মায়াদ্বীপ

Ratings
রেটিংস ৪.৫ ( রিভিউ)

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার বারদী ইউনিয়নের মেঘনা নদীবেষ্টিত দুর্গম চরাঞ্চল মায়াদ্বীপ। অবিনাশী মেঘনা নদীর ঠিক মাঝখানে জেগে ওঠা একটা ত্রিভুজ আকৃতির চর। দ্বীপটা বেশি একটা বড় না তবে চারিপাশে শুধু সবুজ আর সবুজ। সবুজ দ্বীপের ত্রিভুজের ঠিক মাথায় দাঁড়িয়ে আকাশ পানে চোখ বন্ধ করে দুই হাত প্রসারিত করে কয়েক মুহূর্ত এখানে কাটিয়ে ফেলার নামই জীবন! নদী থেকে উঠে আসা সতেজ-নির্মল বাতাস একটানা বইতে থাকে এখানে। সাঁই সাঁই বাতাসে উড়তে থাকা চুল জানিয়ে দেয় মুক্তির আনন্দ! ইট-কাঠের জঞ্জাল থেকে মুক্তির আনন্দ। জীবন এখানে হাসে গায়।

কিভাবে যাবেন

রাজধানী ঢাকার গুলিস্তান থেকে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত কয়েক মিনিট পরপর বিভিন্ন বাস ছেড়ে যায়। বাসে গিয়ে সোজা নামতে হবে সোনারগাঁওয়ে। তারপর সেখান থেকে ইজি বাইকে বৈদ্যের বাজার নেমে নৌকা ভাড়া করে যেতে হবে। সময় লাগবে ৪০ মিনিটের মত। সারাদিনের জন্য নৌকা ভাড়া পড়বে ১০০০-১২০০ টাকা পর্যন্ত।

একটা কথা মনে রাখবেন, সন্ধ্যার পর ওখানে থাকা চলবে না। নৌকা এমনভাবে ছাড়বেন যাতে সন্ধ্যার আগে বৈদ্যের বাজার এসে পৌছায়। বন্দর এলাকা বৈদ্যের বাজারে প্রয়োজনীয় সকল কিছু কিনতে পাওয়া যায়।

View Direction

আপনার রিভিউ দিন

* বাধ্যতামূলক ভাবে পূরণ করতে হবে।

Sending

  1. চারিদিকে মেঘের ঘনঘটা আর রং তুলিতে আকা ছোঁট একটি গ্রাম। যেই যাবে সেই হয়তো এই মায়াদ্বীপের মায়ায় পড়ে যাবে। যারা স্বপ্ন দেখেন কোন এক গ্রামে গিয়ে মেঘ-রোদ্দুরের খেলায় নিজেকে হারিয়ে ফেলতে কিংবা নিজেকে প্রকৃতির কাছে বিলিয়ে দিতে তাহলে বলবো মায়াদ্বীপ আপনার জন্য। আর এই গ্রামের মানুষগুলো এত বেশি আন্তরিক যে আপনি অবশ্যই তাদের মায়াতে পড়তে বাধ্য হবেনই।

    আপনার কাছে এই রিভিউ সাহায্যপূর্ণ মনে হয়েছে? হ্যাঁ না

  2. বেদ্দ্যের বাজার থেকে খাবার নিয়ে যেতে পারেন এটাই ভাল হবে কারণ ওইখানে কোন খাবারের দোকান চোখে পড়েনি। তবে আপনি ওইখানে দুপুরের খাবার খেতে চাইলে নৌকার পাইলট মামার হেল্প নিতে পারেন। আপনি বাজার করে নিয়ে গেলেন ওনারা রান্না আর খাওয়ার ব্যবস্থা করে দিবে। এর জন্য আপনি রান্নার জন্য কিছু টাকা দিয়ে আসতে পারেন।

    আপনার কাছে এই রিভিউ সাহায্যপূর্ণ মনে হয়েছে? হ্যাঁ না