বায়তুর রউফ মসজিদ

ভালো লেগেছে
2

বায়তুর রউফ মসজিদ (Baitur Rauf Jame Masjid) ঢাকার আবদুল্লাহপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে পূর্ব দিকে গিয়ে রেললাইন পেরিয়ে দক্ষিণখান থানার ফায়েদাবাদে অবস্থিত। এর স্থাপত্যের বিশেষ দিক হলো, এর বায়ু চলাচলব্যবস্থা ও আলোর চমৎকার বিচ্ছুরণ মসজিদের পরিবেশকে দেয় ভিন্ন মাত্রা। ৭৫৪ বর্গমিটারের মসজিদটির বিশেষত্ব হলো, এখানকার মসজিদের পরিচিত চিত্র ডোম বা মিনার নেই। চতুর্দিকে আটটি পিলারের ওপর এটি তৈরি। এর নকশার বিশেষত্ব হলো, কিবলার দিকে ১৩ ডিগ্রি কোনাকুনি করা একটি থাম। আলো প্রবেশের জন্য চারদিকে রাখা হয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা। সুলতানি আমলের মসজিদের অনুপ্রেরণায় তৈরি হয়েছে এর স্থাপত্য।

স্থপতি মেরিনা খান এই মসজিদ নির্মানে প্রাধান্য দিয়েছেন সুলতানি আমলের নকশার প্রতি। বেশ শৈল্পিক এবং পরিকল্পনামাফিক করা হয়েছে তা ভেতরে ঢুকলেই টের পাওয়া যায়। বৈদ্যুতিক বাতি-ফ্যানের চাইতে প্রাকৃতিক আলো বাতাসকেই বেশি প্রাধান্য দেয়া হয়েছে নকশায়। বাতাস চলাচলের জন্য কোন জানালা ছাড়া ইটের গাঁথুনির এমন ব্যবহার অন্য কোন মসজিদে চোখে পড়েনা। এই সব কিছু মসজিদকে করেছে অনন্য।

আগা খান স্থাপত্য পুরস্কারের জন্য চূড়ান্ত মনোনয়ন পেয়েছে ঢাকার বায়তুর রউফ মসজিদ।

কিভাবে যাবেন

ঢাকার যেকোনো প্রান্ত থেকে টঙ্গীর আব্দুল্লাহপুর যেতে পারবেন বাসে। বায়তুর রউফ মসজিদে যেতে হলে আব্দুল্লাহপুর থেকে ডানে দক্ষিণখান থানার ফায়দাবাদের দিকে যেতে হবে। ফায়দাবাদের ট্রান্সমিটার মোড় থেকে হাতের বামে গলির ভেতর ১ মিনিট হাঁটলেই চোখে পড়বে মসজিদ। তবে মেইনরোড থেকে অটোতেও ফায়দাবাদ ট্রান্সমিটার মোড় আসা যায়। 

×

করোনা (COVID-19) ভাইরাস থেকে সতর্ক থাকতে যা করনীয়ঃ

  • সবসময় হাত পরিষ্কার রাখুন। সাবান দিয়ে অন্তত পক্ষে ২০ সেকেন্ড যাবত হাত ধুতে হবে।
  • সাবান না থাকলে হেক্সিসল ব্যবহার করুন। হেক্সিসল না থাকলে হ্যান্ড সেনিটাইজার ব্যবহার করুন।
  • আক্রান্ত ব্যক্তি থেকে দূরে থাকুন, যতটুকু সম্ভব ভীড় এড়িয়ে চলুন।
  • বাজারে কিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন, করলে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।
  • টাকা গোনা ও লেনদেনের পর হাত সাবান দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
  • ওভার ব্রিজ ও সিড়ির রেলিং ধরে ওঠা থেকে বিরত থাকুন।
  • পাবলিক প্লেসে দরজার হাতল, পানির কল স্পর্শ করতে টিস্যু ব্যবহার করুন।
  • হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন।
  • নাক, মুখ ও চোখ চুলকানো থেকে বিরত থাকুন।
  • হাঁচি কাশির সময় কনুই ব্যবহার করুন।
  • আপনি যদি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত না হয়ে থাকেন তবে মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক নয় তবে আক্রান্ত হলে সংক্রমণ না ছড়াতে নিজে মাস্ক ব্যবহার করুন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আতঙ্কিত না হয়ে সতর্ক থাকুন। Stay Home, Stay Safe.

দিক নির্দেশনা

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।