জুরাছড়ি

জন
৩ মিনিটস
জন

জুরাছড়ি (Jurachari) রাঙামাটির সদর থেকে ৫৭ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। ‘জুর’ শব্দের অর্থ ঠাণ্ডা আর ‘ছড়ি’ শব্দের অর্থ ছড়া বা ঝরণা। জুরাছড়ি নামের ঝর্ণা থেকে এই উপজেলার নামকরণ হয়েছে। এই উপজেলার পূর্বে ভারতের মিজোরাম, উত্তরে বরকল, দক্ষিণে বিলাইছড়ি এবং পশ্চিমে রাঙামাটি। এই এলাকার একমাত্র যোগাযোগ মাধ্যম নৌপথ।

৬০৬ বর্গ কিলোমিটার জুড়ে বিস্তৃত জুরাছড়ি সৌন্দর্য পিপাসুদের জন্য সৌন্দর্যের ডালা সাজিয়ে বসে আছে। জুরাছড়ি এর এক পাশে দূর পাহাড় থেকে নেমে আসা বৃক্ষরাজী। অন্য পাশে কাপ্তাই হ্রদের নীরব জলে ঝিরি ঝিরি বাতাসের মিতালী মানুষের ঘুমন্ত সৌন্দর্যবোধকে এক ঝাঁকিতে জাগিয়ে তোলে। কোথায় যেন হারিয়ে যেতে চায় মন। এছাড়া জুরাছড়িতে রয়েছে ছোট বড় বেশ কয়েকটি বৌদ্ধবিহার, ঝর্ণা ও দীঘি। এর উপজেলা কমপ্লেক্সের পাশেই রয়েছে আর্মি ক্যাম্প। তাছাড়া এখানকার থানার পুলিশ পযর্টকদের নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য সার্বক্ষণিক প্রস্তুত। যে কোনো প্রয়োজনে ছুটে আসেন তারা।

জুরাছড়ি ভ্রমণে কি কি দেখবেন

বরকল বিজিবি ক্যাম্প থেকে অনুমতি নিয়ে ভূষণছড়া ও ছোট হরিণা যেতে পারেন এবং ফেরার দিন মিটিঙ্গাছড়ি, সুবলং ঝর্ণা, ঝুলন্ত ব্রিজ ও ডিসি হিল পার্কে ঘুরতে পারেন।

জুরাছড়ি যাওয়ার উপায়

ঢাকা টু রাঙ্গামাটি অনেক গুলো পরিবহন আছে যেমন: সোহাগ, সৌদিয়া, শ্যামলী, হানিফ, ঈগল ইত্যাদি। আপনি কল্যানপুর, কলাবাগান বা সায়দাবাদ থেকে রওনা হতে পারেন। ভাড়া ননএসি ৬০০-৬৫০ টাকা, এসি ৮০০-১০০০ টাকা। রাতে (১০-১১ টা) রওনা হলে আপনি খুব ভোরে (৬-৭ টা) পৌছে যাবেন রাঙ্গামাটি।

রাঙ্গামাটি শহরের সেনানিবাস এলাকা থেকে রিজার্ভ বাজার পর্যন্ত অটোরিকশা ভাড়া পড়বে ১০০ টাকা। ট্রলার তিন দিনের জন্য নেবে ১০ থেকে ১১ হাজার টাকা। লঞ্চ যোগেও যেতে পারেন রিজার্ভ বাজার থেকে। সকাল ৭টা ৩০ মিনিটে একটি লঞ্চ এবং দুপুর ২টা ৩০ মিনিটে আরেকটি লঞ্চ জুরাছড়ির উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। ভাড়া জনপ্রাত ৭০ থেকে ২০০ টাকা। সারাদিনে মাত্র দুটো লঞ্চ জুরাছড়ি আসা-যাওয়া করে। সময় লাগে প্রায় ৩ থেকে ৪ ঘন্টা। পথে শুভলং, নতুন বাজারসহ তিন চারটি ঘাটে বোট থামে।

যদি জুরাছড়ি না থাকেন তাহলে দুপুর দেড়টা ও রাত সাড়ে ৮টায় ফিরতি বোট ধরতে হবে।

রাঙ্গামাটি থেকে জুরাছড়ি যাওয়ার ট্রলার এর কিছু ফোন নাম্বার –
  • নাসির – ০১৫৫৭১১৭০৫
  • মামুন – ০১৮২৭৫১৬৭৫২
  • রাসেল – ০১৮২০৩০৩১৪১
  • সালাম – ০১৮২০৩২২৪৯৮
  • মালেক – ০১৫৫২৭২৭৩১৭

খাগড়াছড়ি থেকে জুরাছড়ি যাওয়ার উপায়

খাগড়াছড়ির দীঘিনালা থেকেও যেতে পারবেন। সেক্ষেত্রে খুব সকালে দীঘিনালা থেকে মোটর বাইকে লংগদু রওনা দিতে হবে। দীঘিনালা থেকে লংগদু যেতে সময় লাগবে ১ ঘন্টার মত, দূরত্ব ৩৫ কিলোমিটার। লংগদু থেকে ট্রলারে করে শুভলং বাজার। দুপুরে ওখানে খাওয়া দাওয়া শেষে জুরাছড়ি এর লঞ্চে উঠে সন্ধ্যার আগে ঘাটে পৌঁছে যাবেন।

কোথায় থাকবেন

জুরাছড়িতে পর্যটক থাকার কোনও হোটেল এমনকি কাঠের বোর্ডিং পযর্ন্ত নেই। স্থানীয় কারও সহযোগিতা নিয়ে থাকার সমস্যার সমাধান করতে হবে।

কোথায় খাবেন

জুরাছড়ি বাজারে খাবারের হোটেল পাওয়া যাবে। উপজেলা কমপ্লেক্সের পাশে মোহম্মদ আলী হোটেলে সুস্বাদু খাবার মেলে। দামও কম।

সাথে যা নিবেন

লাইফ জ্যাকেট সঙ্গে নিবেন। সম্ভব হলে প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানিয়ে যাবেন।

দিক নির্দেশনা