড়তে পারবেন। আর আশে পাশে হাটার অনেক জায়গা আছে। চারপাশের কাশফুলগুলো যখন এক দল বেধে উড়ে আসবে তখন পরিবেশ হবে আরো মনোমুগ্ধকর।

নকশিপল্লী কোথায় অবস্থিত

ঢাকার পূর্বাচল, সেক্টর -০১, রোড-৪০২, প্লট-০৬, গুদারা ঘাট,পূর্বাচল বালু নদীর পাশে।

যাওয়ার উপায়

ঢাকার যেকোনো জায়গা থেকে আগে আপনাকে ৩০০ ফুটে যেতে হবে। ৩০০ ফুট থেকে পূর্বাচল যাওয়ার পথে ২টা ব্রিজ পড়বে। প্রথমে পড়বে বোয়ালিয়া ব্রিজ তারপরে পড়বে বালু ব্রিজ। বালু ব্রিজ পার হয় ডানে মোড় নিতে হবে, ওখানে দেখবেন লেখা আছে ভোলানাথপুর কবরস্থান। ৩০০ ফুটে গিয়ে ওখান থেকে অটোতে আপনাকে যেতে হবে বালু ব্রিজ। প্রতিজনের অটো ভাড়া পড়বে ৩০ টাকা। অটো থেকে নেমে ভিতরে কিছুদূর হাটলেই পেয়ে যাবেন নকশিপল্লী।

×

করোনা (COVID-19) ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে যা করনীয়ঃ

  • সবসময় হাত পরিষ্কার রাখুন। সাবান দিয়ে অন্তত পক্ষে ২০ সেকেন্ড যাবত হাত ধুতে হবে।
  • সাবান না থাকলে হেক্সিসল ব্যবহার করুন। হেক্সিসল না থাকলে হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন, যতটুকু সম্ভব ভীড় এড়িয়ে চলুন।
  • বাজারে কিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন, করলে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • টাকা গোনা ও লেনদেনের পর হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ওভার ব্রিজ ও সিড়ির রেলিং ধরে ওঠা থেকে বিরত থাকুন।
  • পাবলিক প্লেসে দরজার হাতল, পানির কল স্পর্শ করতে টিস্যু ব্যবহার করুন।
  • হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।
  • নাক, মুখ ও চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন।
  • হাঁচি কাশির সময় কনুই ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়ে থাকেন তবে মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক নয় তবে আক্রান্ত হলে সংক্রমণ না ছড়াতে নিজে মাস্ক ব্যবহার করুন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকুন। Stay Home, Stay Safe.

দিক নির্দেশনা

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।

  1. খাওয়া ডাওয়া সেরে ট্রলার ভাড়া করে ঘুরেছি। এককথায় অসাধারন লাগে বিকেল বেলায়। চাইলে নদীর পাশে বসে কিছুটা সুন্দর সময় কাটাতে পারবেন।

  2. অনেকেই এটাকে ঘুড়ার প্লেস মনে করে, এটা আসলে একটা রেস্তোরা। তবে এটার আশে পাশের জায়গা গুলোতে ঘুরতে পারেন বিকেল বেলা।