হালতির বিল

ভালো লেগেছে
1
Ratings
রেটিংস ( রিভিউ)

হালতির বিল বা হালতি বিল নাটোর সদর থেকে ১০ কিলোমিটার উত্তরে নলডাঙ্গা থানার অন্তর্গত বিল। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর নাটোরের হালতির বিল। বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিল এটি। হালতির বিলের বৃহত্তম অংশ নলডাঙ্গা উপজেলার অন্তর্গত। এ বিলের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য সত্যিই মনোমুগ্ধকর। এটাকে এখন উত্তরবঙ্গের দ্বিতীয় কক্সবাজার ও বলা হয়। বর্ষাকালে যখন পাটুল-খাজুরা রাস্তাটি পানিতে নিমজ্জিত হয়ে যায়, তখন এক মনোমুগ্ধকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়। দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে অনেক পর্যটক এখানে আসে হালতির বিল এর এই অপরূপ সৌন্দর্য দেখতে।

বেড়ানোর জন্য হালতির বিলের (Halter Bil) আবহাওয়া সারা বছরই সুন্দর। বিলের ভিতরে দ্বীপের মত যে ছোট ছোট গ্রাম আছে, সেগুলো আরো মনোমুগ্ধকর। বিলের সামনের পাটুল-খাজুরা রাস্তায় যেতেই চোখে পড়বে বড় অক্ষরে লেখা সাইনবোর্ড ‘পাটুল মিনি কক্সবাজার’। পথ ধরে দু’কদম গেলেই চোখে পড়বে উত্তাল জলরাশি।

নাটোর এ পচুর হোটেলে অবশ্যই খাবেন।

কিভাবে যাবেন

ঢাকা থেকে নাটোর (Natore) চার ঘণ্টার পথ। গ্রিনলাইন ও হানিফ পরিবহনের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বাসসহ শ্যামলী ও ন্যাশনাল ট্রাভেলসের বাস এ পথে নিয়মিত চলাচল করে। এ ছাড়া রাজশাহী গামী যে কোন বাসে অথবা ট্রেনে নাটোর যাওয়া  যাবে। সময় লাগে ছয় ঘণ্টা। এরপর শহর থেকে সিএনজি করে হালতির বিল যেতে সময় লাগবে ৩০ মিনিট।

কোথায় থাকবেন

নাটোরে রাতে থাকার জন্য ভিআইপি হোটেলের কোনো বিকল্প নেই। কাছাকাছি মানের হোটেল আরপিতেও নির্দ্বিধায় রাত যাপন করতে পারেন। থাকতে পারেন হোটেল মিল্লাতেও। এছাড়া সাধারন মানের হোটেলের মধ্যে আরও আছে –  হোটেল রুখসানা (কানাইখালিতে অবস্থিত), হোটেল উত্তরা ফকির হাটের।

ঘুরতে যেয়ে পদচিহ্ন ছাড়া কিছু ফেলে আসবো না,
ছবি আর স্মৃতি ছাড়া কিছু নিয়ে আসবো না।।

দিক নির্দেশনা

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।

Sending

  1. যখন বগুড়া রোড থেকে নাটোরের রোডে রওনা হবেন, সিংড়ার চলন বিলের রাস্তা পড়বে। এটি প্রায় ৭০ কিলো। যে কারো নজর কাটবে এই রোডটি, পুরো রাস্তার দুই পাশে বিলের পানি ছুঁই ছুই করে রাস্তার কিনারা ঘিরে আর মাথার উপর বিশাল বড় এক নীল আকাশ। এক কথায় অসাধারন।

    আপনার কাছে এই রিভিউ সাহায্যপূর্ণ মনে হয়েছে? হ্যাঁ না