৯ দিনের থাইল্যান্ড এর গল্প (ক্রাবি, ফি ফি, ফুকেট, ব্যাংকক)

যুক্ত করা হয়েছে

নন সার্ক এ প্রথম ট্যুর তাই খোঁজ-খবর, হিসাব-নিকাশ তো একটু বেশী হবেই। শুরু করার আগে আরেকটু বলে নেই যে ফুকেট, ফি ফি বা ব্যাংকক এর কথা হরহামেশা সবাই বলে থাকলেও আমি একটু জোর গলাতে ক্রাবির কথা বলতে চাই কেননা সৌন্দর্য আর হালাল খাবারের খনি এই ক্রাবি। তাই থাইল্যান্ড এর শুরুটা ক্রাবি দিয়েই করেছি ।

থাইল্যান্ড

২.৫ বছর বিয়ের আমাদের এটি ১৫তম টুর ছিল, তাই যে খরচ গুলি দিব সেগুলি ২ জনের এক সাথে।

প্রথম দিন

সকাল ১১:০৫ এর ফ্লাইট এ ঢাকা থেকে ব্যাংকক এবং সন্ধা ৭:৩০ এ ব্যাংকক থেকে ক্রেবি। এরপর প্রিপেইড টেক্সিতে করে হোটেল।

বাংলাদেশ বিমান ঢাকা ব্যাংকক ঢাকা ৩৮,০০০টাকা
ব্যাংকক ক্রেবি ভিট জেট এয়ার ৭,০০০টাকা
নাইন হোটেল ৫০০বাথ। (আওনাং বিচ)
প্রিপেইড ট্যাক্সি ভাড়া ৭০০ বাথ

দ্বিতীয় দিন

ক্রাবি এর বিখ্যাত ফোর আইল্যান্ডস প্যাকেজ নেই স্পিড বোর্ট এ। লং টেইল বোর্ট এও যাওয়া যায়, সে ক্ষেত্রে খরচ খানেকটা কম পড়বে। ফোর আইল্যান্ডস গুলো হল –
১। প্রোনাং কেভ
২। তুপ আইসল্যান্ড
৩। চিকেন আইসল্যান্ড সাথে স্নোরকেলিং
৪। কোহ পোডা আইসল্যান্ড

থাইল্যান্ড

স্পিডবোর্ট ভাড়া ২,০০০ থাই বাথ (৮ জনের শেয়ারিং)
হোটেল পিকআপ & ড্রপ, লান্চ, সাইড সিং সহ।
সকাল ৮ টা থেকে দুপুর ২ টা।

সন্ধ্যার পর প্ল্যান মোতাবেক ক্রাবি নাইট মার্কেট যাবার কথা থাকলেও মঙ্গলবার নাইট মার্কেট বন্ধ থাকায় আওনাং মার্কেট গুলি ঘুরে বেরিয়েছি।

তৃতীয় দিন

দুপুরেই ফিফি আইল্যান্ডের উদ্দেশ্য রওনা দিব তাই সকাল সকাল রেইলি বিচ এর জন্য লং টেইল বোর্ট এ যাত্রা শুরু করলাম। ফেরার সময় পুরো বোট এ শুধু আমরা দুইজন থাকায় আমরা আও পারানাং বিচ, কো রাং নক ঘুরে আসি।

থাইল্যান্ড

রেলি বিচ যাওয়া আসা ৪০০ বাথ । মাথা পিছু ৪০০ বাথে আমদের হোটেল থেকে পিক করে ফেরি ঘাট আর ফেরিতে করে ফিফি আইসল্যান্ড পৌঁছে দিয়েছিলো। ২ ঘন্টার সমুদ্র যাত্রার পর ফি ফি তে পৌঁছালাম। মাইয়াদা হোটেলে ১০০০ বাথ এ বুকিং দেওয়া ছিল বুকিং ডট কম এ। হালাল খাবার আর পুল দুইটাই পেয়ে যাবেন মাইয়াদা হোটেল এ। রাতে বের হলাম ফিফি আইসল্যান্ড এর বাজার ঘুরে দেখতে।

