ফুরমোন পাহাড়

ভালো লেগেছে
4

ফুরমোন পাহাড় (Furomown Hill) রাঙ্গামাটিতে অবস্থিত একটি পাহাড় যার উচ্চতা এক হাজার ৫১৮ ফুট। রাঙ্গামাটি শহরে ঢুকার সময় এটি চোখে পড়বে যা শহর থেকে ৭ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। এ পাহাড়ের চূড়ায় উঠে রাঙামাটি শহরের অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগ করা যায়। মোটামুটি আঁকাবাঁকা উঁচুনিচু পাহাড়ি এই রাস্তাধরে ২ ঘন্টা ৩০ মিনিট একটানা হাটলেই ডানে পাহারের চূড়ায় ওঠার সিঁড়ি পেয়ে যাবেন। ৪১৩ টা পাকা সিঁড়ি এবং অল্পকিছু মাটির সিঁড়ি পার করলেই ফুরমোন এর সুন্দর্য্য আপনার জন্য অপেক্ষা করছে। তবে হৈচৈ করা থেকে বিরত থাকুন কারন ভান্তেরা এখানে ধ্যান করেন। মনে রাখবেন এটা পর্যটন কেন্দ্র নয়, এটা তীর্থ কেন্দ্র।

প্রায় ২.৩০ ঘন্টা পাহাড় বেয়ে উঠার যে কষ্ট তা ২ মিনিটে উধাও হয়ে যাবে পাহাড়ের উপর থেকে চারিদিকে তাকিয়ে। অবশ্যই দল বেঁধে যাবেন, একা না যাওয়াই ভালো। সাথে অবশ্যই আইডি কার্ড নিয়ে যাবেন।

পাহাড়ে চড়ার আগে প্রয়োজনীয় জিনিসপাতি সাথে নিয়ে নিন কারন পথে কিছুই পাবেন না। যেমনঃ পর্যাপ্ত পানি, শুকনা খাবার, হাটার জন্য লাঠি ইত্যাদি।

যাওয়ার উপায়

ঢাকা এর ফকিরাপুল, কলাবাগানসহ বিভিন্ন কাউন্টার থেকে রাঙ্গামাটির উদ্দেশে বিভিন্ন পরিবহনের বাস যায়। মানভেদে ভাড়া ৬০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা। রাঙ্গামাটি পৌঁছে শহর থেকে সিএনজিচালিত অটোরিকশা কিংবা অন্য যেকোনো মোটরগাড়িতে ফুরমোন পাহাড়ের পাদদেশে যাওয়া যায়।

চট্রগ্রাম এর অক্সিজেন বাসস্টেশন থেকে পাহাড়িকা বাসে ঘাগড়ার কিছু পরে সাপছড়ি নেমে যান। জনপ্রতি ভাড়া ১২০ টাকা। এখানের যে কোন লোককে জিজ্ঞেস করলেই দেখিয়ে দিবে। এ জন্য অবশ্যই পাহাড়ে ওঠার অভ্যাস থাকতে হবে। আরেকটু আরামে যেতে চাইলে ফুরোমোনের পাদদেশে নির্মিত রাস্তা দিয়েও যেতে পারেন।

রাঙামাটি শহরের নিউ মার্কেট থেকে সিএনজি রিজার্ভ করে ফুরোমন ভাবনা কেন্দ্রের সামনে নামিয়ে দিতে বলবেন। সেখান থেকেই ট্রেকিং শুরু। অবশ্য ফুরোমনের অন্যপাশে প্রায় পাহাড়ের পাদদেশে যাওয়া যাবে। এক্ষেত্রে লোকাল সিএঞ্জিতে জনপ্রতি ৪০-৫০ টাকা অথবা রিজার্ভ করলে ২০০-২৫০ টাকা ভাড়া পরবে।

থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা

ফুরমোন পাহাড়ে থাকা-খাওয়ার কোন ব্যবস্থা নেই।

×

করোনা (COVID-19) ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে যা করনীয়ঃ

  • সবসময় হাত পরিষ্কার রাখুন। সাবান দিয়ে অন্তত পক্ষে ২০ সেকেন্ড যাবত হাত ধুতে হবে।
  • সাবান না থাকলে হেক্সিসল ব্যবহার করুন। হেক্সিসল না থাকলে হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন, যতটুকু সম্ভব ভীড় এড়িয়ে চলুন।
  • বাজারে কিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন, করলে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • টাকা গোনা ও লেনদেনের পর হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ওভার ব্রিজ ও সিড়ির রেলিং ধরে ওঠা থেকে বিরত থাকুন।
  • পাবলিক প্লেসে দরজার হাতল, পানির কল স্পর্শ করতে টিস্যু ব্যবহার করুন।
  • হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।
  • নাক, মুখ ও চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন।
  • হাঁচি কাশির সময় কনুই ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়ে থাকেন তবে মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক নয় তবে আক্রান্ত হলে সংক্রমণ না ছড়াতে নিজে মাস্ক ব্যবহার করুন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকুন। Stay Home, Stay Safe.

দিক নির্দেশনা

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।