হোসেনী দালান, ঢাকা

ভালো লেগেছে
0

প্রায় ৩০০ বছরের পুরানো ইমামবাড়া বা হোসেনী দালান যা পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে অবস্থিত যা শিয়া সম্প্রদয়ের একটি উপসনালয়। অনুমানিক ১৭শ শতকে মোগল সম্রাট শাহজাহানের সময়ে এটি নির্মিত হয়। ভবনটি মূলত কারাবালার প্রান্তরে ঈমাম হোসেনের শাহাদাৎ বরনের স্মরনে নির্মান করা হয়।

যানজট আর ভিড়ের ভয়ে অনেকেই আমরা পুরান ঢাকায় যেতে চাই না। তাই হয়ত অনেক দর্শনীয় স্থানগুলো থেকে যায় অদেখা। তবে যে কোনো ছুটির দিনে যখন যানজটের ভয় নেই, তখন ঘুরে আসতে পারেন পুরান ঢাকার হোসেনী দালান থেকে। বিশেষ করে যারা ইতিহাস ও ঐতিহ্যের অনুরাগী তাদের জন্য খুব আকর্ষণীয় একটি স্থান হোসেনী দালান। প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় / বুয়েট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে খুব বেশী দূরে নয় এই হোসেনী দালান। এই দালানের প্রবেশ দ্বার দিয়ে ঢুকলেই বড় বাগান, শিয়া সম্প্রদায়ের কবর ও মূল স্থাপনা চোখে পড়বে। ভবনের পিছনের দিকে আছে দীঘি। দীঘির পাড়ে বসে কাটাতে পারেন কিছুটা সময়। হোসেনী দালানের বেশির ভাগ ছবি পিছন দিক দিয়ে তোলা। কারন পিছের দিকে ভবনের একটা চমৎকার ভিউ পাওয়া যায়। একটা ছুটির দিন চলে যেতে পারেন।

Hussaini Dalan,Dhaka (হোসেনী দালান, ঢাকা)
হোসেনী দালান এর ভিতরের কারুকাজ

প্রতিবছর মহরম মাসের ১ ধেকে ১০ তারিখে আশুরা উপলক্ষ্যে জমজমাট হয়ে ওঠে হোসেনী দালান। তখন এখানে নানা রকম আচার অনুষ্ঠান হয়। এখান থেকেই মহরমের তাজিয়া মিছিল বের হয় এবং শহরের বিভিন্ন এলাকা প্রদক্ষিণ করে। সেসময় এ এলাকার চারপাশে মেলাও বসে।

জাতীয় জাদুঘরে হোসেনী দালানের একটি চমৎকার রেপ্লিকা রয়েছে যা পুরোটি রূপা দিয়ে তৈরি। হোসেনী দালান ছাড়াও পুরান ঢাকা থেকে ঘুরে আসতে পারবেন আশে পাশের গুরুত্বপূর্ণ ইতিহাসিক স্থাপনা গুলো, যেমন – আহসান মঞ্জিল, লালবাগ কেল্লা ইত্যাদি।

পরিদর্শনের সময়সূচীঃ

প্রতিদিন সকাল ৭.০০ টা থেকে রাত ১০.০০ টা পর্যন্ত খোলা থাকে।

কিভাবে যাবেনঃ

সিএনজি, রিকশা বা টেম্পোযোগে চাখাঁরপুল যাওয়া যায়। ইমামাবাড়া হোসেনী দালান পুরনো ঢাকার নিমতলী ও চানখাঁরপুল এলাকার হোসেনী দালান রোডে অবস্থিত।

×

করোনা (COVID-19) ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে যা করনীয়ঃ

  • সবসময় হাত পরিষ্কার রাখুন। সাবান দিয়ে অন্তত পক্ষে ২০ সেকেন্ড যাবত হাত ধুতে হবে।
  • সাবান না থাকলে হেক্সিসল ব্যবহার করুন। হেক্সিসল না থাকলে হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন, যতটুকু সম্ভব ভীড় এড়িয়ে চলুন।
  • বাজারে কিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন, করলে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • টাকা গোনা ও লেনদেনের পর হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ওভার ব্রিজ ও সিড়ির রেলিং ধরে ওঠা থেকে বিরত থাকুন।
  • পাবলিক প্লেসে দরজার হাতল, পানির কল স্পর্শ করতে টিস্যু ব্যবহার করুন।
  • হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।
  • নাক, মুখ ও চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন।
  • হাঁচি কাশির সময় কনুই ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়ে থাকেন তবে মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক নয় তবে আক্রান্ত হলে সংক্রমণ না ছড়াতে নিজে মাস্ক ব্যবহার করুন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকুন। Stay Home, Stay Safe.

দিক নির্দেশনা

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।