চতুর্থ দিন

ভোরে বের হলাম ফি ফি এর ল্যান্ডসকেপ দেখতে। সকাল ৭:৩০ পর্যন্ত ঘোরাঘুরি করে আগের রাতেই বুকিং দেওয়া ফি ফি আইসল্যান্ড সাইট সিং টুর যার মধ্যে ছিল স্পিড বোট এ করে নিচের পয়েন্ট গুলি ঘুরে দেখানো সাথে ফ্রুটস আর আন লিমিটেড সফট ড্রিন্কস।

১। মাংকি বিচ
২। সার্ক পয়েন্ট
৩। ভাইকিং কেভ
৪। পি লেহ বে
৫। লোহ সামাহ বে
৬। মায়া বে
৭। স্নোরকেলিং

থাইল্যান্ড

প্যাকেজ মুল্য ২২০০ বাথ দুইজনের ।

২টার ভেতর ফি ফি তে পৌছে ২:৩০ এর ফেরিতে ফুকেট এর উদ্দেশ্য রওনা দেই। ৩ ঘন্টা জার্নির পর ফুকেট থেকে পাতং বিচ এ হ্যালো পাতং হোটেল এ পৌঁছালাম। হোটেল ভাড়া ৫০০ বাথ এবং ট্রান্সপোর্টেশন ৫০০ বাথ দুইজন এর।

পঞ্চম দিন

শুধু পাতং বিচ উপভোগ করার জন্য সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত রেখেছিলাম। দুপুরে ১০০০ বাথ মাথা পিছু প্যাকেজ নেই যার ভেতর –

১।  টাইগার কিংডম
২। কেসনাট ও হানি ফ্যাক্টরি
৩। এলিফেন্ট রাইড

ষষ্ঠ দিন

দুপুরে বাসে চড়ে ব্যাংকক এর উদ্দেশ্য যাত্রা । ৩৬ সিট এর ডবল ডেকার এসি বাস। যার ভেতর পানি, হাল্কা স্ন্যাক্স তো ছিলই সাথে টয়লেটও ছিল। ভাড়া হোটেল পিক সহ ১০০০ বাথ। ৮০০ কিমি রাস্তার পুরাটাই দেখার মত ছিল (যতক্ষন জেগে ছিলাম আর কি )

৭ম দিন

ব্যাংকক এ সবাই সই ১১ আম্বাসিডর হোটেল এর আশে পাশে প্রেফার করে। তাই আমরাও কম বাজেটে সই ১১ তে হোটেল ভাড়া নেই বিজনেস ইন (৭০০ বাথ), খুব একটা জাতের না। সকাল ১১ টার মধ্য চাতুচাক মার্কেট এ চলে গেলাম, বলাবাহুল্য চাতুচাক উইকেন্ড মার্কেট এ ১৫০০ এর বেশী দোকান যা এক দিনে ঘুরে দেখা অসম্ভব।

থাইল্যান্ড

শর্টকাট এ কেনা কাটা শেষ করে দুপুরে মাদাম তুসোড (মোমের স্টেচু) ও সি লাইফ (আন্ডার ওয়াটার সী ক্রিয়েচারস) দেখে সোজা চলে গেলাম ক্রুস এ। যেখানে আমরা বুফেট খাব আর মধ্য রাত পর্যন্ত নদীতে ঘুরব সাথে ফ্রি লাইভ গান বাজনা তো থাকছেই।

মাদাম তুসোড আর সি লাইফ ৮০০বাথ/মাথা পিছু
ক্রুস ১০০০বাথ ইনক্লুডিং হোটেল পিক এন্ড ড্রপ ।

অষ্টম দিন

সাফারি পার্ক, সকাল ৮ টার সময় হোটেল থেকে পিক করে নিয়ে সাফারি উদ্দেশ্য রওনা দিলাম। সাফারি পার্ক এ ওরা ৪ টা লাইভ স্টেজ পারফরমেন্স দেখাবে এবং সব শেষে ওদের সাফারি পার্ক ঘুরে ফেরত যাবে। প্যাকেজ এর রেট ছিল ১০০০ বাথ সাথে বুফেট লাঞ্চ ও ছিল ।

নবম দিন

সকাল ১০-১২ টার মধ্যে MBK মল এ যতটুকু সম্ভব কেনা কাটা করেছি। এর পর ৪৫০ বাথ এর চুক্তিতে টেক্সিতে সুবর্নভুমি এয়ার পোর্ট।

এই সাথে আল্লাহ তালার মেহের বানিতে আমাদের ১৫ তম হানিমুনের সমাপ্তি ঘটলো।