নবীন চন্দ্র সাহা জমিদার বাড়ি

ভালো লেগেছে
1

নবীন চন্দ্র সাহা জমিদার বাড়িটি (Balapur Zamindar Bari) নরসিংদী সদর উপজেলার পাইকারচর ইউনিয়নের মেঘনা নদীর তীরে বালাপুর গ্রামে অবস্থিত। জমিদার নবীন চন্দ্র সাহা ৩২০ বিঘা জমির উপর প্রতিষ্ঠা করেন এই বালাপুর জমিদার বাড়ি। এই জমিদার বাড়ির পাশেই মেঘনা ঘাট আর এই ঘাটকে কেন্দ্র করেই নবীন চন্দ্র সাহা এই বাড়িটি বানিয়েছিলেন। শত শত বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী এই জমিদার বাড়িটির নির্মাণশৈলী দারুণ দৃষ্টিনন্দন ও চমৎকার। ইতিহাস ও ঐতিহ্যের আবহে সময় কাটানোর জন্য দারুণ এক জায়গা এই বালাপুর জমিদার বাড়ি। জমিদার বাড়ির ঐতিহ্যের ছোঁয়ার সাথে পাবেন মেঘনা নদীর অবারিত প্রাকৃতিক স্নিগ্ধতা ও শোভা।

বালাপুর জমিদার বাড়িটি ১০৩ কক্ষের বিশাল বাড়ি। এখানে বাড়ির উত্তর দিকে একতলা, দক্ষিণে দোতলা, পূর্ব দিকে তিনতলা এবং পশ্চিম দোতলা ভবন দেখতে পাবেন। ফ্লোরে মোজাইক ও টাইলসের ব্যবহার দেখেই বোঝা যায় সেসময়ে কতটা বিলাস বহুল ছিল এই বাড়িটি। দরজা, জানালাগুলো ফুল লতাপাতাসহ বিভিন্ন মনোমুগ্ধকর কারুকার্যে সজ্জিত। এই জমিদার বাড়ির প্রতিটি ভবনই মনোমুগ্ধকর কারুকার্য শোভিত।

জমিদার বাড়ির পশ্চিমে রয়েছে তিনটি শান বাঁধানো পুকুর ঘাট। কারুকার্য সমৃদ্ধ দুর্গাপূজার মণ্ডপ দেখে এই জমিদারবাড়ির সেকালের আভিজাত্য ও জাঁকঝমকতা বুঝা যায়। এই বাড়ীর দুটি মন্দির এখনো অতীতের সাক্ষী হয়ে রয়ে গেছে। সেই সময় এখানে অতিথিদের থাকার জন্য আরো একটি সুন্দর ভবন ছিল। এই জমিদার বাড়ীর পাশেই দেখতে পাবেন ১৯১৩ সালে প্রতিষ্ঠিত ঐতিহ্যবাহী বালাপুর নবীন চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়। এই স্কুলটির সামনেই রয়েছে একটি বিশাল আকারের খেলার মাঠ। এই বাড়ি থেকে কিছুটা দূরেই মেঘনা নদীর ঘাট। জনশ্রুতি আছে, ভারতের কলকাতা থেকে স্টিমার এসে এ ঘাটেই মালামাল খালাস করত। আর তাই এই জায়গাকে বর্তমানে স্টিমারঘাট বলে ডাকা হয়।

এই জমিদার বাড়ি ঘুরা শেষ হলে ১০-১৫ মিনিট হাটার পর পেয়ে যাবেন মেঘনা বাজার। সেখান থেকে মিনিট পাঁচেক হাঁটলেই পেয়ে যাবেন বিশাল মেঘনা নদী। চাইলে নৌকা নিয়েও ঘুরে বেড়াতে পারেন মেঘনার বুকে।

যারা ব্যস্ততার কারণে দূরে কোথাও ঘুরতে যেতে পারেন না তারা ছুটির দিনে একদিনের জন্য ঘুরে আসতে পারেন ঢাকার খুব কাছেই নরসিংদীর বালাপুর জমিদার বাড়ি থেকে। পরিবার বন্ধুবান্ধবসহ কাটিয়ে আসতে পারেন একটি দিন প্রাচীন ইতিহাস আর ঐতিহ্যের সঙ্গে। শত শত বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী এই জমিদার বাড়িটির কারুকার্যময় ও নান্দনিক সৌন্দর্য দর্শনার্থীদের মুগ্ধ করে।

যাওয়ার উপায়

ঢাকার গুলিস্তানস্থ সার্জেন্ট আহাদ পুলিশ বক্সের সামনে হতে মেঘালয় বাসে করে নরসিংদীর মাধবদী যেতে হবে প্রথমে, ভাড়া পরবে ৯০ টাকা। লোকাল বাসে চড়ে গেলে মাধবদী যেতে ৩০ থেকে ৪০ টাকা লাগবে। মাধবদী বাস স্ট্যান্ড নেমে রিকশা ভাড়া করে মাধবদী গরুরহাট সিএনজি স্টেশন যেতে হবে। গরুরহাট সিএনজি স্টেশন থেকে বালাপুর জমিদার বাড়ি যাওয়ার সিএনজি পাওয়া যায়, জনপ্রতি ভাড়া পড়বে ২০ থেকে ৩০ টাকা।

×

করোনা (COVID-19) ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে যা করনীয়ঃ

  • সবসময় হাত পরিষ্কার রাখুন। সাবান দিয়ে অন্তত পক্ষে ২০ সেকেন্ড যাবত হাত ধুতে হবে।
  • সাবান না থাকলে হেক্সিসল ব্যবহার করুন। হেক্সিসল না থাকলে হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন, যতটুকু সম্ভব ভীড় এড়িয়ে চলুন।
  • বাজারে কিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন, করলে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • টাকা গোনা ও লেনদেনের পর হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ওভার ব্রিজ ও সিড়ির রেলিং ধরে ওঠা থেকে বিরত থাকুন।
  • পাবলিক প্লেসে দরজার হাতল, পানির কল স্পর্শ করতে টিস্যু ব্যবহার করুন।
  • হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।
  • নাক, মুখ ও চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন।
  • হাঁচি কাশির সময় কনুই ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়ে থাকেন তবে মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক নয় তবে আক্রান্ত হলে সংক্রমণ না ছড়াতে নিজে মাস্ক ব্যবহার করুন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকুন। Stay Home, Stay Safe.

দিক নির্দেশনা

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।