বাই রোডে নেপাল ভ্রমণ গাইড

যুক্ত করা হয়েছে

নেপাল এর ভিসা

বাই রোডে নেপাল ট্যুরে যেতে হলে প্রথমেই আপনাকে হরিদাসপুর/গেদে পোর্টের ইন্ডিয়ান ট্রানজিট ভিসা লাগবে।

ভারতে ঢোকা

ভিসা ঝামেলা শেষে ভারতের উদ্দেশ্যে রওনা দিন। হরিদাসপুর বর্ডার থেকে শিলিগুড়ি চলে যান।

নেপাল ভ্রমণ

  • ভারতের শিলিগুড়ি থেকে পানির টাংকি যেতে হবে। বাস ভাড়া ২০ রুপি।
  • ইমিগ্রেশনের কাজ শেষ করে কাকরভিটা থেকেই পোখরা যাবার বাস পাবেন। ভাড়া নিবে ১২০০-১৪০০ নেপালি রুপি। সময় লাগবে ১২-১৪ ঘন্টা।
  • পোখরার লেক সাইডে হোটেল পেয়ে যাবেন ৪০০-১৫০০ রুপিতে, মধ্যম মানের হোটেল। চাইলে দামি হোটেল ও পাবেন।
  • পোখরাতে সাইট সিয়িং এর জন্য রিজার্ভ কার বা টাক্সি নিতে পারেন সাড়া দিনের জন্য। ভাড়া নিবে গাড়ি ভেদে তিন থেকে চার হাজার পাঁচশত টাকার মধ্যে। সব স্পট ঘুড়াবে।
  • সরংকোটে সূযদয় দেখা থেকে ভ্রমনের শুরু, ডেভিস ফলস, গোখড়া মিউসিয়াম, আন্তজাতিক মিউসিয়াম, হোয়াইট রিভার, ভেত কেব, ফেওয়া লেক, বেতনাস লেক ইত্যাদী। চাইলে প্যাড়াগ্লাইডিং, আল্ট্রা লাইট ফ্লাইট, রাফটিং, ট্রাকিং করতে পারেন।
  • এবার চলে আসুন নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডু শহরে। বাসে ভাড়া নিবে ৪৫০-৭০০ রুপি।
  • কাঠমান্ডুতে থাকার জন্য ভাল হল থামেল এরিয়া। হোটেল ভাড়া নিবে ৫০০-২০০০ রুপি। শপিং করতে পারেন এখানে, ভালো ভালো অনেক মল আছে কাঠমান্ডুতে।
  • কাঠমান্ডুতে দেখতে পারেন দরবার স্কোয়ার, নাগারকোট, সয়ম্ভু, বাঘ বাজার ইত্যাদি।
  • এবার ফেরার পালা। কাঠমান্ডু বাস স্ট্যান্ড থেকে সরাসরি কাকড়ভিটা আসার বাস পাবেন। ভাড়া নিবে  নন এসি ১১০০-১৩০০,  এসি ১৭০০-১৯০০ রুপি। সময় লাগবে ১২ ঘন্টা।
  • একইভাবে ইমিগ্রেশনের কাজ শেষ করে ভারতে প্রবেশ করুন।